Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮, ০৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

নির্দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচনে আগ্রহী

কুটনীতিকদের সাথে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ অক্টোবর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

নির্দলীয় সরকারের অধীনে অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মূল লক্ষ্য। নির্দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিতের বিষয়ে যুক্তফ্রন্টের বক্তব্য কুটনীতিকদের কাছে ব্রিফিং করেছেন ড. কামাল হোসেন। রাজধানীর গুলশানে গতকাল লেকশোর হোটেলে কুটনীতিকদের সাথে বৈঠকের পর জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি আসম আবদুর রব সাংবাদিকদের একথা জানান। অন্য এক সূত্র জানায় কূটনীতিকদের এক প্রশ্নের জবাবে যুক্তফ্রন্টের নেতারা বলেছেন, নির্দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ হলে বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়াও তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে ভাববে।
আ স ম আবদুর রব বলেন, আমরা শুধুমাত্র বাংলাদেশে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত-হাইমিশনার-কুটনৈতিকদের সাথে রুদ্ধদ্বার মতবিনিময় করেছি। আমদের জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন ৭ দফা দাবি ও ১১ দফা লক্ষ্য সম্পর্কে ব্যাখ্যা করেছেন। তাদের প্রশ্নের জবাবও তিনি দিয়েছেন। অত্যন্ত সফলভাবে এই মতবিনিময় সম্পন্ন হয়েছে।
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিলো আপনারা কি আলোচনা করেছেন। জবাবে তিনি বলেন, আমরা কুটনীতিকদের সাথে মতবিনিময় করেছি। এর বেশি কিছু বলা যাবে না।
বৈঠকে, যুক্তফ্রন্টের ৭ দফা দাবি ও ১১ দফা লক্ষ্যসমূহ লিখিতভাবে কুটনীতিকদের সরবারহ করা হয়। একাদশ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি, অংশগ্রহনমূলক নির্বাচনের পূর্ব শর্তাবলী, যুক্তফ্রন্টের নেতৃত্ব, কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির সাথে নির্বাচনে যাওয়া না যাওয়ার বিষয় সম্পর্কিত কুটনীতিকদের কয়েকটি প্রশ্নের জবাব দেন ড. কামাল হোসেন।
সূত্র জানায়, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া মুক্ত না হলে ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে যাবে কি না- কূটনৈতিকদের এই প্রশ্নের জবাবে ড. কামাল হোসেন বলেছেন, নির্দলীয় সরকারের মাধ্যমে নির্বাচনের পরিবেশ থাকলে আমরা নির্বাচনে যাবো।
এ ছাড়া সূত্রমতে জানা যায়, কূটনৈতিকরা জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্ক আছে কী না জানতে চাইলে এই বিষয়ে ড. কামাল হোসেন বলেন, স্বাধীনতা স্বপক্ষের শক্তি নিয়ে আমরা জোট করেছি। বৈঠকে কূটনৈতিকরা প্রশ্ন করেন নির্বাচনে জয়ী হলে ঐক্য ফ্রন্টের কে প্রধানমন্ত্রী হবেন? এ প্রশ্নের জবাবে ড. কামাল হোসেন বলেন, এটা তো যৌথ আন্দোলন। আর যৌথ আন্দোলনে লিডার তো এককভাবে হয় না। নির্বাচনের সংসদ সদস্যরাই সংসদ নেতা ঠিক করবেন।
বিকাল তিনটা থেকে এক ঘন্টা বৈঠক হয়। বৈঠকের শুরুতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কূটনীতিকদের স্বাগত জানিয়ে জাতীয় যুক্তফ্রন্টের নেতৃবৃন্দকে পরিচয় করিয়ে দেন। এরপর ফ্রন্টের নেতা ড. কামাল হোসেন বক্তব্য রাখেন।
বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, চীন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জাপান, জার্মানি, ফ্রান্স, সৌদি আরব, অস্ট্রেলিয়া, তুরস্ক, ভিয়েতনাম, পাকিস্তান, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, কোরিয়া, কাতার, মরক্কোসহ ৩০ টি দেশের কুটনীতিকরা উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে অন্যানের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, ড. আবদুল মঈন খান, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বেগম সেলিমা রহমান, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, আবদুল্লাহ আল নোমান, হাফিজউদ্দিন আহমেদ, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, আবদুল মান্নান, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, এডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, এডভোকেট জয়নাল আবেদীন, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, মীর নাসির উদ্দিন, প্রফেসর ড. শাহীদা রফিক, শ্যামা ওবায়েদ, ব্যারিস্টার রমিন ফারহানা, এডভোকেট ফাহিমা নাসরিন মুন্নী, তাবিথ আউয়াল, মীর হেলাল, জেএসডির আসম আবদুর রব, তানিয়া রব, আবদুল মালেক রতন, গণফোরামের মোস্তফা মহসিন মন্টু, এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্না, সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, এসএস আকবর, শহীদুল্লাহ কায়সার প্রমূখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া গণস্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনও বৈঠকে ছিলেন।



 

Show all comments
  • Neel ১৯ অক্টোবর, ২০১৮, ২:৩৯ এএম says : 0
    ar kono bikolpo nai
    Total Reply(0) Reply
  • Jamal Uddin ১৯ অক্টোবর, ২০১৮, ২:৪০ এএম says : 0
    দেশের মানুষকে আপনাদের সাথে সম্পৃক্ত করুন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ