Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৩ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

মুক্তি-ব্রাদার্সের ড্র’তে শেষ আটে ঢাকা আবাহনী

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

স্বাধীনতা কাপের গ্রুপ পর্বে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র ও ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্লাব নিজেদের মধ্যে ড্র করায় শেষ আট নিশ্চিত হলো ঢাকা আবাহনী লিমিটেডের। গতকাল বিকেলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ‘সি’ গ্রæপের ম্যাচে মুক্তিযোদ্ধা ১-১ গোলে ড্র করে ব্রাদার্সের বিপক্ষে। ব্রাদার্সের ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ভিয়েইরা লিমা লিওনার্দো ও মুক্তিযোদ্ধার মিডফিল্ডার সুজন বিশ^াস দু’দলের হয়ে একটি করে গোল করেন।
এই ড্র’তে এক ম্যাচ হাতে রেখেই ‘সি’ গ্রæপ থেকে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেল ঢাকা আবাহনী। নিজেদের প্রথম ম্যাচে তারা ২-১ গোলে হারিয়েছিল মুক্তিযোদ্ধাকে। অন্যদিকে ড্র করায় শেষ আটে যাওয়াটা ঝুলে থাকলো ব্রাদার্স ও মুক্তিযোদ্ধার। দু’দলই একটি করে পয়েন্ট পেয়েছে। তবে সুবিধাজনক অবস্থানে আছে ব্রাদার্স। মুক্তিযোদ্ধা দু’টি খেললেও ব্রাদার্স খেলেছে এক ম্যাচ। শনিবার গ্রæপের শেষ ম্যাচে আবাহনীর সঙ্গে ড্র করলেই কোয়ার্টার ফাইনালে নাম লেখাবে ব্রাদার্স। সেই ক্ষেত্রে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়বে মুক্তিযোদ্ধা।
কাল জয়ের লক্ষ্যেই মাঠে নেমেছিল ব্রাদার্স। লক্ষ্যপূরণে ম্যাচের শুরুতে গোল করেছিলো গোপীবাগের দলটি। ৮ মিনিটে মুক্তিযোদ্ধার বক্সের বাইরে থেকে ব্রাদার্সের পানামার ফরোয়ার্ড জ্যাক দানিয়েল থ্রু পাস দেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ভিয়েইরা লিমা লিওনার্দোকে। ওই পাস ধরে প্রতিপক্ষের বক্সের ভেতরে ঢুকে পড়েন লিমা। তাকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করেন মুক্তির গিনির ডিফেন্ডার ইউনুসা কামারা। বিপদ বুঝে সামনে এগিয়ে আসেন গোলরক্ষক মোহাম্মদ রাজিব। কিন্তু কামারা ও রাজিবের চেষ্টা বিফলে যায়। ডান পায়ের গড়ানো প্লেসিং শটে গোল করে উল্লাসে মেতে ওঠেন লিমা (১-০)। তবে সমতায় ফিরতে খুব বেশি সময় নেয়নি মুক্তিযোদ্ধা। ম্যাচের ২৪ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে মুক্তির জাপানি মিডফিল্ডার কাতো শর্ট পাস দেন ফরোয়ার্ড মেহেদী হাসান রয়েলকে। রয়েল সেই বল ওয়ান টাচে দেন আগুয়ান মিডফিল্ডার সুজন বিশ^াসকে। দ্রæতগতিতে বল নিয়ে সুজন বক্সের লাইন থেকেই ডান পায়ে উঁচু শট নেন। তার শট ব্রাদার্সের ডিফেন্ডার আশরাফুল করিমের মাথায় লেগে জালে জড়ায়। অসহায় দৃষ্টিতে সেটা চেয়ে দেখা ছাড়া কোনো উপায় ছিল না ব্রাদার্স গোলরক্ষক সুজন চৌধুরীর (১-১)। ম্যাচের বাকি সময় আর গোল না হওয়ায় ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়ে দু’দল।
একই ভেন্যুতে সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত ‘ডি’ গ্রæপের ম্যাচে নবাগত বসুন্ধরা কিংস গোলশূন্য ড্র করে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের বিপক্ষে। এই ড্র বসুন্ধরাকে টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে দিলেও অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে শেখ রাসেল ও জামালকে। আগের ম্যাচে শেখ জামালকে ২-০ গোলে হারিয়ে এবং এই ম্যাচ ড্র করে ৪ পয়েন্ট পেয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেছে বসুন্ধরা। শেষ আটে যেতে হলে শনিবার গ্রæপের শেষ ম্যাচে শেখ রাসেলের বিপক্ষে জিততেই হবে শেখ জামালকে। যদি ম্যাচটি ড্র হয় তবে দু’পয়েন্ট নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে চলে যাবে শেখ রাসেল। বিদায় ঘটবে শেখ জামালের।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর