Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫, ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

বন্ধ হল শবরীমালা মন্দির

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০১৮, ৯:৪৬ পিএম | আপডেট : ৯:৫৩ পিএম, ২২ অক্টোবর, ২০১৮

পাঁচদিনের পূজা শেষে সোমবার বন্ধ করা হল শবরীমালা মন্দির। নারীদের মন্দিরে প্রবেশের বিষয়ে শীর্ষ আদালত চলতি মাসের ১৮ তারিখে রায় দেয়। এরপরেই মন্দিরটি খুলে দেওয়া হয়। গত চারদিনে ১০ থেকে ৫০ বছর বয়সী মোট নয়জন নারী মন্দিরে প্রবেশের চেষ্টা করলে বিক্ষোভকারীরা তাদের বাধা দেয়।
রোববার ৪৭ বছর বয়সী এক নারীকে মন্দিরে ঢুকতে বাধা দেওয়ার পর হেনস্থা করা হলে শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। ওই এলাকায় উপস্থিত সাংবাদিকদের এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ। তার ওপর আক্রমণ করা হতে পারে বলে পুলিশের কাছে তথ্য আছে বলে জানানো হয়েছে।
এদিকে, মন্দিরে প্রবেশ করতে চেয়েও ব্যর্থ হয়েছেন, এমন এক মুসলিম নারী অ্যাক্টিভিস্টকে ইসলাম থেকে বহিষ্কার করার কথা ঘোষণা করেছে সেখানকার প্রভাবশালী এক মুসলিম ধর্মীয় সংগঠন। রাজ্যের প্রভাবশালী ধর্মীয় সংগঠন ‘দ্য কেরালা মুসলিম জামাত কাউন্সিল’ ঘোষণা করেছে- রেহানা ফাতিমা নামে ওই নারীর মুসলিম নাম ব্যবহার করার আর কোনও অধিকার থাকবে না। ‘লক্ষ লক্ষ হিন্দু ভক্তর ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করার জন্যই’ কাউন্সিল রেহানা ফাতিমার বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে।
এর আগে সুপ্রিম কোর্টের আদেশকে হাতিয়ার করে গত সপ্তাহে যে হাতেগোনা কয়েকজন নারী কেরালার শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশ করার চেষ্টা করেছিলেন, রেহানা ছিলেন তাদেরই একজন।
সরকারকে চিঠি লিখে মন্দির কর্তৃপক্ষ স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছে যে, মন্দিরের এতদিনের ঐতিহ্য বাধাপ্রাপ্ত হলে তারা মন্দিরে পূজা করা বন্ধ করে দেবে। এই মুহূর্তে মন্দির চত্বরজুড়ে কয়েক হাজার মানুষ ঘাঁটি মেরে আছে। তাদের পণ, কিছুতেই ঋতুবতী নারীদের মন্দিরে ঢুকতে দেওয়া হবে না।
বিজেপি তাদের দলীয় কর্মীদের এই বিক্ষোভে সক্রিয়ভাবে সামিল করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু দলের তরফ থেকে তা অস্বীকার করা হয়েছে। বিজেপির পক্ষ থেকে এই বিষয়টি নিয়ে সংসদে বিশেষ অধিবেশনেরও দাবি তোলা হয়েছে। কেন্দ্রের হস্তক্ষেপও চাওয়া হয়েছে। এই ইস্যুতে তাদের পাশে রয়েছে কংগ্রেসও। দুই দলেরই দাবি সিপিএম শাসিত কেরালা সরকার মন্দিরের পবিত্রতা নষ্ট করছে।
শবরীমালা নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট রায় দেওয়ার পরেই কেরালার রাজ্য বিজেপি পুরো রাজ্যজুড়ে বিক্ষোভের সিদ্ধান্ত নেয়। এই বিষয়টি নিয়ে কেরালা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক কে সুরেন্দ্রন বলেন, টানা একমাস ধরে শবরীমালা আয়াপ্পা সংরক্ষণ অভিযান চলবে। তিনি আরও জানান, বাড়ি বাড়ি গিয়ে মন্দিরের পবিত্রতা বজায় রাখার গুরুত্ব মানুষকে বোঝাবে দলীয় কর্মীরা। সূত্র: টিওআই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।