Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার , ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

১০ দফা দাবীতে কক্সবাজারে ইসলামী আন্দোলনের স্মারকলিপি প্রদান

বিশেষ সংবাদদাতা, কক্সবাজার | প্রকাশের সময় : ১৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৫:১৯ পিএম

১০ দফা দাবী বাস্তবায়নের দাবীতে কক্সবাজার জেলা বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।

অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের দাবিতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ আহুত ১০ দফা দাবী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির আলোকে রবিবার (১৪ অক্টোবর) বেলা ১টায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন বরাবর এই স্মারকলিপি দেয়া হয়।

দাবী সমূহ হলো, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পূর্বে জাতীয় সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে। সকল নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের মতামত নিয়ে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে। বর্তমান নির্বাচন কমিশন বাতিল করে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে।
তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচিত সরকার ক্ষমতা গ্রহনের পূর্ব পর্যন্ত সশস্ত্রবাহিনী মোতায়েন করতে হবে এবং নির্বাচনের দিন সশস্ত্রবাহিনীর হাতে বিচারিক ক্ষমতা দিতে হবে। নির্বাচনে সকল দলের জন্যে সমান সুযোগ তৈরী করতে হবে।
রেডিও, টিভিসহ সকল সরকারী বেসরকারী গণমাধ্যমে সবাইকে সমান সুযোগ দিতে হবে এবং রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে সকল ধরনের হয়রানী বন্ধ করতে হবে। দুর্নীতিবাজদেরকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করতে হবে।
নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার বন্ধ রাখতে হবে। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, জাতীয় সংহতি ও কার্যকর সংসদ প্রতিষ্ঠায় জাতীয় নির্বাচনে সংখ্যানুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতির (পি.আর) নির্বাচন ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে হবে।

কোটা সংস্কার আন্দোলন এবং নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে গ্রেপ্তারকৃত সকল ছাত্রদের মুক্তি এবং তাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে প্রণীত বিতর্কিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে।

জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন- সংগঠনটির কক্সবাজার জেলা সিনিয়র সহসভাপতি মাওঃ আবুল হাশেম, সেক্রেটারি
মোহাম্মদ শোয়াইব, জেলা শিক্ষক ফোরাম সভাপতি, আলহাজ্ব ডাঃ মোহাম্মদ আমিন, শ্রমিক আন্দোলন সভাপতি আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান, যুব আন্দোলন সভাপতি মোঃ মুস্তাফিজুল হক, ইসলামী আন্দোলনের পৌর সভাপতি জননেতা মাও জাহেদুর রহমান, কামাল উদ্দিন, সাজ্জাদ হোসেন শাওন, আনোয়ার হোসেন, ছাত্র আন্দোলন সহ-সভাপতি মুহাম্মদ কাউসার ও সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ কলিম প্রমুখ।

স্মারকলিপিতে দশ দফা ছাড়া আরো বলা হয়, দেশের মানুষ আজ আতঙ্কিত ও চিন্তিত। পরস্পর বিরোধী দু’টি প্রধান রাজনৈতিক জোট মুখোমুখী অবস্থানে।

আগামী জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করা হচ্ছে। দেশময় সংঘাত আর সহিংসতার অশনি সংকেত পাওয়া যাচ্ছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ নবম জাতীয় সংসদে একতরফাভাবে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী পাশ করার পর থেকেই রাজনৈতিক সংকটে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে।
দেশের প্রায় সব রাজনৈতিকদল এবং নাগরিকসমাজের প্রতিনিধিগণ সরকারী দলের প্রতি সংকট সমাধানের উদ্যোগ গ্রহণের কথা বলে আসলেও, ক্ষমতাসীনরা সঠিক কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। তারা দেশের নির্বাচন ব্যবস্থাকেই ধ্বংস করে ফেলেছে।

বিগত ১০ বছরে দেশে কোন সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি। স্থানীয় সরকারের নির্বাচনগুলোতেও জনগণ তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারেনি। ক্ষমতাসীনরা তাদের দলীয় লোকদেরকে নির্বাচিত করার জন্যে এহেন কাজ নেই যা করেনি। নির্লজ্জভাবে মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন এবং প্রশাসন কেউই নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করেনি। ফলে নির্বাচনকে মানুষ এখন প্রহসন এবং তামাশা মনে করে। আগামীতে মানুষ আর তামাশা ও প্রহসনের নির্বাচন দেখতে চায় না। বর্তমান সংসদ বহাল রেখে নির্বাচন করলে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর মতো তামাশা হবে।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পূর্বে জাতীয় সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে একজন নিরপেক্ষ ও নির্দলীয় ব্যক্তির হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করার দাবী জানিয়েছে ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন।
রাষ্ট্রপতিকে উদ্দেশ্য করে স্মারকলিপিতে বলা হয়েছে, রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন যেভাবে মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে, দুর্নীতি সন্ত্রাস যেভাবে তৃণমূল পর্যায়ে বিস্তার করেছে, রাজনৈতিক নৈরাজ্য ও প্রতিহিংসার আগুন যেভাবে ধেয়ে আসছে, তা যদি নির্মূল করা না যায় তাহলে বিভিন্ন সংঘাতপূর্ন দেশের মত আমাদের দেশেও গৃহযুদ্ধ শুরু হয়ে যেতে পারে। তার আলামতই দিন দিন প্রকট থেকে প্রকটতর হচ্ছে।
এ সুযোগে আমাদের দেশে বিদেশি সম্রাজ্যবাদী ও আধিপত্যবাদী অপশক্তি সমূহ ঘাটি গেড়ে বসার সুবর্ণ সুযোগ পাবে। যার ফলে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব হুমকির সম্মুখীন হতে পারে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানে কার্যকর উদ্যোগ নিতে তারা দলটির পক্ষ থেকে দেশের রাষ্ট্রপ্রধানকে আহবান জানানো হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ