Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ৭ বৈশাখ ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

সরকারের আয়ু শেষ ৩০ তারিখে তারা হেরে যাবে

‘রাজনীতি ও মানবাধিকার’ শীর্ষক আলোচনা সভায় ড. কামাল

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:৩৬ এএম

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, এ সরকারের আয়ু শেষ। আগামী ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে সরকার হেরে যাবে ইনশাআল্লাহ। এরপর জনগণ আপনাদের কিভাবে দেখবে সেই কথাটাও একটু ভাবুন। তিনি আগামী ৩০ ডিসেম্বর ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেয়ার এবং ভোট কেন্দ্র পাহারা দেয়ার জন্য ভোটারদের প্রতি আহবান জানান। গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে ‘রাজনীতি ও মানবাধিকার’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
দেশে বিনা বিচারে মানুষ মারা যাওয়ার ব্যাপারে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে ড. কামাল হোসেন এব্যাপারে সরকারের কাছে শক্তিশালি একটি তদন্ত কমিটি গঠনের আহবান জানান। বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড বন্ধের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, রোগের কারণ চিহ্নিত করার পরে তো চিকিৎসা। কিন্তু আমরা তো রোগ সম্পর্কেই জানতে পারি না, না হলে ৩২১ জন বিনাবিচারে হত্যাকারের শিকার হয় কেন? তা আমাদের জানানো উচিত। কেননা বেঁচে থাকার অধিকার নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের কর্তব্য।
বর্তমান সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে ড. কামাল হোসেন বলেন, এরা বিনা ভোটে নির্বাচিত হলেও এখনও তারা একজন সংসদ সদস্য হিসাবেই বিবেচিত। তাই তাদের অবস্থান থেকে এখনও কিছু করতে পারেন তারা। কারণ আর কয়েকদিন পরতো সাধারণ পাবলিকে পরিনত হয়ে যাচ্ছে এসব সংসদ সদস্যরা। তাই যাবার আগে প্লিজ একটা কিছু করে যান। কারণ আপনারাতো বলছেন দেশের জন্য অনেক উন্নয়ন করেছেন। তাই বিনা বিচারে এভাবে যারা মারা যাচ্ছে তাদের ব্যাপারে খোঁজ নিন,কিছু একটা করুন। তখন জাতিকে বলতে পারবেন হ্যাঁ আমরা বিনা বিচারে হত্যার ব্যাপারে ক্ষমতার শেষ সময়েও পদক্ষেপ নিয়েছি। তবে তিনি জনগণকেও মানবাধিকার রক্ষায় প্রহরীর ভুমিকায় থাকতে বলেন। এর পাশাপাশি তিনি সরকারের কাছে মানবাধিকার রক্ষার পাশাপাশি কেনো বিনা বিচারে এভাবে দেশে মানুষ মারা যাচ্ছে সেব্যাপারে সহযোগিতা চাইলে তিনি সেব্যাপারেও কাজ করবেন বলে জানান। তিনি বলেন, আমরাও চাই সরকারের প্রশংসা করতে। বিনা বিচারের মানুষ মারা যাওয়াতো একটি সমাজে অবিচারে বড় নমুনা। দেশে এটাতো মহামারী আকার ধারণ করেছে। গণতানন্ত্রিক সমাজেতো অবিচার টিকে থাকার কথা না, জনগণ ঐকবদ্ধ থাকে। বর্তমানে যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে তাতে জনগণ তাদের ভোট নির্বিঘ্নে দিতে পারবে বলে মনে করেন? সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের উত্তরে ড. কামাল বলেন, ভোট দেয়া নাগরিকের অধিকার। এটাতো কোন অপরাধ না। ভোটাধিকার না দেওয়ার শতভাগ ব্যর্থতা জনগণের নিজের। ক্ষমতার মালিক জনগণ, এটাতো কাগজ দেখিয়ে বলার কিছু নেই। নীরব-নিষ্ক্রিয় হলে চলবে না। দেশের মালিক ১৮ কোটি মানুষ। এর অর্ধেকও যদি একত্র হয়ে মালিকানা নিজেরা ভোগ করতে চাই, তবে কেউ তা রুখতে পারবে না। তিনি সবাইকে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট প্রদান এবং কেন্দ্র পাহারা দেয়ার আহবান জানান। অপরদিকে দেশের বিভিন্ন নিউজ পোর্টালসহ ৫৮টি ওয়েবসাইট বন্ধ করে দেয়ার খবরেও তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি।
ড. কামাল বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে আপনারা তো হেরে যাচ্ছেন ইনশাল্লাহ । এরপর জনগণ আপনাদের কিভাবে দেখবে সেই কথাটাও একটু ভাবুন। অন্তত শেষ সময়ে জনগণের পক্ষে কাজ করে আপনাদের মোবারকবাদ দেওয়ার সুযোগ করে দিন।
অনুষ্ঠানের প্রধান আলোচন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী শেখ শহীদুল ইসলাম বলেন, রাজনীতিতে ত্যাগি নেতাদের মুল্যায়ন হচ্ছে না। এখানে যোগ্যতা হচ্ছে টাকা। তিনি বলেন, টাকাই হচ্ছে নেতৃত্ব পাওয়ার মুল কথা সেখানেতো রাজনৈতিক নেতৃত্ব তৈরি হবে না। তবে তিনি সবাইকে সর্তক করে দিয়ে বলেন, দেশে অন্যায় অবিচার দেখে দয়া করে হতাশ হওয়া যাবে না। কারণ হতাশ হলে লুটেরা সাহসী ও লুটপাটে আরও বেশি উৎসাহিত হবে।
সাবেক সচিব মোফাজ্জল করিম বলেন দেশে এখন মানবাধিকার নয় এখন চলছে দানবাধিারের দাপট। এদানব শুধু সরকারেই নয় সব ক্ষেত্রে এদের বিস্তার ঘটেছে। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন নুরল হুদা মিলু চৌধুরী। আরো বক্তব্য রাখেন মানবাধিকার ফেযারেশনের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ শাহজাহান, ড. ফরিদউদ্দিন ফরিদ, অধ্যাপক ড অমিত আজাদ, আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, প্রকৌশলী মমিনুল ইসলাম প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন তালুকদার মনিরুজ্জামান মনির।#



 

Show all comments
  • md.shahalam kha ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:৩৩ এএম says : 0
    This ঠিক
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Ziaur Rahaman ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৩ এএম says : 0
    মহান রাব্বুল আলামিন আপনার কথাটি কবুল করুন।আমিন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mk Liton ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৩ এএম says : 0
    ইয়া আল্লাহ, "আনতা ছামিউন আলিম, আনতা কাহ্হার" আপনি ওনার এই কথাটা কবুল করুন।আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • Md Kawsar Ali ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৩ এএম says : 1
    সবাই জানে এই সরকারের আয়ু শেষ , সামনে আবার আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব নতুন সরকার গঠন করবে ইনশাহআল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ শহিদুল ইসলাম ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৪ এএম says : 1
    চলার পথে লাঠি যার এক মাএ ভরসা সে বলে সরকারের আয়ু শেস।.... হাশ্যোকর বাণী।
    Total Reply(0) Reply
  • ফি নিক্স ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৫ এএম says : 1
    জ্বি ৩০ তারিখের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে পুনরায় সরকার গঠন করবে আওয়ামীলীগ। তাই বর্তমান সরকারের আয়ু ৩০ তারিখ পর্যন্ত।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Foyes Ahamed Manik ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৬ এএম says : 0
    সুষ্ট ভোট হলে ১০০% হেরে যাবে
    Total Reply(0) Reply
  • Nasir Uddin ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৭ এএম says : 0
    অনেক আশার কথা। খুশি হলাম শুনে, সত্যি যেনো হয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Khondaker Manik ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৪১ এএম says : 1
    ক্ষমতার লোভ একজন উচ্চ মর্যাদা সম্পন্ন লোককে কতটা নিচে নামিয়ে দিতে পারে ডঃ কামাল হোসেন সাহেব তার জলন্ত প্রমাণ...
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:১৬ এএম says : 0
    আপনি বলিয়াছে। ইনশাআল্লাহ। ********* আমি শতভাগ আশাকরি জালীম ধংস হইবে৷ ওদের অবস্থা হইবে পাক হানাদারদের মতো। ইনশাআল্লাহ। *********
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২৮ এএম says : 0
    ড; কামালহোসেন আপনি বেঈমানীদের আতংকে পরিণত হইয়াছেন ওদের সময় শেষ ওদের পালানোর দরকার। কত খোন কত গুম করিলো জবাব দিতে পারিবে না। ওরা হচ্ছে আমাদের দেশের জন্য লজ্জা। সীমান্তের খবর রাখে না। দেশকে করিয়াছে সাংঘাতিক অপমান। জাগো জাতি মারো লাতি সকল জাতীয় বেঈমান । ইনশাআল্লাহ। **--*****
    Total Reply(0) Reply
  • Engr Amirul Islam ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৫:৫৯ এএম says : 0
    in sha Allah people will dump this ............ by voting against them
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতীয় সংসদ নির্বাচন

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ