Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

প্রস্তুতিটা ভালই হলো

তামিম-সৌম্যের ঝড়ো শতক

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০৫ এএম

শাই হোপ ও রস্টন চেইসের দারুণ ফিফটিতে বড় স্কোর গড়ে বাংলাদেশ সফরে প্রথম জয়ের সম্ভবনা তৈরী করেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কিন্তু চোট কাটিয়ে মাঠে ফেরা তামিম ইকবাল এবং সৌম্য সরকার তা হতে দিলে তো। দুজনেই ব্যাট চালালেন সপাটে। দুজনেই তুলে নেন ঝড়ো সেঞ্চুরি। ৩৩২ রানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) একাদশ পেয়ে পায় ৫১ রানের বড় জয়।

আলোর ঘাটতি থাকায় পুরো ম্যাচ শেষ হতে পারেনি। ৪১ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ যখন ৬ উইকেটে ৩১৪ তখন ম্যাচের ইতি টানা হয়। ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে বিসিবি একাদশকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয় ৫১ রানে। তার মানে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ধবলধোলাইয়ের পর তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচেও হারল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ দুর্দান্তভাবে তামিম ইকবালের ফেরাটা। গত সেপ্টেম্বরে এশিয়া কাপে ইনজুরিতে ছিটকে যাওয়া তামিম প্রায় তিন মাস পর মাঠে ফিরলেন। ফিরেই হাঁকালেন দুর্দান্ত এক শতক। তামিম অবশ্য ফিরতে পারতেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজেই। কিন্তু সিরিজ শুরুর আগে অনুশীলন করার সময় পাজরে আঘাত পেয়ে আবারো ছিটকে যান। সেই ঝালটাই যেন তিনি মেটান ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে একমাত্র একদিনের প্রস্তুুতি ম্যাচে।

সাভারের বিকেএসপিতে তিন নম্বর মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আগে ব্যাট করে দাঁড় করিয়েছিল ৩৩১ রানের বিশাল সংগ্রহ। মনে হচ্ছিলো এতো রান করা হয়তো কঠিন হবে বিসিবি একাদশের জন্য। কিন্তু বিসিবি একাদশে যে খেলছেন তামিম ইকবাল! মাত্র ৩৪ বলে হাফসেঞ্চুরি পূরণ করার পরে সেঞ্চুরিতে যেতে তামিম খেলেন ৭০ বল। সেঞ্চুরির পরে ১টি ছক্কা হাঁকিয়ে রস্টন চেজের বোলিংয়ে স্টাম্পিং হন দেশসেরা এ ওপেনার। ১৩ চার ও ৪ ছক্কার মারে ৭৩ বলে ১০৭ রান করেই থামেন তিনি।

তামিমের এমন ঝড়ো ব্যাটিংয়ের দিনে তাকে যোগ্য সঙ্গ দিয়েছেন সৌম্য সরকার। ইমরুল কায়েস ২৭ রান করে ৮১ রানের মাথায় সাজঘরে ফিরে গেলে দ্বিতীয় উইকেটে ১১৪ রানের জুটি গড়েন তামিম ও সৌম্য। অগ্রজ সতীর্থ ১০৭ রান করে ফিরলেও একপ্রান্ত আগলে মারকাট ব্যাটিং চালিয়ে যান সৌম্য। তামিম আউট হওয়ার পর মোহাম্মদ মিঠুন ৫, আরিফুল হক ২১, তৌহিদ হৃদয় ০ ও শামীম পাটোয়ারী ৯ রান করে আউট হলে ২৬৫ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ফেলে বিসিবি একাদশ। তখন মনে হচ্ছিল হয়তো জয়টা হাতছাড়া হবে। কিন্তু সৌম্য ও মাশরাফি মিলে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়েই থামান। মাত্র ৭৫ বলে ৭টি চার ও ৬টি ছক্কার মারে সেঞ্চুরি করা সৌম্য শেষপর্যন্ত অপরাজিত থাকেন ৮৩ বলে ১০৩ রান করে। দুই চার ও ১ ছক্কার মারে ১৮ বলে ২২ রান করেন অধিনায়ক মাশরাফি।

মাঝে কিছুদিন দলের বাইরে থাকা সৌম্য দলে ফেরেন জিম্বাবুযের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডেতে। ফিরেই খেলেন ৯২ বলে ১১৭ রানের ঝকঝকে ইনিংস। এরপরও দলে তার নিশ্চয়তা নেই। এবার প্রস্তুতি ম্যাচের সেঞ্চুরিতে এবার উইন্ডিজের বিপক্ষে একাদশে সুযোগ পাওয়ার দাবি জানিয়ে রাখলেন এই মারকুটে ওপেনার। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগামী ৯ ডিসেম্বর শুরু হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
ওয়েস্ট ইন্ডিজ : ৫০ ওভারে ৩৩১/৮ (কাইরন পাওয়েল ৪৩, হোপ ৮১, ব্রাভো ২৪, স্যামুয়েলস ৫, হেটমায়ার ৩৩, রভম্যান পাওয়েল ০, চেইস ৬৫*, অ্যালেন ৪৮, পল ২, আমব্রিস ১০*; রুবেল ২/৫৫, মাশরাফি ১/৩৭, রানা ২/৬৫, শাহিন ০/১৮, সৌম্য ০/৭২, নাজমুল ২/৬১, শামিম ১/১৬)।

বিসিবি একাদশ : ৪১ ওভারে ৩১৪/৬ (তামিম ১০৭, ইমরুল ২৭, সৌম্য ১০৩*, মিঠুন ৫, আরিফুল ২১, তৌহিদ ০, শামিম ৯, মাশরাফি ২২*; রোচ ০/৪৯, টমাস ১/৫৭, চেইস ২/৫৭, পল ০/৪২, বিশু ২/৮১, অ্যালেন ১/১৯)।
ফল : বিসিবি একাদশ ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৫১ রানে জয়ী।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।