Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬, ২৩ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

নিরাপদ সড়ক চাই’র ২৫ বছর পূর্তি

স্টাফ রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

সড়কের নৈমত্তিক দুর্ঘটনার শিকার হওয়া মানুষের অর্ধেকই সাধারণ পথচারী। অসতর্কভাবে হাঁটা, বেখেয়ালে রাস্তা পারাপার, সড়কের পাশে হাট-বাজার বসানোসহ নানা কারণে এসব দুর্ঘটনা ঘটছে। অন্যদিকে সড়কের পাশে থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ ওই এলাকার স্থানীয় মানুষরা বেশি দুর্ঘটনার শিকার হন। গতকাল রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে নিরাপদ সড়ক চাই’র (নিসচা) ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে ‘নিসচার ২৫ বছর : প্রেক্ষিত সড়ক দুর্ঘটনা’ শীর্ষক এক সেমিনারে বিশেষজ্ঞরা এসব কথা বলেন।
নিসচার প্রতিষ্ঠাতা ইলিয়াস কাঞ্চনের সভাপতিত্বে আলোচন সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। বক্তারা বলেন, ২০২০ সালের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনা বর্তমানের চেয়ে অর্ধেক কমিয়ে না আনা গেলে জাতিসংঘের টার্গেট পূরণ করা কখনও সম্ভব হবে না। এর জন্য জনগণকে সচেতন হওয়ার গুরুত্বারোপ করেন। অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ বলেন, আমাদের দেশের সড়কের নানাবিধ সমস্যা রয়েছে। সড়ক যথেষ্ট চওড়া নয়। রাস্তার উপর দোকান ও হাটবাজার। তিনি বলেন, জনসংখ্যার দুই লেইনের হাইওয়ে যথেষ্ট নয়। হাইওয়ে অবশ্যই চার লেইনের হতে হবে।

সভায় গত তিন বছরের সড়ক দুর্ঘটনার চিত্র তুলে ধরাসহ মূল প্রবন্ধ উপাস্থাপন করেন নিসচা’র মহাসচিব এহসানুল হক। এতে বলা হয়, গত তিন বছরের মধ্যে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে সড়কে দুর্ঘটনার হার নিম্নগামী ছিল। কিন্তু ২০১৭ সালের পর তা ঊর্ধ্বমুখী হয়। নিসচার তথ্যমতে, ২০১৫ সালে দুই হাজার ৬২২টি সড়ক দুর্ঘটনায় পাঁচ হাজার তিনজন নিহত এবং ছয় হাজার ১৯৭ জন আহত হয়েছে। ২০১৬ সালে দুই হাজার ৩১৬টি দুর্ঘটনায় চার হাজার ১৪০ জন নিহত এবং পাঁচ হাজার ৩২৫ জন আহত হয়েছে। এদিকে ২০১৭ সালে সড়ক দুর্ঘটনা বেড়ে দাড়ায় তিন হাজার ৩৪৯টিতে। এ সময় পাঁচ হাজার ৬৪৫ জন নিহত এবং সাত হাজার ৯০৮ জন আহত হয়। অর্থাৎ আগরে তুলনায় ২০১৭ সালে দুর্ঘটনার হার ৩৯ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি। আর চলতি বছরের অক্টোবর মাস পর্যন্ত মোট দুর্ঘটনার সংখ্যা তিন হাজার ১৩৩টি। এতে নিহতের সংখ্যা তিন হাজার ৯৫১ জন এবং আহত হয়েছে সাত হাজার ৭৪৯ জন। এসব দুর্ঘটনায় নিহতের মধ্যে প্রায় অর্ধেক পথচারী। শুধু ২০১৭ সালে এক হাজার ৯৬৪টি দুর্ঘটনায় পথচারী নিহত হয়েছে দুই হাজার ৮০৪ জন। নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের ভূমিকা রাখায় ৮জন ব্যক্তিকে সম্মাননা দেওয়া হয়। এর মধ্যে নওগাঁর মান্দায় ২০ বছর ধরে স্বেচ্ছাশ্রমে ট্রাফিকের দায়িত্ব পালন করায় আজহার মন্ডল, পুলিশের ট্রাফিক পরিদর্শক সালাহ উদ্দিন, সাংবাদিক ও চলচ্চিত্রকার মুস্তাফা সাউদ, মরহুম চলচ্চিত্র নির্মাতা শিবলী সাদিকসহ সাংবাদিক ও সচিব রযেছেন।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সড়ক বিশেষজ্ঞ ও বুয়েটের অধ্যাপক ড. শামসুল হক, ড. মো. মিজানুর রহমান, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন, হাইওয়ে পুলিশের উপ মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) আতিকুল ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক রাশেদা রওনক খান, সাংবাদিক নেতা সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, শাবান মাহমুদ প্রমুখ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নিরাপদ সড়ক


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ