Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৫ পৌষ ১৪২৫, ১১ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

জমজমাট আয়কর মেলা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০৪ এএম

রাজধানীসহ সারাদেশে জমে উঠেছে আয়কর মেলা। গতকাল বুধবার ছিল সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলার দ্বিতীয় দিন। দ্বিতীয় দিনে করদাতা ও সেবা গ্রহীতাদের উপচে-পড়া ভীড় এবং পদচারণায় মেলা প্রাঙ্গণ ছিলো উৎসবমুখর। এ দিন আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ৫৫১ কোটি ১৫ লাখ ২০ হাজার ৩৯৮ টাকা। মেলার দ্বিতীয় দিন সারাদেশে করদাতারা ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে কর প্রদান ও সেবা গ্রহণ করেছেন। বিশেষ করে ই-ফাইলিং এবং ই-পেমেন্ট বুথে করদাতাদের ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা যায়।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, গতকাল মেলায় মোট আয়কর আদায় হয়েছে ৫৫১ কোটি ১৫ লাখ ২০ হাজার ৩৯৮টাকা। গত বছরের একই দিনে কর আদায়ের পরিমান ছিল ৫৪৩ কোটি ৩০ লাখ ৮৭ হাজার ৮৫৭ টাকা। গতবারের চেয়ে এবার এ কর আদায়ের পরিমান বেড়েছে সাত কোটি ৮৪ লাখ ৩২ হাজার ৫৪১। প্রবৃদ্ধির হার ১ দশমিক ৪৪ শতাংশ। গতকাল মেলায় মোট সেবা নিয়েছেন দুই লাখ ৩৬ হাজার ৪৫৫ জন। গতবছরের একই দিনে এ সংখ্যা ছিল এক লাখ ৫৩ হাজার ২৬৭ জন। গত বারের চেয়ে এবার এ সংখ্যা বেড়েছে ৮৩ হাজার ১৮৮ জন। প্রবৃদ্ধির হার ৫৪ দশমিক ২৮ শতাংশ। গতকাল রিটার্ন দাখিল করেছেন ৬৫ হাজার ৫০ জন আয়কর দাতা। যা গত বছর একই দিনে ছিল ৩৯ হাজার ৩৫১ জন। একবছর ব্যবধানে এর প্রবৃদ্ধির হার ৬৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। গতকাল নতুন ইটিআইন গ্রহনকারীর সংখ্যা ছিল পাঁচ হাজার ৯২২ জন। গতবছর এ সংখ্যা ছিল মাত্র এক হাজার ২৮২ জন। অর্থাৎ নতুন ইটিআইন গ্রহন কারী সংখ্যা অনেক বেড়েছে। একবছরের ব্যবধানে বেড়েছে ৩৬১ দশমিক ৬৩ শতাংশ।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, আয়কর মেলায় করদাতাদের উপস্থিতি দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষের আগ্রহের পরিমাণ ক্রমাগতভাবে বাড়ছে। উৎসবের আমেজে মানুষ দলে দলে আয়কর মেলায় রিটার্ন জমা দিচ্ছে। কোনো রকম হয়রানি ছাড়াই নির্ভয়ে ও স্বাচ্ছন্দ্যে রিটার্ন জমা দিয়ে রশিদ নিচ্ছেন। কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আয়কর দিতে গিয়ে কেউ যেন কোনো প্রকার ভীতির সম্মুখীন না হন, সে বিষয়ে সর্বদা সচেতন থাকতে হবে। তবেই আশানুরূপ করদাতার সংখ্যা বাড়বে।

তিনি আরো বলেন, সরকার বাজেটে রাজস্বের বড় লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। তার জন্য ভ্যাট ও ট্যাক্সের পরিমাণ বৃদ্ধি করতে হবে। আমরা তার জন্য সাধারণ মানুষকে মোটিভেশন করছি। পাশাপাশি যারা করের আওতার বাহিরে আছেন, তাদেরকে করনেটে আনার সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। জনবল বৃদ্ধি ও মাঠ পর্যায়ে নতুন নতুন কর অফিস চালু করার কর্মপন্থা নেওয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই দুটো কাজ সুন্দরভাবে করতে পারলে বর্তমানে আমাদের যে পরিমাণ রাজস্ব আহরণ হচ্ছে তার দ্বিগুণ রাজস্ব আহরিত হবে। আমরা আশা করছি, আগামী ২-৩ বছরে রাজস্ব আহরণে আমূল পরিবর্তন আসবে।

গতকাল মেলায় বাড়তি আকর্ষণ ছিল শিক্ষার্থীদের নিয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠান কর শিক্ষণ ফোরাম। ভবিষ্যত আয়কর দাতা সৃষ্টি ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে কর সচেতনতা তৈরির জন্য এটি এনবিআরের উদ্বোধনী পদক্ষেপ। কর শিক্ষণ ফোরামের আওতায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা মেলা পরিদর্শন ও কর বিষয়ে ধারণা লাভ করবেন। কর বিষয়ে ধারণা লাভের পর কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এরই অংশ হিসেবে গতকাল ঐতিহ্যবাহী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি, ফিন্যান্স এবং ব্যাংকিং ও ইন্স্যুরেন্স বিভাগের ৪০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর