Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৩ পৌষ ১৪২৫, ৯ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

প্রাণ ফিরেছে নয়াপল্টনে

বিএনপির মনোনয়ন ফরম নিতে দিনভর লাখো মানুষের ভিড়

ফারুক হোসাইন | প্রকাশের সময় : ১৩ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০১ এএম

গেইটের সামনে পোশাকধারী পুলিশের দীর্ঘ সারি। সাদা পোশাকের পুলিশের তীক্ষ্ন নজর। দুরু দুরু বুকে হঠাৎ দু’একজন নেতাকর্মী প্রবেশ করছেন নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে। বেরও হচ্ছেন সতর্ক অবস্থায়। আচমকা গাড়িতে ওঠেই ছাড়ছেন নয়াপল্টন এলাকা। সতর্কাবস্থায় প্রবেশ বা বের হওয়ার পথেই কখনো কখনো আটক হয়েছেন পদধারী কেন্দ্রীয় নেতা থেকে শুরু করে জেলা, উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন-ওয়ার্ডের নেতারাও। এতদিন নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গেলে চোখে পড়তো এমনই চিত্র। একই চিত্র ছিল গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়েও। তবে গত রোববার বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ ও মনোনয়ন ফরম বিতরণের ঘোষণা দেয়ার পরপরই বদলে গেছে সেই চিরায়ত চিত্র। ওইদিন রাতেই গুলশান বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে ভিড় করেন দলটির কয়েক হাজার নেতাকর্মীরা। কার্যালয়ের ভেতরে-বাইরে সব জায়গা ছিল লোকে লোকারণ্য। আর গতকাল (সোমবার) দিনভর লাখো মানুষের উপস্থিতিতে নয়াপল্টন এলাকা ছিল বিএনপি নেতাকর্মীদের দখলে।
২০০৬ সাল থেকেই ক্ষমতার বাইরে বিএনপি। ১/১১’র সেনা সমর্থিত সরকার এবং পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ সরকারের দুই মেয়াদেই মামলা, হামলা, গ্রেফতারের কারণে অনেকটা পলাতক জীবন-যাপন করছেন দলটির নেতাকর্মীরা। বড় ধরণের জনসভা ও ঝটিকা মিছিল ছাড়া তেমন কোন সাংগঠনিক কার্যক্রম চালাতে পারেননি তারা। স্বত:স্ফূর্তভাবে একত্রিত হওয়ার সুযোগও ছিল না তাদের। তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঘোষণা দেয়ার পর পরই বদলে গেছে সেই চিত্র। দলে দলে নেতাকর্মীরা আসছেন নয়াপল্টনে, নির্ভয়ে, নির্দ্বিধায় স্লোগানে, স্লোগানে মুখরিত করে তুলছেন গোটা এলাকা। দীর্ঘদিন পর যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে নয়াপল্টন বিএনপির কার্যালয়।
গতকাল সকাল ১০টা থেকে মনোনয়ন ফরম বিতরণের ঘোষণা দেয়া হলেও এর দুই ঘণ্টা আগে থেকেই কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ভিড় জমাতে শুরু করেন নেতাকর্মীরা। ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীরা তাদের অনুসারি ও দলের স্থানীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে উপস্থিত হন নয়াপল্টনে। সকাল ১০টার মধ্যেই কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের ভেতরে ও সামনের জায়গা হয়ে যায় লোকে লোকারণ্য। তবে দলীয় সিদ্ধান্ত ছিল সবার আগে মনোনয়ন ফরম তোলা হবে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার। বেলা পৌনে ১১টায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে ফেনী-১ আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। এরপর বগুড়া-৬ আসনে বেগম জিয়ার জন্য মনোনয়ন তুলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। মাঝে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মনোনয়ন ফরম নেয়ার পর আবারও বগুড়া-৭ আসনের জন্য খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে ফরম নেন স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য মির্জা আব্বাস। বেগম খালেদা জিয়ার মনোনয়ন ফরম তোলার পর সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়।
এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপি নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে বিশাল জনসভায় রূপ নেয় নয়াপল্টন এলাকা। যে কার্যালয় এতোদিন মানুষের অভাবে খাঁ, খাঁ করতো। সেখানেই মানুষ ঠেলে উঠতে সময় লেগেছে এক ঘণ্টারও বেশি। একই অবস্থা কার্যালয় থেকে বের হতেও। শুধু কার্যালয় নয়, বাইরের অবস্থাও ছিল একই রকম। নয়াপল্টন কার্যালয়কে কেন্দ্র করে একদিকে নাইটিঙ্গেল মোড় অন্য দিকে ফকিরাপুল পর্যন্ত সড়কের একদিকে ছিল লাখো নেতাকর্মীর উপস্থিতি। রাস্তার অপরপাশে রিক্সা নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা আব্বাস আলী বলেন, এই এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে রিক্সা চালায়, কিন্তু এমন দৃশ্য চোখে পড়েনি। সমাবেশের সময়ও মানুষের এমন নির্ভীক উপস্থিতি চোখে পড়েনি। আজ অনেকদিন পর এমন দৃশ্য দেখে খুব ভাল লাগছে।
কতোয়ালী থানা বিএনপির নেতা কামাল হোসেন বলেন, এতোদিন বিএনপি কার্যালয়ে আসতে গেলে মনের মধ্যে দুরু, দুরু অবস্থা হতো। ৬-৭জন একসাথে আসতে দেখলেই পুলিশ নানারকম হয়রানি করতো। কখনো কখনো ছো মেরে দু’একজনকে ধরে নিয়ে যেতো। কিন্তু অনেক দিন পর নির্ভয়ে কার্যালয়ে আসার মতো পরিবেশ পেয়েছি।
ভোলা থেকে আসা বিএনপির নেতা হাফিজুর রহমান বলেন, মামলা, হামলা, পুলিশের হয়রানির কারণে আমরা প্রকাশ্যে কোথাও যেতে পারিনা। আজ অনেক দিন পর মনে হলো বন্দি খাচা থেকে বের হয়ে উড়ার সুযোগ পেয়েছি। তাই দলীয় প্রার্থীর সাথে কয়েকশ’ নেতাকর্মী সেখানে আসেন বলেও জানান তিনি।
বিএনপি ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার বলেন, বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীর এমন স্বত:স্ফূর্ত উপস্থিতি দেখে খুব ভাল লাগছে। কিন্তু মনের মধ্যে একটা কষ্ট থেকেই যাচ্ছে বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে রয়েছেন। তাকে ছাড়া আমরা নির্বাচনের উৎসব করছি। এই উৎসবের মধ্যেই কষ্ট রয়েছে নেতাকর্মীদের মধ্যে।
সকাল ৮টা থেকে নয়াপল্টনে নেতাকর্মীদের যে ভিড় শুরু হয়েছিল, সেটি লক্ষ্য করা যায় রাত ৯টা পর্যন্ত। মনোনয়ন কিনতে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে দলে দলে নেতাকর্মীরা আসেন এবং চলে যান কিন্তু কার্যালয়ের সামনে ভিড় ও মানুষের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায় অপরিবর্তিত। #



 

Show all comments
  • সোহেল হোসেন ১৩ নভেম্বর, ২০১৮, ১:৪৪ এএম says : 0
    Good
    Total Reply(0) Reply
  • Billal Hosen ১৩ নভেম্বর, ২০১৮, ১:৩৮ এএম says : 0
    মারহাবা
    Total Reply(0) Reply
  • Alamgir ১৩ নভেম্বর, ২০১৮, ১:৩৯ এএম says : 0
    BNP is now right way.pls do not mistake.
    Total Reply(0) Reply
  • Amil Ahmed ১৩ নভেম্বর, ২০১৮, ১:৪০ এএম says : 0
    কোন আদর্শকেই গলা টিপে হত্যা করা যায় না আর রাজনীতি তা অসম্ভব আওয়ামিলীগ যত তাড়াতাড়ি এটা অনুধাবন করতে পারবে ততই তাদের প্রজাতির জন্য মঙ্গল বয়ে আনবে.
    Total Reply(0) Reply
  • Saiful Islam ১৩ নভেম্বর, ২০১৮, ১:৪১ এএম says : 1
    বিএনপি নির্বাচন মুখি হওয়া সাধারণ জনগণ আনন্দিত কিন্তু সরকার মিডিয়া বিচারপতিরা যৌথ ভাবে বিরোধী দলের প্রতি বলপ্রয়োগ বাড়িয়ে দিয়েছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Germans Bayern ১৩ নভেম্বর, ২০১৮, ১:৪২ এএম says : 1
    ভয় তো শুধু একটাই ভোট যদি চুরি হয়।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর