Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৪ কার্তিক ১৪২৬, ২০ সফর ১৪৪১ হিজরী

মেরকেল জার্মানির চ্যান্সেলর থাকছেন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৪:১৮ পিএম

জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল ক্ষমতাসীন দল ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ)-র প্রধানের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। তবে দলীয় প্রধানের পদ ছাড়লেও জার্মানির চ্যান্সেলর থাকছেন তিনি। খবর ডয়চে ভেলে।
দলের নতুন প্রধান হয়েছেন আনেগ্রেট ক্রাম্প-কারেনবাউয়ার। তিনি এক সাক্ষাৎকারে বলেন, আমি চাই অ্যাঙ্গেলা মেরকেল চ্যান্সেলর হিসেবে তার মেয়াদের বাকি তিন বছর শেষ করুন।
রোববার দলের সম্মেলন পরপরই তিনি বলেন, ‘আমাদের একটি ফেডারেল সরকার রয়েছে। এই সরকার একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য নির্বাচিত হয়েছে। দলের সম্মেলনেও সবার একই মনোভাব উঠে এসেছে, আমার ব্যক্তিগত ইচ্ছাও তাই।’
ক্রাম্প-কারেনবাউয়ার বলেন, ‘সরকারে স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করার মাধ্যমে নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি পূরণের ব্যবস্থা করে দেয়াও ক্ষমতাসীন দলের প্রধান হিসেবে আমার দায়িত্ব।’
আগামী বছর জার্মানিতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। উগ্র জাতীয়তাবাদী এবং উদ্বাস্তু -বিরোধী হিসেবে পরিচিত অলটারনেটিভ ফর জার্মানি (এএফডি) এই অঞ্চলে আগের নির্বাচনগুলিতে বেশ সাফল্য দেখিয়েছে।
গত ফেব্রুয়ারি মাসে মেরকেল তার উত্তরসূরি বিবেচনা করে কারেনবাউয়ারকে দলের সাধারণ সম্পাদক পদে নিয়ে আসেন। মেরকেলের নীতির প্রতি কারেনবাউয়ারের সমর্থনের কারণে মাঝেমধ্যে তাকে ‘মিনি-মেরকেল' হিসেবেও উল্লেখ করা হয়।
অক্টোবরে হেসে রাজ্যের ভোটে ১০ শতাংশেরও বেশি সমর্থন হারায় সিডিইউ। এরপরই অ্যাঙ্গেলা মেরকেল দলীয় প্রধানের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন। আঠারো বছর তিনি তার দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। আর পরপর চার মেয়াদে দেশটির চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।



 

Show all comments
  • রিপন ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৬:২২ পিএম says : 0
    নয়া দলীয় প্রধান চেয়ারে আসীন হবার পর সাবেক দলীয় প্রধান মেরকেলকে চ্যান্সেলরের বাদবাকি মেয়াদ পূর্ণ করার সুযোগ দিচ্ছেন, বীর একেই বলে। ইনসাফ একেই বলে। আর আমাদের এখানে? যদি গদী হারাতে হয়, যদি ক্ষমতায় এসে যায়, প্রধানমন্ত্রী হয়ে যায়, - এই ভয়ে প্রতিপক্ষকে নির্বাচনে লড়াই করার সুযোগটুকুও দেয়া হচ্ছে না।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জার্মানি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ