Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

‘যারা লালন-নজরুল শোনে তারা জঙ্গি হতে পারে না’

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৫ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

যারা জাতীয় সঙ্গীত গায়, লালন-নজরুল সঙ্গীত শোনে, রবীন্দ্র পড়ে তারা কখনও জঙ্গিবাদে জড়াতে পারে না। যারা জঙ্গিবাদে জড়িয়ে ভালোর পথে ফেরার চেষ্টা করেছে তাদের সঙ্গে আমরা কথা বলেছি। কথা বলেছি যারা জঙ্গি অভিযানে নিহত হয়েছে তাদের পরিবারের সঙ্গেও। আসলে কেন তরুণরা জঙ্গিবাদে জড়ায়। সংস্কৃতিমনা, স্পোর্টসম্যান কিংবা মননশীলরা কখনও জঙ্গিবাদে জড়ায় না। রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে শনিবার আয়োজিত ‘সহিংস উগ্রবাদবিরোধী যুব সংলাপ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।

সংলাপে অংশগ্রহণ করে রাজধানীর বিভিন্ন স্কুল কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থী, শিক্ষক, পেশাজীবী ও সাংবাদিকবৃন্দ। ইউএনডিপি বাংলাদেশের সহযোগিতায় এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মনিরুল ইসলাম বলেন, তরুণদের একটি অভিযোগ তাদের কথা কেউ শুনেনা। তাদের উপর সবকিছু চাপিয়ে দেয়। এই কথা থেকে বেরি আজ আমরা তরুণদের কথা শুনব। তরুণরা সহিংস উগ্রবাদ থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার বিষয়ে কি ভাবছে।

লালবাগ মাদ্রাসার ছাত্র সামসুদ্দিন বলেন, ধর্মের জায়গা আমাদের সকলের দূর্বলতা রয়েছে। আমরা কোন কিছু সঠিকভাবে না জেনে অন্ধের মত বিশ্বাস করি। তাতে আমরা সহজে বিপথে চলে যাই। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের মটিভেট করতে হবে। বদরুন্নেসা কলেজের এক শিক্ষার্থী বলেন, ইন্টারনেটের অধিক ব্যবহার, তরুণদের মানসিক অবস্থা ও হতাশা উগ্রবাদে জড়িয়ে পড়ার অন্যতম কারণ। পর্যাপ্ত খেলাধুলা ও বিনোদনের সুযোগ বৃদ্ধি করতে হবে। সকল ধরণের গুজব মোকাবেলা করা। একটি ভূয়া নিউজ যত দ্রæত তরুণদের স্পর্শ করে অতটা সহজে সেই মিথ্যাকে সড়ানো যায়না। সকলের বক্তব্য শুনে সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, ভিডিও গেমও প্রভাবিত করে জঙ্গিবাদকে। ভিডিও গেমের মাধ্যমে বিভিন্ন অস্ত্র চালানো এবং পরবর্তী সময়ে বাস্তবে অস্ত্র চালাতে আগ্রহী হয়ে উঠে তরুণরা। এ সময় আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইউএনডিপি প্রতিনিধি মিস্টার রবার্ট, ডিবিসি নিউজ এর সঞ্চালক নবনিতা চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. নিলয় রঞ্জন বিশ্বাস, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ ফারজানা রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শবনম আজিম ও অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন।



 

Show all comments
  • salim ২৫ নভেম্বর, ২০১৮, ৯:২৫ এএম says : 0
    আর যাহারা কোরআন শোনে তারাই জঙ্গি?
    Total Reply(0) Reply
  • jack ali ২৫ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০১ পিএম says : 0
    Fantastic...Mr He is a super hero, he alone destroyed terrorism in Bangladesh. Now he should focus on around the world because terrorism is endemic around the world so that he should led our super anti-terrorist unit to destroy all terrorist from the world not only that he should introduce free medicine lalon song in terrorist infested country including Bangladesh from class 1 to university and all the madrasa in our country. superb..
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জঙ্গি

২০ অক্টোবর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন