Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯, ০৯ চৈত্র ১৪২৫, ১৫ রজব ১৪৪০ হিজরী।

এ সরকারের অধীনে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয় -ড. কামাল হোসেন

ড. কামালের সাথে ব্রিটিশ হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ নভেম্বর, ২০১৮, ৮:২৫ পিএম | আপডেট : ৮:৫৬ পিএম, ১৯ নভেম্বর, ২০১৮


বিশেষ সংবাদদাতা : জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন আবারও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের অনুষ্ঠানের কথা বলেছেন। ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেকের সাথে সোমবার তার বেইলী রোডের বাসায় অনুষ্ঠিত বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন। ড. কামাল হোসেন বলেন, এ সরকারের অধীনে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। পুলিশ এখনো দলীয়বাহিনীর মতো আচরন করছে। আমরা একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। তার জন্য একটি নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার প্রয়োজন। বিকেল সোয়া ৫টার দিকে বৈঠকটি হয়। পৌনে এক ঘণ্টা তারা বৈঠক করেন।
বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কামাল হোসেন বলেন, তারা মাঝে-মধ্যে দেখা করতে আসেন। দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিষয়ে তারা জানতে চেয়েছেন। বিশেষ করে আগামী নির্বাচন আমরা কীভাবে দেখছি এবং কী ধরনের নির্বাচন হতে যাচ্ছে, হাই কমিশনার তা জানতে চেয়েছেন। জবাবে বলেছি, আমরা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন চাইছি। অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নিরপেক্ষ সরকার প্রয়োজন। এ সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। পুলিশ এখনো দলীয়বাহিনীর মতো আচরন করছে। তাই এখনও আমরা একই দাবি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন চাইছি। সেই লক্ষে সাত দফা দাবিও দিয়েছি।
ড. কামাল হোসেন বলেন, নিরপেক্ষ সরকার মানেই হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী কোনও ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারবেন না। প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী যদি রেফারির ভূমিকা পালন করেন, পুলিশ প্রশাসন যদি নিরপেক্ষ না থাকে তাহলে তো ফেয়ার ইলেকশন হয় না। তিনি বলেন, প্রশাসন এবং পুলিশের ভুমিকা পক্ষপাতমূলক। এখনও নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরি হয়নি।
ড. কামাল সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের দাবি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন। আমরা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। সঙ্গে সঙ্গে আমাদের বর্তমান আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে। তবে আন্দোলন মানে এই না যে ভাঙচুর হবে।
এর আগে গত ১৮ অক্টোবর রাজধানীর একটি হোটেলে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস, ইইউভুক্ত দেশগুলোসহ ২০ থেকে ২৫টি দেশের কূটনীতিক ও তাদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। সেদিন জোটের সাত দফা দাবি ও ১১টি লক্ষ্য নিয়ে নিজেদের ভাবনার বিষয়টি কূটনীতিকদের সামনে তুলে ধরেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল।



 

Show all comments
  • Mohi Uddin ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ২:২১ এএম says : 0
    এই সরকার গুম খুন মামলাবাজী অব্যাহত রেখে মায়নমারের শাসনকে হার মানিয়েছে। এই মূহূর্তে এই সরকারের অধিনে নিরেপেক্ষ নির্বাচন সম্ভবনয়।
    Total Reply(0) Reply
  • মো ; সোহেল হোসেন ১৯ নভেম্বর, ২০১৮, ৯:৪১ পিএম says : 0
    অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন এর জন্য প্রয়োজন নিরপেক্ষ সরকার ।প্রধানমন্ত্রী এখনো ও পুর্ণ ক্ষমতার অধিকারী ,রয়েছে পুর্ণ মন্ত্রী পরিষদ, পুলিশ প্রশাসন রীতিমতো চলছে ক্ষমতাসীন দলের কথামতো। আবার আমরা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আশা করছি। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন এর জন্য ছোট পরিসরে একটি সরকার গঠন করতে হবে বিভিন্ন দল ও কিছু এলিট লোক দের নিয়ে তবে ই সম্বব অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন।
    Total Reply(0) Reply
  • Md kalam ১৯ নভেম্বর, ২০১৮, ১১:৫৯ পিএম says : 0
    100 % Rait
    Total Reply(0) Reply
  • রাজ ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:২৬ এএম says : 0
    পাগলের প্রলাফ বকে লাভ আছে? আপনি তো কেন্দ্রে বসে আছেন আর ভাবছেন প্রধানমন্ত্রী আপনাকে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী বানিয়ে দিবে। একবার গ্রামে নেমে দেখেন আপনার ঐক্যফ্রন্টের কি অবস্থা। ঐক্যফ্রন্ট যে আসলেই একটা মেরুদন্ডহীন দল তার প্রমাণ হচ্ছে নির্বাচনে যাওয়া। নির্বাচনের কোন পরিবেশ এই সরকার আপনাকে দিবে বলে আপনার মনে হয়? বোকার দল!!!!
    Total Reply(0) Reply
  • Md Nuruzzaman Moyna ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ২:১৭ এএম says : 0
    D.Kamal true 100%Right
    Total Reply(0) Reply
  • Mohasin Alom Shipu ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ২:১৭ এএম says : 0
    This comment right
    Total Reply(0) Reply
  • Fazlul Haque Kamal ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ২:১০ এএম says : 0
    Right sir
    Total Reply(0) Reply
  • আমি রেমিটেন্স যুদ্ধা ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ২:২০ এএম says : 0
    আমরা রেমিটেন্স যুদ্ধারা ও সংসদে সংরক্ষিত আসন দাবী করছি।আমাদের প্রবাসীদের পক্ষে সংসদে কথা বলার কেউ নাই। আমাদের পাঠানো রেমিটেন্সের হিসাব চাই।লুটপাট অনেক হয়েছে আর নয়। আমাদের কষ্টার্জিত রেমিটেন্স আর চুরি করতে দেওয়া যাবে না।আমরা প্রবাস জীবন থেকে দেশে চলে যাওয়ার পর আমাদের অনেকেরই আর্থিক অবস্থা দুর্বল হয়ে পড়ে।আমরা দেশ ও জাতির উন্নয়নের জন্য দেশে রেমিটেন্সে পাঠিয়েছি। আমরা যখন দেশে একবারে চলে আসি তখন সুন্দর ভাবে ডাল ভাতে খেতে পারি মতো। সরকারি চাকরিজীবীদের মতো রেশন কার্ডের ব্যবস্থা করা হোক ।প্রবাসী পরিবারের নিরাপত্তা চাই।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ড. কামাল হোসেন


আরও
আরও পড়ুন