Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ১৫ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌
শিরোনাম

জুভেন্টাস এফসি

প্রকাশের সময় : ৩০ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১২:১০ এএম, ৩০ এপ্রিল, ২০১৬

ইমামুল হাবীব বাপ্পি
ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের জায়ান্টদের সংক্ষিপ্ত তালিকা করলে প্রথম সারিতেই থাকবে ফুটবল ক্লাব জুভেন্টাসের নাম। জিনেদিন জিদান, রবার্তো বেজিও,ফ্যাবিও ক্যানভারো, মিশেল প্লাতিনি, থিয়েরি হেনরির মত ফুটবল তাকার ক্লাব হল জুভেন্টাস। এছাড়া ফুটবলের সব অর্জনগুলোই তাদের হয়ে কথা বলে।
গেল মৌসুমে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালিস্ট তারা। চলতি মৌসুমে যদিও ফুটবলের আরেক পরাশক্তি বায়ার্ন মিউনিখের কাছে হেরে নক-আউট পর্ব থেকে বিদায় নিতে হয়েছে তাদের। তবে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্বের জানান দিয়ে ইউরোপের অন্যতম শীর্ষ লিগ ইতিালিয়ান সেরি আ’তে আবারো চ্যাম্পিয়ন হয়েছে দলটি, তাও আবার তিন ম্যাচ হাতে রেখেই। ২০১১-১২ থেকে চলতি ২০১৫-১৬ মৌসুম টানা পাঁচ বার ইতালির সেরা দল নির্বাচিত হল জুভেন্টাস। ইতিহাসের প্রথম দল হিসেবে ঘরোয়া লিগে এ নিয়ে দ্বিতীয় বারের মত টানা পাঁচ বার শিরোপা জয়ের রেকর্ড গড়েছে তুরিনের দলটি। সব মিলে এটি তাদের ৩২তম লিগ শিরোপা।
অথচ ঘরোয়া লিগে মৌসুমের শুরুটা কি বাজে ভাবেই না হয়েছিল জুভেন্টাসের। প্রথম তিন ম্যাচে কোন জয় নেই, হার দু’টিতেই। ১০ ম্যাচ শেষে সেই হিসাবটা তো আরো নাজুক। আগের মৌসুমে পুরো ৩৮ ম্যাচে যে দলের নামের পাশে হার মাত্র তিনটি, সেই দলকে ৪ বার পরাজয়ের স্বাদ নিতে হয়েছে মৌসুমের প্রথম ১০ ম্যাচেই। জয় মাত্র তিনটি! জুভদের হঠাৎ ঐ ছন্দ পতনের উল্লেখযোগ্য কারনও ছিল। ক্লাবের হয়ে দুর্দান্ত দুই মৌসুম কাটানোর পর হঠাৎই নিজ দেশের ক্লাব বোকা জুনিয়ার্সে ফিরে যান আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার কার্লোস তেভেজ।
তেভেজের মত এমন একজন তারকা ফরোয়ার্ডের শূন্যতা পূরন করা সহজ নয়।
একই মৌসুম শেষে ক্লাবের জার্সি খুলে রাখেন দলের প্রানভোমরা আন্দ্রেয়া পিরলো। দলের শুন্যতার তালিকা আরো দীর্ঘ হয় আরেক তারকা আরতুরো ভিদালের বিদায়ে। ইতালি ছেড়ে এখন জার্মানির দল বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে মাঠ কাঁপাচ্ছেন এই চিলিয়ান মিডফিল্ডার।
 কিন্তু জুভেন্টাসের মত দলের এই বিশাল শুন্যতা পুরনের দায়ীত্ব নেবেন কে? আরো ভালো করে বললে কে কে? ঠিক এমন পরিস্থিতিতে পিরলোর ২১ নম্বর জার্সিটা পারানো হয় ২২ বছর বয়সি এক তরুন খেলোয়াড়ের গায়ে। পালের্মো থেকে চলতি মৌসুমেই ৩২ মিলিয়ন ইউরোতে দলে ভেড়ানো হয় এই তরুনকে। এসময় দলের সেরা একাদশে থেকে প্রত্যাশার চাপ সামাল দেওয়াটাও চাট্টিখানি কথা নয়। অথচ সেই প্রত্যাশার চাপকে কি নিপুনভাবেই না সামাল দিলেন এই তরুন স্ট্রাইকার। দলও ফিরে পেতে থাকল হারানো ছন্দ। সেই তরুন হলেন এক আর্জেন্টাইন, নাম পাওলো দিবালা।
এখন পর্যন্ত লিগে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ (১৬) গোল করে রেখেছেন দলের শিরোপা জয়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা। যেকারনে ১০ ম্যাচ পরের গল্পটা সম্পূর্ণ উল্টো। ২৫ ম্যাচের ২৪টিতেই জয়, বাকিটা ড্র! ১০ ম্যাচ শেষে পয়েন্ট তালিকায় ১২ নম্বরে থাকা দলটিই তিন ম্যাচ হতে রেখেই শিরোপ নিশ্চিত করল। এর আগে ১৯৩০-৩১ থেকে ১৯৩৪-৩৫ পর্যন্ত টানা ৫ বার শিরোপা জিতেছিল জুভেন্টাস।
এত অর্জনের পরেও অনেক দিনের একটা হতাশা পুষে বেড়াচ্ছে জুভেন্টাস। ইউরোপের সেরা ক্লাব হওয়ার খেতাব তারা সর্বশেষ পেয়েছিল সেই ১৯৯৬ সালে।
মাঝে কেটে গেছে ২০ বছর। গেলবার ফাইনালে এসে ইউরোপের আরেক প্রতাপশালী দল বার্সেলোনার কাছে হেরে হতাশাটা আরো দীর্ঘ হয় জিয়ানলুইজি বুফনের দলের। এই দুঃখটা বুফনেরও কম না। জাতীয় দলের হয়ে বিশ্বকাপ শিরোপা জিতেছেন। বিশ্বসেরা গোলরক্ষকের খেতাবও জিতেছেন তিনি। কিন্তু ইউরোপ সেরা খেতাব উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জেতা হয়নি তার।
জাতীয় অর্জন
প্রতিযোগিতা    শিরোপা
সেরি আ    ৩২
কোপা ইটালিয়া    ১০
সুপার কোপা ইটালিয়ানা    ৭

ইউরোপিয়ান অর্জন
প্রতিযোগিতা    শিরোপা
উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ    ২
ইউরোপিয়ান কাপ উইনার্স কাপ    ১
উয়েফা কাপ    ৩
উয়েফা সুপার কাপ    ২

আন্তর্জাতিক অর্জন
প্রতিযোগিতা    শিরোপা
ইন্টা. ক্লাব বিশ্বকাপ    ২
ক্লাব পরিচিতি
পুরো নাম : জুভেন্টাস ফুটবল ক্লাব
ডাক নাম : লা ভিচিয়া সিগনোরা (দ্যা ওল্ড লেডি)
লে জেব্রে (দ্যা জেব্রাস)
প্রতিষ্ঠা : ১ নভেম্বও ১৮৯৭
মাঠ : জুভেন্টাস স্টেডিয়াম
ধারনক্ষমতা : ৪১ হাজার ৪’শ ৭৫
সত্বাধিকারী : অ্যাগনেলি পরিবার
চেয়ারম্যান : আন্দ্রে অ্যাগনেলি
কোচ : মাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি
লিগ : সেরি আ



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।