Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১০ আষাঢ় ১৪২৮, ১২ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

যুক্তরাষ্ট্র সরলে যুদ্ধের আশঙ্কা দেখা দেবে : গর্বাচেভ

আইএনএফ চুক্তি নিয়ে জাতিসংঘে মুখোমুখি যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়া

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ অক্টোবর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

সাবেক সোভিয়েত নেতা মিখাইল গর্বাচেভ আশংকা প্রকাশ করে বলেছেন, রাশিয়ার সঙ্গে করা পরমাণু অস্ত্র চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র সরে গেলে যুদ্ধের আশংকা দেখা দিতে পারে। তিনি মার্কিন প্রভাবশালী পত্রিকা নিউ ইয়র্ক টাইমসে এক নিবন্ধে লিখেছেন, যুক্তরাষ্ট্র শান্তির প্রতি হুমকি সৃষ্টি করছে। তিনি আশা করেন, সমঝোতার মাধ্যমে চুক্তিটি বহাল রাখা হবে। এদিকে চুক্তি থেকে সরে না আসতে সামরিক জোট ন্যাটো যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহবান জানিয়েছে। কূটনৈতিক সূত্র জানিয়েছে, ন্যাটোর ইউরোপীয় কর্মকর্তারা ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে চুক্তি থেকে সরে না আসার পদক্ষেপ নিতে বলেছেন। বরং রাশিয়াকে কিভাবে চুক্তিটি মানতে বাধ্য করা যায় সেই চেষ্টা করতে বলেছেন। অপরদিকে, ইন্টারমিডিয়েট-রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্স (আইএনএফ) চুক্তি নিয়ে জাতিসংঘে একে অপরের মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া। তিন দশক আগে সোভিয়েত ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে স্বাক্ষরিত ওই চুক্তিতে উভয়পক্ষের ওপর ইউরোপে ভূমি থেকে নিক্ষেপযোগ্য স্বল্প ও মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র রাখায় নিষেধাজ্ঞা আছে। ট্রাম্প সম্প্রতি চুক্তিটি থেকে ওয়াশিংটনকে তুলে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। মস্কো বলেছে, চুক্তিটি বাতিল হলে বিশ্ব অস্ত্র দৌড়ের ঝুঁকিতে পড়বে। আইএনফ চুক্তি বহাল রাখতে জাতিসংঘকে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে নামাতে চেষ্টা করেও রাশিয়া ব্যর্থ হয়েছে। জাতিসংঘের অস্ত্রনিরোধ কমিটি যেন ওয়াশিংটন ও মস্কোকে চুক্তি বহাল রাখার আহ্বান জানায়, সেজন্য একটি খসড়া প্রস্তাব বিবেচনার জন্য সাধারণ পরিষদে তুলেছিল রাশিয়া। অস্ত্রনিরোধ কমিটিতে প্রস্তাব পাঠানোর শেষ সময় ছিল ১৮ অক্টোবর। তারও দুইদিন পর ট্রাম্প আইএনএফ থেকে তার দেশ সরে আসবে বলে জানায়। যে কারণে, দেরিতে হলেও কমিটি যেন রাশিয়ার প্রস্তাব বিবেচনা করে, তার অনুমোদন চাইতে সাধারণ পরিষদে গিয়েছিল মস্কো। তাদের অনুরোধ ৫৫-৩১ ভোটে প্রত্যাখ্যাত হয়। ৫৪টি দেশ ভোটদানে বিরত ছিল বলেও জানিয়েছে রয়টার্স। ১৯৮৭ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের নেতা মিখাইল গর্বাচেভ ও যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগানের মধ্যে ওই আইএনএফ চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। চুক্তিতে ভূমি থেকে নিক্ষেপযোগ্য ৫০০ থেকে সাড়ে ৫ হাজার কিলোমিটার পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। তবে সমুদ্রে একই মাত্রার ক্ষেপণাস্ত্র রাখার ব্যাপারে আপত্তি ছিল না। রাশিয়া দীর্ঘদিন ধরেই চুক্তিটি ‘লংঘন’ করে আসছে বলে দাবি ওয়াশিংটনের। মস্কো এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলছে, যুক্তরাষ্ট্রই চুক্তিটিকে অকার্যকর দেখতে চায়। রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ