Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০১৯, ০৩ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৪ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে কথা বলতেও ঘৃণা হয় : মীর নাছির

প্রকাশের সময় : ৬ মে, ২০১৬, ১২:০০ এএম

চট্টগ্রাম ব্যুরো : নির্বাচনের নামে প্রহসনের মাধ্যমে সরকার পুরো নির্বাচনী ব্যবস্থাকেই কলুষিত করেছে অভিযোগ করে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন বলেছেন, এ অবস্থার পরিবর্তন না হলে নির্বাচনের প্রতি মানুষ আগ্রহ হারাবে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়লে উগ্রবাদি শক্তির উত্থান ঘটবে। আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনায় পুরোপুরি ব্যর্থ উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ কমিশনের বিরুদ্ধে কথা বলতেও এখন ঘৃণা হয়। তিনি আগামী শনিবার চট্টগ্রামের হাটহাজারীসহ চতুর্থ দফায় অনুষ্ঠেয় ইউপি নির্বাচনে ভোটারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানান। গতকাল (বৃহস্পতিবার) নগরীর চট্টেশ্বরী রোডে নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি জানান।
চলমান ইউপি নির্বাচনে বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন বলেন, হাটহাজারীতে ধানের শীষের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। আর তাতে ভীত হয়ে সরকারি দলের প্রার্থীরা এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। কয়েকটি ইউনিয়নে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। তাদের নির্বাচনী  ক্যাম্পে আগুন দেওয়া হয়েছে। তিনি অভিযোগ করেন এসব বিষয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে প্রশাসনকে জানানো হলেও তারা যথাযথ কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।
চলমান ইউপি নির্বাচনে সরকার ভোটের নামে প্রহসন করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, বিএনপির প্রার্থীদের হুমকি-ধমকি দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে বাধ্য করা হচ্ছে। হুমকি উপেক্ষা করে যেসব এলাকায় বিএনপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে সেখানে প্রচার-প্রচারণায় বাধা দেয়া হচ্ছে। সরকারি দলের লোকজন কেন্দ্র দখল করে নৌকায় সিল মেরে বাক্স ভর্তি করছে। নির্বাচনী ব্যবস্থায় নতুন ধরনের প্রহসন চালু করেছে বর্তমান সরকার। রাউজানে বিএনপি চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীদের জোর করে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা হয়েছে। সেখানে ৭৬ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতও হয়েছেন। নির্বাচন ব্যবস্থায় এর চেয়ে বড় প্রহসন আর কী হতে পারে। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যাপক শেখ মো. মহিউদ্দিন, নগর বিএনপি নেতা এডভোকেট আবদুস সাত্তার, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী মহসিন, নগর বিএনপি নেতা এ্যাডভোকেট নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, কাজী বেলাল উদ্দিন, মোশাররফ হোসেন দিপ্তী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ