Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

সামারিক ঘাঁটি ব্যবহারের চুক্তি করতে পারে জাপান ও ভারত

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ২৫ অক্টোবর, ২০১৮, ১২:০৫ এএম

ভারত ও জাপান একটি সামরিক সরঞ্জাম চুক্তি চূড়ান্ত করার কাজ করছে। এই চুক্তির ফলে দুই দেশ একে অন্যের সামরিক ঘাঁটি ব্যবহারের সুযোগ পাবে। এ অঞ্চলে হুমকি মোকাবেলার জন্য দুই দেশ নিজেদের মধ্যে সামরিক সম্পর্ক বাড়িয়েছে। সরকারি সূত্র উদ্ধৃত করে একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের মধ্যে চলতি মাসের শেষ দিকে অনুষ্ঠিতব্য দ্বিপাক্ষিক সম্মেলনে পরস্পরের সামরিক ঘাঁটি ব্যবহারের ব্যাপারে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হতে পারে। টোকিওতে ১৩তম ভারত-জাপান সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে ২৮-২৯ অক্টোবর। এ সময় দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সামরিক সহযোগিতার সম্পর্ক আরও গভীর করার ব্যাপারে চুক্তি হবে। এর মধ্যে সামরিক সরঞ্জাম ও সক্ষমতা বিনিময়ের বিষয়ও থাকবে। তথাকথিত অ্যাকুইজিশান অ্যান্ড ক্রস-সার্ভিসিং এগ্রিমেন্টের (এসিএসএ) অধীনে ভারতের সামরিক বাহিনী এবং জাপানের সেলফ ডিফেন্স ফোর্স (জেএসডিএফ) একে অন্যের ঘাঁটি ও সরঞ্জাম সহায়তা নিতে পারবে। এই ধরনের চুক্তির ফলে ভারতের নৌবাহিনী জিবুতিতে জাপানের ঘাঁটি ব্যবহারের সুযোগ পাবে। অন্যদিকে ভারত মহাসাগরে অবস্থিত আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের কাছে ভারতীয় সামরিক স্থাপনাগুলো ব্যবহারের সুযোগ পাবে জাপানের ম্যারিটাইম সেলফ ডিফেন্স ফোর্স (জেএমএসডিএফ)। ভারত ও জাপান, উভয়ের সাথে যে দেশের আঞ্চলিক বিবাদ রয়েছে, সেই চীনেরও জিবুতিতে সামরিক ঘাঁটি রয়েছে। এই চুক্তিতে অবশ্য কোনভাবেই সামরিক অভিযান সম্পর্কিত কোন বিষয় নেই। আলোচনায় আসলে কি আছে, সেটা জানা না গেলেও দ্ইু দেশই ২০১৯ ও ২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য সম্ভাব্য যৌথ সামরিক মহড়ার ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার চেষ্টা করবে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ সপ্তাহের শেষে বার্ষিক সম্মেলনে অংশ নিতে জাপান সফরে যাবেন। দুই দেশের সামরিক বাহিনীর মধ্যে সম্ভাব্য অ্যাকুইজিশান অ্যান্ড ক্রস সার্ভিসিং এগ্রিমেন্টের বিষয়টিও তার আলোচনার তালিকায় রয়েছে। এসএএম।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ