Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৩ পৌষ ১৪২৫, ৯ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

সর্বাত্মক ভোটযুদ্ধে নামুন : ফখরুল

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০৪ এএম

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগের ‘অপশাসনের’ জবাব ভোটের মাধ্যমে দিতে হবে। নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে এই দানবকে পরাজিত করতে হবে। সব নিপীড়ন-হয়রানি উপেক্ষা করে সবাইকে সর্বাত্মক ভোটযুদ্ধে নামার জন্য তিনি আহবান জানিয়েছেন। গতকাল হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে আইনজীবী ঐক্যফ্রন্টের এক সমাবেশে দেয়া বক্তব্য বিএনপি মহাসচিব এই আহবান জানান। বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে কামাল হোসেনের উদ্যোগে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর আইনজীবীরাও এই আইনজীবী ঐক্যফ্রন্ট গড়ে তোলেন।
ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল বলেন, যখন আমারা কোথায় দাঁড়াতে পারি না, যখন আমাদের কথা বলতে দেওয়া হয় না, যখন আমাদের নির্বাচনের জন্য ক্যাম্পেইন করতে দেয় না, আমাদের নেতা-কর্মীদের মিথ্যা ও গায়েবী মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হচ্ছে অথবা তারা পালিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে, তখন এই নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে আমরা এই দানবকে পরাজিত করব।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমাদের হাতে সময় খুব কম। যদি জাতিকে বাঁচাতে হয়, বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে যদি বাঁচাতে হয়, আমাদের মানুষকে যদি বাঁচাতে হয়, আমাদের স্বাধীনতাকে রক্ষা করতে হয়, তাহলে এই উপযুক্ত সময়। আসুন সবাই মিলে আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে ভোটযুদ্ধে নেমে পড়ি। এই যুদ্ধের মধ্য দিয়ে আমরা তাদেরকে পরাজিত করি।
আইনজীবী মইনুল হোসেন, নিপুন রায় চৌধুরীর প্রসঙ্গ তুলে মির্জা ফখরুল বলেন, এমন রাষ্ট্রে বাস করছি যে আইনজীবীরা পর্যন্ত মিথ্যা মামলায় নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। ড. কামাল হোসেন এটা কোর্টে তুলেছেন, এখনও আমরা সুরাহা পাইনি। যেই দিন তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে, তার পর থেকে এখন পর্যন্ত সাড়ে ৪শ গায়েবী মামলা হয়েছে।
তিনি বলেন, কীভাবে নির্বাচন করবেন? এভাবেই করতে হবে। এভাবেই মানুষকে নিয়ে এগিয়ে গিয়ে এদের এই নির্যাতন, এদের এই নিপীড়ন, এদের এই নীলনকশা-চক্রান্তকে বানচাল করে দিয়ে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ভোট বিপ্লব ঘটিয়ে আমরা জয়লাভ করব।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব বলেছেন যে সকল সাম্প্রদায়িক শক্তি এখন ধানের শীষ। আমি তাকে বলতে চাই ড. কামাল হোসেন কী সাম্প্রদায়িক শক্তি? আ স ম আবদুর রব কী সাম্প্রদায়িক শক্তি? বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, মাহমুদুর রহমান মান্না, আমাদের মওদুদ আহমেদ, জমির উদ্দিন সাহেব তারা কী সাম্প্রদায়িক শক্তি? অলি আহমদ কী সাম্প্রদায়িক শক্তি? যারা মুক্তিযোদ্ধা তারা সাম্প্রদায়িক শক্তি? ওবায়দুল কাদের সাহেবের এই কথার আমি প্রতিবাদ করছি। একটা কথা আমি পরিষ্কার বলতে চাই, সাম্প্রদায়িক শক্তিকে আপনরাই প্রশ্রয় দিয়েছেন এবং দিচ্ছেন। কারা একসাথে বসে যুদ্ধাপরাধীদের সাথে আন্দোলন করেছেন, সবাই আছে। এখন তাদের সঙ্গে বসে কওমী জননী হয়ে গেছেন, এটা সবাই জানে।
নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই কমিশন স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলো সুষ্ঠুভাবে করতে পারেনি, জাতীয় নির্বাচন কীভাবে সুষ্ঠু অবাধ করবে। নির্বাচনের দিন কেন্দ্রে যে ফলাফল হয়, আগে সেই কেন্দ্রেই ফলাফল ঘোষণা করা হত। আমরা শুনতে পাচ্ছি, জানি না এটা সঠিক নাও হতে পারে, সেটা না কি বদলিয়ে দিয়ে তারা সেন্টারে নিয়ে যাবে। আমরা বলতে চাই, এটা কেউই মানবে না। আমরা সাবধান করে দিচ্ছি নির্বাচন কমিশনকে, এটা করতে পারবেন না। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করুন, সকলকে সমান সুযোগ দিতে হবে, অন্যথায় নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না। তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ ৭ দফা দাবিতে ঐক্যফ্রন্টের আন্দোলন চলবে।
সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেন, আওয়ামী লীগ বলে, তারা অনেক জরিপ করেছে। সেই জরিপে তারা না কি এগিয়ে আছে। আমি বলতে চাই, আমাদের কাছেও জরিপের ফলাফল আছে এবং তাদের করা জরিপের ফলাফলও আমাদের কাছে আছে। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হবে আগামী নির্বাচনে। সেজন্য সকলকে বলছি, ভোট দিতে যেতে হবে। সাধারণ মানুষ, কৃষক, শ্রমিক, শিক্ষিত-অশিক্ষিত, যারা মাঠে কাজ করেন, মহিলা এবার আমাদেরকে লড়াই করে ভোট দিতে যেতে হবে।
আইনজীবী ঐক্যফ্রন্টের এই মহাসমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা কামাল হোসেন। অনুষ্ঠানে কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে নিয়ে লেখা ‘এসো ঐক্য, এসো ঐক্য, দেশমাতার ডাকে ঐক্য’ গান গেয়ে শোনান কণ্ঠশিল্পী বেবী নাজনীন।
সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও আইনজীবী ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে ও ব্যারিস্টার মাহবুবব উদ্দিন খোকন ও এডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়ার পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখনে ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, খন্দকার মাহবুব হোসেন, নিতাই রায় চৌধুরী, মীর নাসির উদ্দিন, এম এ রকীব, সুব্রত চৌধুরী, জগলুল হায়দার আফ্রিক, মোহাম্মদ শাহজাহান, তৈমুর আলম খন্দকার, মজিবর রহমান সরোয়ার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বোরহানউদ্দিন, বদরুদ্দোজা বাদল, গরীবে নেওয়াজ, মাসুদ আহমেদ তালুকদার, খোরশেদ আলম মিয়া, মহসিন মিয়া, গোলাম মোস্তফা খান, ফাহিমা নাসরিন মুন্নী, শফিউদ্দিন ভুঁইয়া, মনসুর রহমান, ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, কেএম জসিম, শাহ আহমেদ বাদল প্রমুখ। #



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর