Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৫ পৌষ ১৪২৫, ১১ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

চিকিৎসা নিয়ে খালেদা জিয়ার রিটের আদেশ রোববার

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০৬ এএম

বিএনপির চেয়ারর্পাসন খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) হাসপাতাল থেকে কারাগারে পাঠানোর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে এবং হাসপাতালে চিকিৎসা অব্যাহত রাখার বিষয়ে রিটের আদেশ আগামী রোববার। ওই আবেদনের ওপর গত মঙ্গলবার উভয় পক্ষের শুনানি শেষে বিষয়টি আদেশের জন্য রেখেছিল আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা কিছু সম্পূরক নথি দাখিল করায় বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের বেঞ্চ আদেশের নতুন তারিখ ঠিক করে দেন।
আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী, মাহবুব উদ্দিন খোকন ও কায়সার কামাল। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা। আইনজীবী কায়সার কামাল পরে বলেন, রিট সংক্রান্ত কিছু সম্পূরক কাগজপত্র আজ আমরা আদালতকে দিয়েছি, এগুলো দেখে হয়ত আদালত আদেশ দেবে। ফলে রোববার আদেশের জন্য রাখা হয়েছে।
দুর্নীতির দুই মামলায় দন্তডি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাবন্দি করে রাখা হয় পুরনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে। সেখানে তিনিই একমাত্র বন্দি। তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার আর্জি জানিয়ে একটি রিট আবেদন করা হলে হাইকোর্ট গত ৪ অক্টোবর কিছু নির্দেশনা ও পর্যবেক্ষণসহ তা নিষ্পত্তি করে দেন। ওই আদেশের পর গত ৬ অক্টোবর খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে এক মাস চিকিৎসার পর গত ৮ নভেম্বর খালেদা জিয়াকে কারাগারে ফিরিয়ে নিয়ে নাইকো দুর্নীতি মামলার শুনানিতে হাজির করা হয়। বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের পক্ষ থেকে বলা হয়, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা এখন যথেষ্ট স্থিতিশীল। তারপরও প্রয়োজন হলে চিকিৎসকরা কারাগারে গিয়ে তাকে দেখে আসবেন। এরপর সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার নওশাদ জমির গত রোববার হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। এতে বলা হয়, বিএসএমএমইউতে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা শেষ না করে খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে; যা মৌলিক অধিকারের পরিপন্থি। খালেদা জিয়াকে কেন পর্যাপ্ত চিকিৎসা সেবা দেয়া হবে না- তা জানতে রুল চাওয়া হয়েছে রিটে। স্বরাষ্ট্রসচিব, কারা কর্তৃপক্ষ, বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষসহ নয় জনকে বিবাদী করা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ