Inqilab Logo

সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

পারস্য উপসাগরে মার্কিন বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৪:২০ পিএম

আট মাস পরে আবার ইরানকে মোকাবেলা করতে পারস্য উপসাগরে বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ সম্বলিত একটি নৌবহর মোতায়েন করছে যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার ইরান তাদের নতুন যুদ্ধজাহাজ ‘শাহান্দ’ অবমুক্ত করার পরের দিনই যুক্তরাষ্ট্রের এই নৌবহর যাত্রা করে। মঙ্গলবার মার্কিন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তাদের বরাতে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে দেশটির জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল।
প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু শক্তি চালিত সর্বাধুনিক নিমিৎজ ক্লাস বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ ‘ইউএসএস জন সি. স্টেনিস’ ও এর সহযোগী জাহাজগুলো বৃহষ্পতিবারের মধ্যেই পারস্য উপসাগরে এসে পৌঁছাবে। এগুলো প্রায় আগামী দুই মাস মধ্যপ্রাচ্যে অবস্থান করতে পারে। তবে এর বেশিরভাগ সময় তারা পারস্য উপসাগরের বুকে থাকবে বলে জানা যায়।
মার্কিন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তাদের দাবি, ইরানকে মার্কিন প্রশাসনের ক্ষমতা বোঝানোর জন্য এই প্রদর্শনী। মধ্যপ্রাচ্যে ইরানকে সরাসরি জবাব দিতে সেখানে এসব যুদ্ধজাহাজ পাঠানো হচ্ছে। অবশ্য এই জাহাজ থেকে মধ্যপ্রাচ্যের অন্য সব দেশ সিরিয়া, ইরাক এবং আফগানিস্তানে চলমান সামরিক অভিযানে অংশ নিতে পারবে মার্কিন জঙ্গি বিমান।
গত আট মাসের মধ্যে এবারই প্রথম পারস্য উপসাগরে বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়ে তাদের সামরিক উপস্থিতি বৃদ্ধির পদক্ষেপ নিল যুক্তরাষ্ট্র। যদিও গত দুই দশকের মধ্যে এটাই সবচেয়ে দীর্ঘ সময় যখন পারস্য উপসাগরে প্রায় আট মাস যাবত কোনো মার্কিন বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ ছিল না।
উল্লেখ্য, গত সোমবারই ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি ঘোষণা দিয়েছিলেন ইরানের তেল রপ্তানি করতে দেয়া না হলে পারস্য উপসাগর দিয়ে কোন জাহাজ চলাচল করতে দেয়া হবে না। এর আগে গেল সপ্তাহে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিকে হুমকি বলে অভিহিত করে ইউরোপকে দেশটির ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানান। তার মতে, ‘ইরান পরমাণু ওয়ারহেড বহনে সক্ষম ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে।’
এ প্রসঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইরান বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি ব্রায়ান হুক বলেছিলেন, ‘ইউরোপ খুব ভালোভাবেই জানে ইরান জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব লঙ্ঘন করছে। তাই যুক্তরাষ্ট্রের ইরান বিরোধী নিষেধাজ্ঞায় ইউরোপেরও শামিল হওয়া উচিত।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মার্কিন বিমান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ