Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী

দুর্নীতি মামলা দুদকের অভিযানে আরও নয়জন গ্রেফতার

প্রকাশের সময় : ২৭ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : দুর্নীতির বিভিন্ন মামলায় চারজন ব্যাংকারসহ আরও নয়জনকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল মঙ্গলবার ও আগেরদিন সোমবার রাতে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে বলে দুদকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।
গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা হলেন, রূপালী ব্যাংক নবাবগঞ্জের শিকারীপাড়া শাখার ব্যবস্থাপক ফরিদ আহম্মদ, একই শাখার সাবেক সিনিয়র অফিসার আবদুস সালাম, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক, দোহার জয়পাড়া শাখার ব্যবস্থাপক মিজানুর রহমান, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, ভোমরাদহ শাখার সাবেক কর্মকর্তা (বর্তমানে সাময়িক বরখাস্ত) আরাফাত জামান, ব্যাংকটির একই শাখার নিরাপত্তারক্ষী মো. শাহজাহান আলী, সিঅ্যান্ডএফ প্রতিষ্ঠানের মালিক আবদুল আউয়াল ও কর্মচারী মো. আবুল হাশেম, যশোরের নওয়াপাড়ার সার ব্যবসায়ী শাহজাহান আলী মোল্যা ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের মো. নাসিবুল হুদা। এ নিয়ে গত ৩১ দিনে সারা দেশে অভিযান চালিয়ে ৭৩ জনকে গ্রেফতার করেছে দুদক। নতুন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর গত ২৭ মার্চ থেকে গ্রেফতার অভিযান শুরু করে সংস্থাটি।
দুদক সূত্র জানায়, ১৮ হাজার মার্কিন ডলার বিদেশে পাচারের অভিযোগে করা মামলায় চট্টগ্রামের সিএন্ডএফ প্রতিষ্ঠান কার্গো মুভার ক্র্যাকার্সের মালিক আবদুল আউয়াল ও প্রতিষ্ঠানটির কাস্টমস সরকার আবুল হাসেমকে গতকাল দুপুরে আগ্রাবাদ থেকে গ্রেফতার করে দুদক। ১৮ হাজার মার্কিন ডলার (বাংলাদেশী মুদ্রায় ১৪ লাখ ১৩ হাজার টাকা) বিদেশে পাচারের অভিযোগে ২০১৫ সালের ২৩ এপ্রিল নগরীর বন্দর থানায় এ দু’জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছিল দুদক। যশোরের নওয়াপাড়ার মেসার্স শাহজাহান ট্রেডার্সের মালিক শাহজাহান আলী মোল্যার বিরুদ্ধে গত মাসের ২৪ তারিখ একটি মামলা করে দুদক। ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ওই মামলা হয়। যশোরের নওয়াপাড়া থেকে গতকাল তাঁকে গ্রেফতার করে দুদক। পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণা ও ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে ঢাকা জেলা পরিষদের অর্থ আত্মসাতের মামলায় তিন ব্যাংকারকে গতকাল ঢাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। এ অভিযোগে মামলা হয় গত বছরের অক্টোবরে। রূপালী ব্যাংক নবাবগঞ্জের শিকারীপাড়া শাখার ব্যবস্থাপক ফরিদ আহম্মদ ও একই শাখার সাবেক সিনিয়র অফিসার আবদুস সালাম নবাবগঞ্জ থানায় করা মামলার আসামি। ওই মামলায় ২১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে। অন্যদিকে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক দোহার জয়পাড়া শাখার ব্যবস্থাপক মিজানুর রহমান দোহার থানায় করা মামলার আসামি। ওই মামলায় ১ লাখ ৮৯ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।
রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের ভোমরাদহ শাখার গ্রাহকদের কাছ থেকে আদায় করা ২৪ লাখ ২৭ হাজার ৬৬২ টাকা ব্যাংকের হিসাবে জমা না করে আত্মসাতের অভিযোগে ২০১৩ সালে মামলা করে দুদক। ওই মামলার এজাহারভুক্ত আসামি ব্যাংকটির সাবেক দ্বিতীয় কর্মকর্তা আরাফাত জামান ও নিরাপত্তারক্ষী শাহজাহান আলীকে সোমবার রাতে দিনাজপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়। মৎস্যজীবী সমিতি ৭০ লাখ টাকা ক্ষতিসাধনের অভিযোগে ২০১৪ সালের অক্টোবরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট থানায় করা একটি মামলায় সোমবার রাতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে নাসিবুল হুদাকে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ