Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

লেজার প্রযুক্তি ব্যবহার করবে রাশিয়া

মার্কিন মিত্রদের টার্গেট করে মস্কোর অত্যাধুনিক সমরাস্ত্র মোতায়েন

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০৬ এএম

যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদের টার্গেট করে অত্যাধুনিক সমরাস্ত্র মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে রাশিয়া। দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইতোমধ্যেই তারা লেজার ওয়েপন মোতায়েন করেছে। এরমধ্যে পেরেসভেট লেজারও রয়েছে; যার সক্ষমতা এখনও পর্যন্ত গোপন রেখেছে মস্কো। তবে সামরিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এটি প্রতিপক্ষের ড্রোন, মিসাইল ও আকাশযানের জন্য প্রতিবন্ধকতা তৈরি করবে। বুধবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ। রাশিয়ার জেনারেল স্টাফ চিফ ভ্যালের গেরাসিমভ বলেছেন, যে কোনও সংঘাতের ক্ষেত্রে প্রতিশোধ হিসেবে মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন রয়েছে এমন দেশগুলোকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করবে রাশিয়া। এক্ষেত্রে নতুন লেজার প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে। ভ্যালের গেরাসিমভ বলেন, পেশাদার সামরিক কর্মীদের হিসেবে আপনি অবশ্যই বুঝতে পারবেন যে, রাশিয়ার প্রতিশোধের লক্ষ্যবস্তু যুক্তরাষ্ট্রের কোনও ভূখণ্ড হবে না। বরং সেসব দেশগুলোকেই লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করা হবে যেখানে মাঝারি পাল্লার মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন রয়েছে। ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে বলা হয়, রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ইতোমধ্যেই লেজার ওয়েপন মোতায়েনের দাবি করা হয়েছে। এরমধ্যে পেরেসভেট লেজারও রয়েছে; যার সক্ষমতা এখনও পর্যন্ত গোপন রেখেছে মস্কো। তবে সামরিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এটি প্রতিপক্ষের ড্রোন, মিসাইল ও আকাশযানের জন্য প্রতিবন্ধকতা তৈরি করবে। যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক পরমাণু অস্ত্র সীমিতকরণ চুক্তি লঙ্ঘন নিয়ে রাশিয়ার বিরুদ্ধে তোলা অভিযোগেরও সমালোচনা করেছে মস্কো। রুশ প্রেসিডেন্টের দফতর ক্রেমলিনের দাবি, এই মিথ্যা অভিযোগ তুলে আমেরিকা চুক্তিটি থেকে সরে যেতে চাইছে। এদিকে ২০১৯ সালে চার হাজার সামরিক মহড়া চালানোর ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। মঙ্গলবার রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু এ ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, ইন্টারমিডিয়েট-রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্সেস (আইএনএফ) নামে রুশ-মার্কিন পরমাণু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সরে যাওয়ার পরিকল্পনার প্রেক্ষিতে মস্কো এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ২০১৮ সালের ২১ অক্টোবর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এ চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনার কথা জানান। মস্কোতে রাশিয়ার সামরিক ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপকালে এ বিষয়ে কথা বলেন রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী। এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানান, ২০১৮ সালে সামরিক খাতে ৭১৬ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও রাশিয়ার বিরুদ্ধে পরমাণু অস্ত্র সীমিতকরণ চুক্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছেন। ‘ইন্টারমিডিয়েট-রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্স-আইএনএফ’ নামের ওই চুক্তি মেনে চলতে তিনি রাশিয়াকে ৬০ দিন সময় দিয়েছেন। ব্লুমবার্গ, আনাদোলু পোস্ট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।