Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬, ২৩ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

চট্টগ্রামে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট শীর্ষ নেতৃবৃন্দের হোটেল বিড়ম্বনা!

বিশেষ সংবাদদাতা, চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৭ অক্টোবর, ২০১৮, ১:০২ পিএম | আপডেট : ১:০৭ পিএম, ২৭ অক্টোবর, ২০১৮

বন্দরনগরী চট্টগ্রামের কেন্দ্রস্থল কাজীর দেউড়ী নূর আহম্মদ সড়কের নাসিমন ভবন চত্বরে আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য রাখার জন্য জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ ইতোমধ্যে এসে পৌঁছেছেন। অনেকে আসেন গতকাল শুক্রবার, অনেকে আজ শনিবার সকালে এসে পৌঁছান। শীর্ষ জাতীয় পর্যায়ের এই নেতৃবৃন্দের থাকার জন্য চিটাগাং ক্লাবসহ পাঁচ তারকা হোটেলে বুকিং দেওয়া হয়েছিল আগেই।
কিন্তু শেষ মুহূর্তে ক্লাব ও হোটেল কর্তৃপক্ষ বুকিং বাতিলের কথা জানিয়ে দেন। এতে করে নেতৃবৃন্দকে সাধারণ মানের হোটেলে উঠতে হয়েছে বলে জানান ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। আর এরজন্য নানামুখী বিড়ম্বনা পোহাতে হচ্ছে নেতৃবৃন্দকে।
তারা জানিয়েছেন, চট্টগ্রামের জনসভার উদ্দেশে অন্তত ১৪ জন বিএনপির শীর্ষ নেতা এসে পৌঁছেছেন। এরমধ্যে পাঁচ তারকা হোটেল ও চিটাগাং ক্লাবে বুকিং বাতিলের কারণে তারা সাধারণ হোটেলে উঠেছেন। আজ সকাল সাড়ে ৮ টায় চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছার পর তারকা হোটেলের পরিবর্তে সাধারণ হোটেলে উঠেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন, ড. মঈন খান, মীর্জা আব্বাসসহ বেশ কয়েকজন নেতা।
অবশ্য সকাল পৌনে ১১টায় চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে বিকল্প একটি তারকা হোটেলে উঠেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, এডভোকেট সুব্রত চৌধুরীসহ কয়েকজন নেতা। গতকাল রাতে চট্টগ্রামে পৌঁছে অপর একটি ক্লাবে উঠেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি ঐক্যফ্রন্ট নেতা আ স ম আবদুর রব ও তানিয়া রব।
ঐক্যফ্রন্টের নেতারা জানান, লক্ষ্যণীয় বিষয়টি হলো জনসভাস্থলের কাছাকাছি ক্লাবে কিংবা পাঁচ তারকা হোটেলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ঢাকা থেকে আসা শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে থাকার জন্য আগে বুকিং নিয়েও পরে তা বাতিল করা হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চট্টগ্রামে


আরও
আরও পড়ুন