Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯ মাঘ ১৪২৫, ১৫ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

ড. কামাল হোসেনের ধানের শীষ, জামাতেরও ধানের শীষ- তোফায়েল আহমেদ

ভোলা জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৮:১৮ পিএম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোলা - ১ আসনের আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ নির্বাচনী পথ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বিকাল ৫ টায় ভোলা সদর উপজেলার ভেলুমিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত ভেলুমিয়া বাজারে অত্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম মাস্টারের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাণিজ্যমন্ত্রী আলহাজ্ব তোফায়েল আহমেদ এমপি। এ সময় তিনি বলেন আসন্ন নির্বাচন অংশ গ্রহনমুলক হবে। এই নির্বাচন মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধের নির্বাচন। ড. কামাল হোসেন বঙ্গবন্ধুর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন।তিনি আজ ক্ষমতার লোভে নীতি পরিবর্তন করে দল পরিবর্তন করেছে। আজ সেই কামাল যুদ্ধাপরাধীদের সাথে হাত মিলিয়েছে। ড. কামাল হোসেনের ধানের শীষ যুদ্ধাপরাধী জামাতেরও ধানের শীষ।আমি তাদের ধিক্কার জানাই। ক্ষমতা বড় নয়, এমপি বড় নয় আমার কাছে আত্ম মর্যাদাই বড়, নীতি আদর্শই বড়। এ সময় তিনি আরও বলেন আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হচ্ছেন গোলাম নবী আলমগীর। যিনি তার নিজের কোন কাজের জন্য আমাকে ফোন করে আমি করে দেই। যে নিজের কাজ নিজে করতে পারে না সে মানুষের কাজ করবেন কি করে। তিনি আমার ভাগ্নে মনিরের কাছে পৌরসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে হেরে গেছেন।সে হয়েছেন এমপি প্রার্থী। আমার মনে হয় সে এমপি প্রার্থী না হলে বেশী খুশি হতেন।শুনেছি পার্থ এখানে প্রার্থী হবেন সেও পালিয়ে গিয়েছে। তিনি বলেন আমরা যে উন্নয়ন মূলক কাজ করেছি তাতে আগামী নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কার প্রার্থীকে ভোট দিয়ে বিপুল ভোটে জয়যুক্ত করবেন আপনারা। আগামী নির্বাচনে আমাকে ভোট দিবেন। এ সময় তিনি বলেন আমরা অআপনাদের সারা বছর দেই আর আপনারা আমাকে একদিন দিবেন। আপনারা আমার থাকবেন আমি আপনাদের থাকব।
সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আঃ'লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মমিন টুলু,সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, জেলা আঃ'লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা অা'লীগ সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম গোলদার ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ ইউনুছ,ব্রাদার্স নেভিগিয়েশনের পরিচালক মোঃ ছালাউদ্দিন মিয়া, ভোলা চেম্বার্সের পরিচালক ও জেলা আঃ'লীগ ত্রান ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম সফি প্রমুখ।



 

Show all comments
  • রিপন ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১১:২৬ পিএম says : 0
    কালের পরিক্রমায় সবই বদলায়। রুচি পছন্দও। সাবেক আওয়ামি লিগওয়ালা সুলতান মোহাম্মদ মনসুরের হাতেও আজ ধানের শীষ। ড. কামাল, জামায়াতের কথা ফলাও করে বলে বেড়ানো হলেও, মনসুরের কথাটি যে কেন সযতনে এড়িয়ে যাওয়া হলো, তা কিছুটা আন্দাজ করতে পারি, - থুথু ওপরের দিকে ছিটালে নিজের গায়েই পড়ে; এই আওয়ামি লিগ যে আর সেই আওয়ামি লিগ নেই, চরিত্র খুইয়েছে সর্বৈবভাবে - বিষয়টি চাউর হয়ে গেলে প্রেস্টিজ যে থাকে না! কিছুটা আন্দাজ করা যায় সত্যগোপনের নেপথ্যের এই কারণটিকে। ঘৃণাভরে পক্ষত্যাগী বাঘা সিদ্দীকির কথা বলে বেদনার বোঝা আর ভারী করলাম না। হতাশ ব্যথিত মনের জন্যে রইলো সান্ত্বনা, সমবেদনা। কী আর করা! ধানের শীষের ক্রেজ চলছে এখন দেশজুড়ে। যুগব্যাপী এত এত মারধোর, গ্রেপ্তার, গুম, খুন, ক্রসফায়ার, ব্রাশফায়ার, ওপার বাংলা, বুড়িগঙ্গা! - তারপরও দিন দিন বিস্তার লাভ করে চলেছে ধানের শীষ। দেখেশুনে মনে হচ্ছে, আজ ধানের শীষ বাংলার, বাংলা ধানের শীষের। মান্ধাতার আমলের ওই ইঞ্জিনবিহীন নৌকোয় মানুষের এখন প্রবল অরুচি, চড়া তো দূরের কথা, ফিরেও চায় না। আপডেট করে নৌকোয় ইঞ্জিন লাগিয়ে খানিকটা আধুনিক যুগোপযোগী ডিজিটাল করে তোলা যায় না? গলুইয়ে দু' চার গোছা ধানের শীষ গুঁজে দিলে মানুষকে নৌকার দিকে ফেরানো সহজ হয়ে যাবে হয় তো বা। তাজা ঘায়ে নুন ছিটানো বলে যদি মনে করা না হয়, তবে বলি, লাঙল আর ধানের শীষকে তো মাঠে অনেক কাছাকাছি দেখি, চূড়ান্ত ফায়সালাকারী ময়দানেও যদি কাছাকাছি, মানে, এক সমতলে এসে যায়? না না না, অযথা মনোকষ্টে ভোগার কোনই কারণ নেই। স্রেফ সম্ভাবনার কথা বললাম মাত্র। রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই - এমন একখানি আপ্তবাক্য চালু আছে কিনা?
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ