Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৭ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

হাঁটু ব্যথায় পরামর্শ

| প্রকাশের সময় : ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

প্রশ্ন : শুরুতে জানতে চাই হাঁটু ব্যথার সাধারণ কারণগুলো কি কি?
উত্তর : হাঁটু ব্যথা খুব প্রচলিত একটি শব্দ। আমাদের বয়স চল্লিশের ওপরে হলে যেমন চুল পেকে যায়, তেমনীভাবে বয়সের সঙ্গে সঙ্গে হাড়ের একটি ক্ষয় হতে থাকে। হাড় ক্ষয় হওয়ার যে ম‚ল কারণ, যাকে আমরা অস্টিওআর্থ্রাইটিস বলি, বেশির ভাগ রোগীই এ কারণে হাঁটু ব্যথা নিয়ে আসে, বিশেষ করে বয়স বেড়ে গেলে। তা ছাড়া কিছু রোগী আমরা পেয়ে থাকি, যেমন খেলার ক্ষেত্রে, ফুটবলার, ক্রিকেটার, হকি খেলোয়াড়দের বেশির ভাগ ক্ষেত্রে লিগামেন্ট আহত হয়ে থাকে। খেলোয়াড়দের ম‚ল ব্যথার কারণ ক্ষয়জনিত নয়, লিগামেন্টে আহত হওয়া জনিত। কিছু ছোট শিশুর রিউমেটিক ফিভার থাকে, তাদেরও হাঁটু ফুলে যায়, ব্যথা হয়।
প্রশ্ন : হাঁটু ব্যথার ক্ষেত্রে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার ভ‚মিকা কতটুকু?
উত্তর : হাড়ের ক্ষয়জনিত যে হাঁটু ব্যথা হয়, এ ক্ষেত্রে জয়েন্টের মধ্যে যে সাইনোভিয়াল ফ্লুইড থাকে, সাধারণভাবে বললে গাড়ির চাকায় যে গ্রিজ থাকে, যেটা চাকাকে চলতে সাহায্য করে, এ রকম আমাদের জয়েন্টের ভেতরে যে সাইনোভিয়াল ফ্লুইড থাকে, এটা আমাদের চলাচলকে সহজ করে দেয়, বিশেষ করে নিচে বসতে। এটা সঠিকভাবে না করতে পারলে একজন রোগীর প্রতিদিনকার কাজ করতে অনেক অসুবিধা পোহাতে হয়। সে ক্ষেত্রে ফিজিওথেরাপির ভ‚মিকা অনেক বেশি। বিশেষ করে তার গিঁটের জায়গাটা কমে যায়। তখন এখানে জায়গাটা বাড়ানোর জন্য ফিজিওথেরাপি রয়েছে। এটি খুব ভালো একটি চিকিৎসা। আমরা রোগীদের ম্যানুয়াল থেরাপি নিতে বলি। কিছু ব্যায়াম আছে, যেগুলো রোগীদের জায়গাটি বাড়ানোর ক্ষেত্রে কাজ করে, আমরা ম্যানুয়ালি সেটা করে দিই। এ ছাড়া আরেকটি বিষয় খুব গুরুত্বপ‚র্ণ। আমরা পা সোজা করলে সেখানেও কিছু পেশি জড়িয়ে থাকে। আমরা এই হাঁটু যদি সোজা করতে না পারি, সে ক্ষেত্রেও ব্যথা হতে পারে। সে ক্ষেত্রে পেশির শক্তিকে বাড়িয়ে দিতে হবে।
প্রশ্ন : ফিজিওথেরাপির মাধ্যমে কি মাংসপেশীর শক্তি বাড়ানো সম্ভব?
উত্তর : এটি খুব সহজ পদ্ধতি। কিছু ব্যায়াম আছে, রোগী খুব সহজে করতে পারেন। এখানে কিছু শক্তি সঞ্চয় করার ব্যায়াম আছে, সেগুলো করাই। মাধ্যাকর্ষণের বিরুদ্ধে কিছু ব্যায়াম করাই। রোগী সহজেই এটি করতে পারেন। এর পর ধীরে ধীরে পেশির শক্তি বাড়ানোর জন্য আমরা কিছু ওজন দিয়ে থাকি। আরো কিছু পদ্ধতি রয়েছে, এগুলো দিয়ে খুব সহজে ব্যায়াম করা যায়।
প্রশ্ন : শিশুদের ক্ষেত্রে বলছিলেন, রিউমেটিক ফিভারের সময় হাঁটুতে যে ব্যথা হয়, সে ক্ষেত্রে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা কি ?
উত্তর : এখানে রোগটির কারণে জয়েন্টগুলো ফুলে যায়। ফুলে যাওয়ার কারণে ব্যথা হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে গরম ও ঠান্ডাথেরাপি রয়েছে, সেই থেরাপি দিলে ফোলা ভাবটা কমে যায়। পেশি নড়াচড়া না করার কারণে দুর্বল হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে কিছু স্ট্রেটিক কোয়াড্রিসিভ স্ট্রেন্দেনিং ব্যায়াম করতে বলি। পাশাপাশি কিছু ওষুধ খেতে হয় ।
প্রশ্ন : আপনি বলছিলেন, অষ্টিওআথ্রাইটিসে জয়েন্ট স্পেস কমে যায়, সে ক্ষেত্রে আপনারা কীভাবে জয়েন্ট স্পেস তৈরি করেন?
উত্তর : আমরা ম্যানুয়াল থেরাপিতে এক ধরনের ট্রাকশন ব্যবহার করি। ট্রাকশন মানে টানা, জয়েন্ট স্পেস বা গেপ বাড়িয়ে দেওয়া। তবে আমরা ট্রাকশন দিয়ে জায়গা বাড়িয়ে দিলাম, আবার আগের জায়গায় ফিরে এলো, তাহলে তো লাভ নেই। সবচেয়ে যেটি গুরুত্বপ‚র্ণ সেটি হলো, তার পেশির শক্তিকে বাড়ানো যেন যাতে জয়েন্ট স্পেস ঠিক থাকে । এ জন্য প্রয়োজনীয় ব্যায়াম করতে হবে।
প্রশ্ন : কত দিন পর্যন্ত এই চিকিৎসা আপনাদের করতে হয়?
উত্তর : রোগের জটিলতার ওপর চিকিৎসা নির্ভর করে। কিছু রোগীর ক্ষেত্রে দুই থেকে তিন সপ্তাহের মধ্যে ভালো হয়ে যায়। আবার কিছু রোগীর ক্ষেত্রে একটু দীর্ঘ সময় লাগে। অনেকে দেখা যায়, অনেক দেরি করে আমাদের কাছে আসে।
প্রশ্ন : তাহলে কখন আসা উচিত, সেটি একটু জানতে চাই?
উত্তর : আসলে হাঁটু ব্যথার ক্ষেত্রে শুরুতেই ফিজিওথেরাপি চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত। কারণ, ব্যথানাশক ওষুধের তো অনেক ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। আমরা সাময়িকভাবে ওষুধ খেতে বলি। তবে দীর্ঘমেয়াদি খেলে লিভার, কিডনি এগুলোর অনেক ক্ষতি হতে পারে। এ জন্য সাময়িক প্রদাহ দ‚র করার জন্য এক সপ্তাহ, দুই সপ্তাহ ব্যথার ওষুধ খেল, পাশাপাশি ফিজিওথেরাপি শুরু করল। ব্যথার প্রথম দিন থেকেই ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা শুরু করা প্রয়োজন।
প্রশ্ন : ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা অনেক দিন ধরে নিতে হয় বলে এর প্রতি একটি অনীহা আমাদের মধ্যে থাকে, সেটি কেন?
উত্তর : আসলে অনেকে মনে করেন যে একটা ইনজেকশন দিয়ে দিলাম, ব্যথা কমে গেল, তাহলে কেন ১৪ দিন, ১৫ দিন ফিজিওথেরোপি নেব? আসলে হঠাৎ কোনো কিছুই ভালো নয়। আমরা যেটা মনে করি, হয়তো সাময়িকভাবে একটি ব্যথানাশক ওষুধ খেল ব্যথা কমে গেল, তবে তার যে সমস্যা এর তো কোনো সমাধান হলো না। ম‚ল যে কারণে তার ব্যথা হচ্ছে, সেটিকে কমানো তার ম‚ল কাজ। এ ক্ষেত্রে প্রথমে রোগীকে কাউন্সেলিং (পরামর্শ) দেওয়া জরুরি। বিশেষ করে তার রোগ সম্বন্ধে তাকে জানিয়ে দেওয়া। যে আপনার এই সমস্যা হয়েছে, এটি সারিয়ে তুলতে এ ধরনের চিকিৎসা লাগবে। অনেকের কাছে মনে হতে পারে, দুই সপ্তাহ কষ্ট করব? আসলে দুই সপ্তাহ কষ্ট করে যদি সারা জীবন ভালো থাকা যায়, এটার জন্য ত্যাগ করতে হবে।
প্রশ্ন : হাঁটু ব্যথার ক্ষেত্রে, বিশেষ করে প্রবীণ বয়সে অনেকে সার্জারি করার পরামর্শ দেন। সে ক্ষেত্রে সার্জারি করতে হয়, নাকি ফিজিওথেরাপি দিয়ে ভালো হয়ে যায় ? আপনার মত কী ?
উত্তর : এটি আসলে নির্ভর করছে রোগীর রোগের জটিলতার ওপর। কিছু কিছু ক্ষেত্র থাকে, যখন সার্জারি ছাড়া বিকল্প নেই। কিছু অবস্থা থাকে, ওখানে জোড়া বদলানো ছাড়া উপায় থাকে না।
প্রশ্ন : সে ক্ষেত্রে সার্জারির পর কি ফিজিওথেরাপি কোনো ভ‚মিকা পালন করে?
উত্তর : আসলে অস্ত্রোপচারের আগে ও পরে দুই জায়গাতেই ফিজিওথেরাপির ভ‚মিকা রয়েছে। বিশেষ করে তার পেশির শক্তি ঠিক না থাকলে অস্ত্রোপচার করেও সে হাঁটতে পারবে না। কারণ, ওখানে একটি কৃত্রিম ইমপ্লান্ট লাগিয়ে দেওয়া হবে। তবে সম্প‚র্ণ কার্যক্রম আগের মতোই রয়ে গেল। আগের মতো তার পেশির শক্তি যদি ঠিক না থাকে, সে হাঁটতে পারবে না।

ডাঃ এম ইয়াছিন আলী
বাত, ব্যথা ও প্যারালাইসিস রোগে ফিজিওথেরাপি বিশেষঙ্গ
কনসালটেন্ড ও বিভাগীয় প্রধান - ফিজিওথেরাপি বিভাগ
প্রো-অ্যাকটিভ মেডিকের কলেজ ও হাসপাতাল,
চীফ- কনসালটেন্ড, ঢাকা সিটি ফিজিওথেরাপি হাসপাতাল, ধানমন্ডি, ঢাকা। মোবাঃ ০১৭৮৭১০৬৭০২

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন