Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ০৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

সেনাবাহিনীর ইতিহাসে কখনো গ্রেনেড হারানো, চুরি বা বিক্রি হওয়ার কোনো ঘটনা ঘটেনি : আইএসপিআর

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৬ অক্টোবর, ২০১৮, ১২:২৫ এএম

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লার চৌধুরীর বিরুদ্ধে জিডি করেছে সেনা সদর দপ্তর। এদিকে গতরাতে পুলিশ জানায়, ক্যান্টনমেন্ট থানায় করা জিডিকে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হিসাবে রেকর্ড করা হয়েছে। জিডিটি গত রোববার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হলে এটি রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হিসেবে গ্রহণ করে তদন্তে জন্য গোয়েন্দা পুলিশকে স্থানান্তর করা হয়। গতকাল ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. আব্দুল বাতেন সরকারি সংবাদ সংস্থা বাসসকে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, গোয়েন্দা পুলিশের এসি ফজলুর রহমানকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত করা হয়েছে।
বেসরকারি টেলিভিশন ’সময়’ এর একটি টকশো’তে সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করায় এ জিডি করা হয়েছে। সেনা সদরের মেজর এম রকিবুল আলম বাদী হয়ে গত ১২ অক্টোবর শুক্রবার ক্যান্টনমেন্ট থানায় এই জিডি করেছেন। জিডি নম্বর-৪৯৮। জিডিতে বিধি মোতাবেক তদন্ত করে জাফরুল্লাহসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করা হয়। গত ৯ অক্টোবরের ঘটনায় থানায় অভিযোগ করতে বিলম্বের কারণ হিসেবে সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা ও নির্দেশ পাওয়ার কথাও জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে গতকাল আইএসপিআরের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ৯ অক্টোবর রাত ১০টায় “সময়” টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত টকশো অংশগ্রহণকারী আলোচকদের একজন ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী আলোচনার এক পর্যায়ে ২১ আগস্ট ২০০৪ সালে ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জনসভায় ইতিহাসের নৃশংসতম, জঘন্য ও ঘৃন্য গ্রেনেড হামলার ঘটনার সহিত বর্তমান সেনাবাহিনী প্রধান ও সেনাবাহিনীর সংশ্লিষ্টতা খুঁজতে গিয়ে দায়িত্বজ্ঞানহীনভাবে বর্তমান সেনাবাহিনী প্রধান ও সেনাবাহিনী সম্পর্কে কল্পনা প্রসুত ও বানোয়াট কিছু অসত্য তথ্য পরিবেশন করেন। সেনা সদর হতে পরদিন “সময়” টিভিতে লিখিত প্রতিবাদ জানানো হলে সময় টিভি কর্তৃপক্ষ অতিগুরুত্ব সহকারে ঐ দিন ১০ অক্টোবর “সম্পাদকীয়” অনুষ্ঠান শুরুর প্রাক্কালে উক্ত প্রতিবাদলিপি প্রচার করেন। আইএসপিআরের এক বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে, বর্তমান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ সম্পর্কে ডাঃ জাফলুল্লাহ চৌধুরীর বক্তব্য ছিল একটি দায়িত্বজ্ঞানহীন অসত্য বক্তব্য। কারণ বর্তমান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ চাকুরি জীবনে কখনোই চট্টগ্রামের জিওসি বা কমান্ড্যান্ট হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন না। তিনি সেপ্টেম্বর ২০১০ হতে জুন ২০১১ পর্যন্ত কুমিল্লায় ৩৩ আর্টিলারি ব্রিগেডের ব্রিগেড কমান্ডার, জুন ২০১১ হতে মে ২০১২ পর্যন্ত ঢাকায় মিরপুরে ৬ স্বতন্ত্র এডিএ ব্রিগেডের ব্রিগেড কমান্ডার এবং মে ২০১২ হতে ডিসেম্বর ২০১২ পর্যন্ত কুমিল্লায় ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বর্ণিত সময়ে চট্টগ্রাম বা কুমিল্লা সেনানিবাসে কোন সমরাস্ত্র বা গোলাবারুদ চুরি বা হারানোর কোনঘটনা ঘটেনি। এখানে বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে, বর্তমান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ তার দীর্ঘ বর্ণাঢ্য সামরিক চাকুরি জীবনে কখনোই কোর্ট মার্শালের সম্মুখীন হননি।
চাকুরিরত একজন সেনাবাহিনী প্রধান সম্পর্কে ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মতো একজন বিশিষ্ট ব্যক্তির এরূপ দায়িত্বজ্ঞানহীন অসত্য বক্তব্য সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রনোদিত যা সেনাবাহিনী প্রধানসহ সেনাবাহিনীর মতো রাষ্ট্রীয় একটি প্রতিষ্ঠানকে জনসম্মুখে হেয় করার হীন অপচেষ্টা মর্মে স্পষ্টতঃ প্রতীয়মান।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ডাঃ জাফরুল্লাহর উপরোক্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন অসত্য বক্তব্য কেবলমাত্র সেনাবাহিনী প্রধান হিসেবে জেনারেল আজিজ আহমেদ এর সুনাম ও সামাজিক অবস্থানকে ক্ষূন্ন করেনি, বরং তা সেনাবাহিনী প্রধানের পদকে চরমভাবে হেয় প্রতিপন্ন করেছে। যা প্রকারান্তরে চাকুরিরত সেনাবাহিনীর সকল সদস্যকে বিভ্রান্ত করছে এবং তাদের মনোবলের উপর নেতি বাচক প্রভাব ফেলছে। এছাড়া এরূপ অপপ্রচার সেনাবাহিনীর মতো সুশৃংখল বাহিনীর সংহতি ও একতাকে ক্ষতিগ্রস্থ করছে যা অনাকাংক্ষিত।
গত ১৩ অক্টোবর রাজধানীর গণস্বাস্থ নগর হাসপাতালে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ডাঃ জাফরুল্লাহ ইতিপূর্বে “সময়” টেলিভিশনের টকশোতে তার প্রদত্ত বক্তব্যে সেনাবাহিনী প্রধান সম্পর্কে অসাবধানতাবশত ভুল তথ্য উল্লেখ এবং ভুল শব্দ চয়ন ও শব্দ বিভ্রাট হয়েছিল মর্মে উল্লেখ করেন। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে তিনি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আরো কিছু তথ্য উপস্থাপন করেন। সংবাদ সম্মেলনে তার প্রদত্ত বক্তব্য বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়া, অনলাইন পোর্টালসহ প্রায় সকল জাতীয় দৈনিকে পরদিন প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত সংবাদে উল্লেখিত কিছু বিষয়ে সেনা সদরের দৃষ্টি আকর্ষিত হয়েছে এবং এ বিষয়ে সেনাসদর হতে তীব্র প্রতিবাদ জ্ঞাপন করা হলো। কারণ ডাঃ জাফরুল্লাহর সংবাদ সম্মেলনে প্রদত্ত বক্তব্যে পূনরায় কিছু বানোয়াট, অসত্য ও বিভ্রামিতকর তথ্য উপস্থাপিত হয়েছে যা সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আলোচনাকালে আমি দেশের বর্তমান সেনাপ্রধান জেনারেল এম এ আজিজ সম্পর্কে অসাবধানতাবশত একটি ভুল তথ্য উল্লেখ করেছিলাম। ডাঃ জাফরুল্লাহ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ সম্পর্কে যা যা বলেছেন তা সবই ভুল।
ডাঃ জাফরুল্লাহ শব্দ চয়নে ভুল করে ‘কোর্ট অব ইনকোয়ারি’ এর স্থলে কোর্ট মার্শাল’ বলেছেন, তার এই তথ্যটিও সঠিক নয়। ব্যক্তি আজিজের বিরুদ্ধে কখনও কোর্ট মার্শাল তো হয়ইনি বরং জেনারেল আজিজের সুদীর্ঘও বর্ণাঢ্য চাকুরী জীবনে তার বিরুদ্ধে কোন কোর্ট অব ইনকোয়ারিও হয়নি। বস্তুত পক্ষে ডাঃ জাফরুল্লাহর বক্তব্যটি চরম মিথ্যাচারের শামিল। ইতি পূর্বে সময় টিভিতে ভুল, দায়িত্বজ্ঞবনহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত বক্তব্যের জন্য ভুল স্বীকার ও দুঃখ প্রকাশ করতে গিয়ে পুনরায় অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে ও চতুরতার সাথে তিনি মিথ্যা তথ্য দিয়ে জেনারেল আজিজ আহমেদ এর ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টা চালিয়েছেন।
আইএসপিআরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ৯ অক্টোবর টকশোতে তিনি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় ব্যবহৃত আর্জেস গ্রেনেড এর উৎস হিসেবে সুকৌশলে সেনাবাহিনীকে সম্পৃক্ত করার একটি চেষ্টা করেছিলেন যা ছিল দুরভিসন্ধিমূলক। উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইতিহাসে কখনো কোন গ্রেনেড হারানো, চুরি বা বিক্রি হওয়ার কোন ঘটনা ঘটেনি। একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা সংক্রান্ত মামলার রায় ঘোষণার আগের দিন টেলিভিশন লাইভ টকশোতে এ ধরনের অসত্য বক্তব্য প্রদান উদ্দেশ্য প্রনোদিত। সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অসত্য বক্তব্যকে সংশোধনের কোন চেষ্টা করেননি। তার সামগ্রিক বক্তব্যে এটা স্পষ্টত যে তিনি সেনাবাহিনীতে কর্মরত সকল পদবীর সদস্যদের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টার পাশাপাশি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে সেনাবাহিনী প্রধানের ভাবমূর্তি এবং স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক দেশ প্রেমিক বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপপ্রয়াস চালিয়েছেন।
জনগণের আস্থা ও বিশ্বস্বতার কেন্দ্র বিন্দু বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। জাতীয় এই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে মিডিয়া বা অন্য কোন মাধ্যমে বক্তব্য প্রদানের পূর্বে তথ্যের সঠিকতা যাচাই করা বাঞ্চনীয়। মিথ্যা/ভুল তথ্য পরিবেশন একটি গর্হিত অপরাধ। কেননা ভুল তথ্য এক দিকে যেমন দেশ মাতৃকার অতন্দ্র প্রহরী বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যদের মনোবলের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে, তেমনি স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী তাদের অসৎ উদ্দেশ্য সাধনের সুযোগ নিতে পারে। সেনাবাহিনী বিষয়ে সত্যতা যাচাই করে তথ্য পরিবেশন করার জন্য আইএসপিআরের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।



 

Show all comments
  • আশরাফ ১৬ অক্টোবর, ২০১৮, ৩:১২ এএম says : 0
    বক্তব্য দেয়ার ক্ষেত্রে সকলের সচেতন হওয়া দরকার।
    Total Reply(0) Reply
  • Amir ১৬ অক্টোবর, ২০১৮, ১০:১৯ এএম says : 0
    Etakono jata bisoy noy. Desh rokkhar mul, jatio sena bahini! Er bisoy montobbo korte sothik tottho jene nite hoy. Mr. Ulla'r boktobbo uddessopurno. Obossoi eta khotie dekhte hobe.
    Total Reply(0) Reply
  • Md Sohel ১৬ অক্টোবর, ২০১৮, ১১:৩৮ এএম says : 0
    যখন সন্তু লারমা পাহাড়ী নেতারা চাকমা রাজা রাণী সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে বলে তখন মামলা হয়না কেন?
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।