Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৩ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

এভাবেও হারা যায়!

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

আবু ধাবি টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে নিশ্চিতভাবেই বাজিটা ছিল পাকিস্তানের পক্ষে। কিন্তু দলটা যে পাকিস্তান! নিশ্চিত জয় কিংবা পরাজয়ের সামনে দাঁড়িয়ে অসম্ভব সব ক্রিকেটীয় কাণ্ড উপহার দিয়ে ম্যাচের চিত্র উল্টে দিতে যারা সিদ্ধহস্ত। তেমনি এক রোমাঞ্চকর ম্যাচ উপহার দিয়ে নিউজিল্যান্ডের কাছে ৪ রানে হেরেছে পাকিস্তান। রানের ব্যবধানে যা নিজেদের সবচেয়ে ছোট পরাজয়। সবচেয়ে বেদনারও নয় কি?
জয়ের জন্য শেষ দুই দিনে পাকিস্তানকে মেলাতে হত ১৩৯ রানের সহজ হিসাব, হাতেও ছিল পুরো ১০ উইকেট। কিন্তু হিসাবটা মেলাতে দেননি ভারতে জন্ম নেয়া অভিষিক্ত স্পিনার আজাজ প্যাটেল। প্রথম সেশনে চার উইকেট হারানো পাকিস্তানকে তিনি দ্বিতীয় সেশনেই গুটিয়ে দেন একাই চার উইকেট নিয়ে। ইমাম-উল হককে ফিরিয়ে দিনের প্রথম আঘাতটাও আসে তার কাছ থেকে।
১৭৬ রানের লক্ষ্যে আগের দিনই বিনা উইকেটে ৩৭ রান তুলে ফেলেন দুই ওপেনার ইমাম-উল হক ও মোহাম্মদ হাফিজ। গতকাল সকালের রদ্দুর তীব্র হওয়ার আগেই সাত বলের ব্যবধানে নেই তিন উইকেট। দুই ওপেনারের সাথে ফেরেন হারিস সোহেল। চতুর্থ উইকেটে আসাদ শফিককে নিয়ে ৮২ রানের জুটিতে সেই ধাক্কা সামাল দেন আজহার আলি। মধ্যাহ্ন বিরতির ঠিক আগের বলে শফিককে (৪৫) উইকেটের পিছনে ক্যাচ বানান নিল ওয়াগনার। দ্বিতীয় সেশনে ২৪ রানের ব্যবধানে ছয় উইকেট হারিয়ে অবিশ্ব্যাস্যভাবে ১৭১ রানে গুটিয়ে যায় পাকিস্তান।
বাবর আজমের রান আউটের সাত রান পর সরফরাজের আউটটাই সবকিছু এলোমেলো করে দেয়। প্যাটেলের বলে বিলাসী সুইপ শট খেলতে গিয়ে গ্লাভস-প্যাডে মাখিয়ে উইকেটের পিছনে ক্যাচ দেন পাক দলপতি। লেজ বের হয়ে যাওয়া পাকিস্তার এক রানের ব্যবধানে হারায় আরো দুই উইকেট। নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে হাসান আউট হওয়ার সময় পাকিস্তানের লাগে ১২ রান। শেষ ভরসা হয়ে অজহার তখনও ক্রিজে। স্ট্রাইক রেখে চেষ্টা চালিয়ে যান ওয়ান ডাইনে নামা ব্যাটসম্যান। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আজহারই প্যাটেলের দারুণ এক ডেলিভারিতে অলস লেগ বিফোর হয়ে যান। রিভিউ নিয়ে শেষ রক্ষা হয়নি। প্রথম ইনিংসে দুই উইকেট পাওয়া প্যাটেল এ যাত্রায় পূর্ণ করেন পাঁচ উইকেটের কোটা। ম্যাচের চিত্র বদল করে দেওয়া স্পেলের জন্যে ম্যাচসেরা বেছে নিতে তেমন ভাবতে হয়নি নির্বাচকদের। এত কম পুঁজি নিয়ে এর আগে একবারই জিতেছে কিউইরা। ১৯৭৭-৭৮ মৌসুমে ১৩৭ রানের পুঁজি নিয়ে ইংল্যান্ডকে ৬৪ রানে গুটিয়ে দেয় নিউজিল্যান্ড। কোচ হিসেবে গ্যারি স্টেডের টেস্ট যাত্রার শুরুটাও হলো দারুণ।
চতুর্থ ইনিংসে ছোট লক্ষ্য তাড়ায় ভেঙ্গে পড়ার ঘটনা ইদানিং যেন পেয়ে বসেছে পাকিস্তানকে। গত বছর বার্বাডোজে ১৮৭ রান তাড়া করতে গিয়ে মাত্র ৮১ রানে গুটিয়ে যায় পাকিস্তান। এই আবু ধাবিতেই ১৩ মাস আগে শ্রীলঙ্কার দেওয়া ১৩৬ রানের লক্ষ্যও পূরণ করতে পারেনি তারা, ১১৪ রানে গুটিয়ে হেরে যায় ২১ রানে। এবার টেস্ট ক্রিকেটের পঞ্চম সর্বনিম্ন হারের মাল্য পরতে হল পাকিস্তানকে।

রানের ব্যবধানে সবচেয়ে ছোট হার

বিজয়ী দল ব্যবধান প্রতিপক্ষ ভেন্যু
উইন্ডিজ ১ রান অস্ট্রেলিয়া অ্যাডিলেড, ১৯৯৩
ইংল্যান্ড ২ রান অস্ট্রেলিয়া বার্মিংহ্যাম, ২০০৫
অস্ট্রেলিয়া ৩ রান ইংল্যান্ড ম্যানচেস্টার, ১৯০২
ইংল্যান্ড ৩ রান অস্ট্রেলিয়া মেলবোর্ন, ১৯৮২
নিউজিল্যান্ড ৪ রান পাকিস্তান আবু ধাবি, ২০১৮
সংকিক্ষপ্ত স্কোর
নিউজিল্যান্ড : ১৫৩ (উইলিয়ামসন ৬৩, ইয়াসির ৩/৫৪) ও ২৪৯ (ওয়াটলিং ৫৯, নিকলস ৫৫, হাসান ৫/৪৫, ইয়াসির ৫/১১০)। পাকিস্তান : ২২৭ (বাবর ৬২; বোল্ট ৪/৫৪) ও ১৭১ (আজহার ৬৫, শফিক ৪৫; প্যাটেল ৫/৫৯, সোদি ২/৩৭, ওয়াগনার ২/২৭)। ফল : নিউজিল্যান্ড ৪ রানে জয়ী। ম্যাচ সেরা : আজাজ প্যাটেল। সিরিজ : তিন ম্যাচ সিরিজে নিউজিল্যান্ড ১-০তে এগিয়ে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর