Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নের চতুর্থ প্রকল্পে অনুদান দিচ্ছে জাপান

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নের চতুর্থ প্রকল্পে (পিইডিপি ৪) ৫০০ মিলিয়ন জাপানিজ ইয়েন বা প্রায় ৩৭ কোটি টাকা অর্থ সাহায্য দিচ্ছে জাপান সরকার। অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে (ইআরডি) গত ১০ ডিসেম্বর এই বিষয়ে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। দুই দেশের পক্ষে এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন ইআরডি সচিব মনোয়ার আহমেদ ও বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোইয়াসু ইজুমি। প্রকল্পের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন জাইকা বাংলাদেশ অফিসের প্রধান প্রতিনিধি হিটোশি হিরাতা।
২০০০ সাল থেকে বাংলাদেশ সব ধরনের শিক্ষার ক্ষেত্রেই আকর্ষক ফলাফল অর্জন করেছে। বাংলাদেশে প্রাথমিক শিক্ষায় উন্নয়নের জন্য কৌশলগত পরিকল্পনা প্রণয়নে জাতীয় পর্যায়ে একমাত্র প্রতিষ্ঠান ‘পিইডিপি’। ২০১১ সাল থেকে সেক্টর ওয়াইড অ্যাপ্রোচ (সোয়াপস) -এর অধীনে অন্যান্য উন্নয়ন অংশীদারদের সহযোগিতায় জাপান পিএইডপিকে সহায়তা করছে। ‘পিইডিপি৩’ এর অধীনে বেশ কয়েকটি কার্যক্রম বাস্তবায়িত হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় ২ কোটি ৫০ লাখ শিক্ষার্থীকে পরিমার্জিত পাঠ্যবই বিতরণ করা হয়েছে। প্রায় পাঁচ লাখ শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে। পঁচিশ হাজারের বেশি শ্রেণিকক্ষ নির্মিত হয়েছে। ‘পিইডিপি৪’র লক্ষ্য হচ্ছে পাঠদান পদ্ধতির উন্নয়নের মাধ্যমে শিক্ষার মান উন্নত করা।
সকলের জন্য প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে জাপান সহায়তা প্রদান করছে। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে, শিক্ষা নীতিমালা শক্তিশালীকরণ, পাঠ্যপুস্তক ও শিক্ষা উপকরণের উন্নয়ন, স্কুল পরিচালনাকে শক্তিশালীকরণ এবং শিক্ষকের উন্নত প্রশিক্ষণ প্রদানের পাশাপাশি এইসব প্রকল্পে অর্থায়নসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। জাপান প্রযুক্তিগত সহযোগিতার মাধ্যমে শিক্ষার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে, জাপানি স্বেচ্ছাসেবক এবং নীতি পরামর্শদাতাদের সাথে সোয়াপস একত্রে কাজ করে অর্থ সহায়তা সমর্থন দেয়, কারণ সরাসরি কার্যক্ষেত্রে যারা থাকে তাদের মতামত জাতীয় পর্যায়ে নীতিনির্ধারণে সহায়তা করতে পারে।



 

Show all comments
  • ডি,সি,পি ২১ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:৩৮ এএম says : 0
    ৩৬ নং অর্জুনগাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দুপচাঁচিয়া,বগুড়া।স্যার মহোদয়ের কাছে আকুল আবেদন সীঁমানা প্রাচীর খুব প্রয়োজন ছিল ছাএছাএীদের নিরাপত্তার জন্য.....................।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ