Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২১ মে ২০১৯, ০৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৫ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

ত্রিপুরায় মে দিবসের ছুটি বাতিল সমালোচনায় মুখর বিরোধীরা

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ৬ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ত্রিপুরায় মে দিবস-সহ মোট ১২টি উৎসবকে সংরক্ষিত ছুটির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সরকারি কর্মচারিরা এ বছর এই ১২টির মধ্যে যেকোনও ৪টি ছুটি নিতে পারবেন। ১৯৭৮ সালে নৃপেন চক্রবর্ত্তীর নেতৃত্বে ত্রিপুরার প্রথম বামফ্রন্ট সরকারের আমল থেকেই মে দিবসকে ছুটির আওতায় আনা হয়েছিল। লেনিন মূর্তি ভাঙা পড়েছে আগেই। কার্ল মার্কসের নামের রাস্তার নামও বদলেছে বেশ কয়েক মাস হল। এবার বিজেপি শাসিত ত্রিপুরায় কোপ পড়ল মে দিবসের (আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস) সরকারি ছুটির উপর। বিপ্লব দেবের সরকারের এমন সিদ্ধান্তে প্রত্যাশিতভাবেই সমালোচনায় মুখর হয়েছে সে রাজ্যের বিরোধী দলগুলি। ত্রিপুরা সরকারের আন্ডার সেক্রেটারি পদমর্যাদার আধিকারিক এস.কে. দেববর্মার জারি করা এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, মে দিবস-সহ মোট ১২টি ‘উৎসবকে’ সংরক্ষিত ছুটির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সরকারি কর্মচারিরা এ বছর এই ১২টির মধ্যে যেকোনও ৪টি ছুটি নিতে পারবেন। ত্রিপুরার প্রাক্তন শ্রমমন্ত্রী দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের কাছে এ বিষয়ে ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, “এই সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ রূপে শ্রমিক শ্রেণি বিরোধী। এর থেকেই বোঝা যায়, বিজেপি শ্রমিকদের ঠিক কোন চোখে দেখে। শ্রমিকদের মুক্তির উদযাপন হিসাবে বিশ্ব জুড়ে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস পালন করা হয়। আমি কখনও শুনিন যে দেশের কোনও রাজ্য এভাবে মে দিবসের ছুটি বাতিল করা হয়েছে”। রাজ্যের বিজেপি সরকারকে মে দিবসের ছুটি বাধ্যতামুলকভাবে ফিরিয়ে আনতে হবে বলে দাবি করেছেন ত্রিপুরা সিপিআই (এম)-এর সম্পাদক হরিপদ দাস। তাঁর তরফে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে বলা হয়েছে, এই (ছুটিতে কোপ) পদক্ষেপ শ্রমিক শ্রেণির স্বার্থে আঘাত করবে। কারণ, শ্রমিকদের তীব্র ও কঠিন সংগ্রামের মাধ্যমে অর্জন করা অধিকারের উদযাপন হয় মে দিবসে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মে দিবস


আরও
আরও পড়ুন