Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার ২১ জুলাই ২০১৯, ০৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছা প্রত্যাবাসনের পক্ষে যুক্তরাষ্ট্র

ওয়াশিংটন ডিসিতে প্রেস ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি মুখপাত্র

কূটনৈতিক সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২ নভেম্বর, ২০১৮, ৫:০৩ পিএম

মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের সেদেশে স্বেচ্ছা প্রত্যাবাসনের ওপর গুরুত্বারোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। আগামী নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে বাংলাদেশ থেকে এ প্রত্যাবাসন শুরু হবে।

গত বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটন ডিসিতে সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি মুখপাত্র রবার্ট পলাডিনহো বলেন, দায়ীদের জবাবদিহীতা নিশ্চিত করতে আমাদের প্রচেষ্টার পাশাপাশি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিবীড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি যাতে স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসন হয়।
তিনি বলেন, তাদের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অবস্থার উন্নতি করতে সচেষ্ট থাকতে হবে এবং এর জন্য দায়ী সকলকে জবাবদিহীর আওতায় নিতে বিভিন্ন পদক্ষেপের ওপর দৃষ্টি রাখতে হবে। রবার্ট পলাডিনহো বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য মানুষের দুর্দশার কারণ, দ্বন্দ্ব, সহিংসতা, এবং অপব্যবহারের মূল কারণগুলো খুঁজে বের করে মোকাবেলা করা।
বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র এক কর্মকর্তা জানান, মধ্য নভেম্বরে প্রথম ধাপে ৪৮৫টি পরিবারের দুই হাজার ২৬০ জন রোহিঙ্গা মাতৃভূমিতে প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সম্মত হয়েছে। মিয়ানমার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পার্মানেন্ট সেক্রেটারি মিয়ান্ট থু জানান, তারা প্রায় পাঁচ হাজার রোহিঙ্গাকে যাচাই-বাছাই করেছেন।
বাংলাদেশে দুই দেশের পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ের বৈঠক শেষে গত বুধবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হকসহ দুই দেশের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।
তবে রোহিঙ্গারা বলছে, নাগরিকত্ব, গৃহসুবিধার পাশাপাশি তাদের মূল অধিকারগুলো পূরণ না হলে তারা মাতৃভূমি মিয়ানমারের রাখাইনে ফিরতে চান না। এর আগে গত মঙ্গলবার ঢাকায় পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ের বৈঠক শেষে আগামী মধ্য নভেম্বরে প্রথম ধাপের মাধ্যমে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হওয়ার কথা জানা যায়।
প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমারের সরকারি বাহিনী দ্বারা অত্যাচার নির্যাতন ও সহিংসতার শিকার হয়ে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলা কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ