Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ২ কার্তিক ১৪২৫, ০৬ সফর ১৪৪০ হিজরী

বন্ধু হয়েও লিঞ্চিস্তানে রেহাই পাচ্ছে না মিও মুসলিমরা

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ১২ অক্টোবর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

ভারতে গত তিন-চার বছর ধরে গোরক্ষার নামে যে সব মানুষ পিটিয়ে মারার ঘটনা ঘটেছে, তার অনেকগুলোতেই হামলার শিকার ছিলেন হরিয়ানার মেওয়াট জেলার মিও মুসলিমরা। গত বছর পহেলু খান, জুনেইদ কিংবা কিছুদিন আগে রাকবর খানের মতো যারা এই ধরনের গণপিটুনিতে প্রাণ হারিয়েছেন- তারা সকলেই এই এলাকার বা আশেপাশেরই বাসিন্দা। মেওয়াটের এই মিও মুসলিমরা বংশানুক্রমিকভাবে গবাদি পশু পালন আর চাষবাস করেই দিন গুজরান করে এসেছেন। কিন্তু এখন গরু-পাচারকারীর তকমা দিয়ে যেভাবে তাদের পিটিয়ে মারা হচ্ছে তাতে ভয়ে তারা বাড়িতে গরু-মোষ রাখাই বন্ধ করে দিচ্ছেন। শত শত বছর ধরে হিন্দুদের পাশে থেকেছে এই মিওরা। কিন্তু আজ ভারতের এই ‘মিনি লিঞ্চিস্তানে’ কীভাবে তাদের জীবন-জীবিকা ও বন্ধু পর্যন্ত বদলে যাচ্ছে, সরেজমিনে সেটাই উঠে এসেছে। ‘বাপুজি যব ঘসেরা আয়োঁ, হিন্দু-মুসলিম ইয়ানে সব সামে যায়োঁ’ মেওয়াটের গ্রামেগঞ্জে লোকশিল্পীদের গলায় আজও শোনা যায় এই গান। সাতচল্লিশে ভারতভাগের সময় গান্ধী মেওয়াটের ঘসেরা গ্রামে এসে কীভাবে ওই অঞ্চলের মুসলিমদের পাকিস্তান যাওয়া ঠেকিয়েছিলেন, তা মিওদের লোকগাথার অংশ। সেই কাহিনী নিয়েই ওই অঞ্চলের মিরাসি শিল্পীরা এই গান বেঁধেছেন। কিন্তু ভারতেই থেকে যাওয়ার সেই সিদ্ধান্ত আদৌ ঠিক ছিল কি না, আজ তাদের নতুন করে সে কথা ভাবতে হচ্ছে। হাথিন গ্রামে জুমআ মসজিদের সামনে জটলায় কান পাতলেই এখন শোনা যায়, বিজেপি সরকার যখন থেকে ক্ষমতায় এসেছে তখন থেকেই এই দশা - তারা মুখে বলে এক, আর করে এক। আশ মহম্মদ, চাঁদ খানরা বলছিলেন, ‘এই তল্লাটে কেউ কোনওদিন জাতধর্ম নিয়ে ভাবেনি, অথচ এখন সর্বত্র ভয় আর আতঙ্ক, গরু-মোষ আনতে গিয়ে বেঘোরে প্রাণটা না-যায়!’ মিওরা হলেন আসলে পশুপালকের জাত। হরিয়ানার মেওয়াট, আর রাজস্থানের ভরতপুর ও আলোয়াড়কে তিনটে বিন্দু ধরে একটা ত্রিভুজ টানলে যে এলাকাটা আসবে, মূলত সেখানেই তাদের বসবাস। কেউ বলেন তারা ইরান থেকে এসেছেন, কেউ বলেন রাজস্থানের মিনা উপজাতিরাই ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়ে মিও হয়েছেন। মেওয়াট লাগোয়া নূহ জেলা সদরে হাজী সাহাবুদ্দিন আবার শোনালেন অন্য গল্প। তিনি বলছিলেন, ‘আমাদের রীতি-রেওয়াজের সঙ্গে খুব মিল ইয়েমেনের।’ ‘ইয়েমেনের ধরনেই আমরা পাগড়ি আর জুতো পরি, হাতে লাঠি রাখি। এমন কী আমাদের মেয়েদেরও বিদায় দিই ইয়েমেনের মতোই হাতে খেজুর ধরিয়ে।’ ‘আমাদের চিরকালই হিন্দুদের সঙ্গে খুব ভাব - মিওদের রাজা হাসান খান মেওয়াতি রাজপুত রানা সাঙ্গার সাথে মিলে বাবরের বিরুদ্ধে পর্যন্ত যুদ্ধ করেছিলেন। মিওরা কোনওদিন মুঘল শাসন পর্যন্ত মানতে পারেনি, তারা ছিল চিরবিদ্রোহী।’ গরু-মোষ যেহেতু তাদের আয়ের প্রধান উৎস, তাই হিন্দুদের মতোই অনেক মিও গোমাংস ছুঁয়ে পর্যন্ত দেখেন না। কিন্তু যে মোষের দুধ দুইয়ে বা মোষকে দিয়ে হাল টানিয়ে তাদের পেট চলে - আশেপাশের গোরক্ষা বাহিনী সেগুলো বাঁচানোর নামেই ইদানীং রাস্তাঘাটে মিওদের মারধর শুরু করেছে। মিসাল নামে যে এনজিও-টি এই অঞ্চলে প্রচুর কাজকর্ম করছে, তার কর্মকর্তা খাদিজা খাদের বলছিলেন, ‘এই লিঞ্চিং শুধু তাদের জীবনের জন্য নয় - জীবিকার জন্যও হুমকি।’ ‘কারণ শত শত বছর ধরে গরুমোষ পালন করেই এই মানুষগুলোর দিন কেটেছে - কিন্তু আজ সেগুলোই তাদের কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া হচ্ছে, কিংবা সারাক্ষণ তাদের তটস্থ হয়ে থাকতে হচ্ছে।’ ‘অনেকে তো বাপ-দাদার পেশাই ছেড়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে।’ ‘তাদের বহুদিনের প্রতিবেশীরাই আজ গোরক্ষার নামে পুলিশের কাছে খবর দিচ্ছে, পুলিশের সঙ্গে মিলে মুসলিমদের ওপর জুলুম করছে।’ বিবিসি।



 

Show all comments
  • Nannu chowhan ১২ অক্টোবর, ২০১৮, ৯:০৪ এএম says : 0
    Asholei eai beshir vag varotio hindura boro hingshuk,tara onno jatir shathe shoho obostane bishshashi noy.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ