Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯ মাঘ ১৪২৫, ১৫ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

ব্যারিস্টার খোকনকে গুলি ইসিতে ছেলের অভিযোগ

১২ ঘণ্টার মধ্যে ওসি প্রত্যাহার ও বিচার দাবি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০৬ এএম

বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহাবুব উদ্দিন খোকনকে গুলি করার জন্য নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার(ওসি) বিচার দাবি করা হয়েছে। এ ঘটনার জন্য সেখানকার ওসি আবদুল মজিদ সরাসরি হত্যা চেষ্টার সঙ্গে জড়িত জানিয়ে ১২ ঘন্টার মধ্যে তাকে প্রত্যাহার করে বিচারের মুখোমুখি করার দাবি জানিয়েছেন খোকনের ছেলে ব্যরিস্টার সাকিব মাহবুব।
গতকাল রোববার প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার কাছে দেয়া এক চিঠিতে এই দাবি জানানো হয়। চিঠিতে এ ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তও দাবি করা হয়। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন ও আবদুল মজিদসহ সেখানকার অনেক নেতাকর্মীকে ছররা গুলি ছুড়ে আহত করেন ওসি আবদুল মজিদ। শনিবার বিকালে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি সদরে এ ঘটনা ঘটে। তাকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নোয়াখালী-১ (চটাখিল-সোনাইমুড়ী একাংশ) আসনে বিএনপির প্রার্থী মাহবুব উদ্দিন খোকন। এছাড়া তিনি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক।
নির্বাচন কমিশনের কাছে দেয়া চিঠিতে আরো উল্লেখ করা হয়, সেখানে মাহবুব উদ্দিন খোকন নির্বাচনি প্রচারনা শুরুর পর থেকেই পুলিশ বাধা নিয়ে আসছে। নেতা-কর্মীদের অবৈধভাবে আটক ও হয়রানি করা হচ্ছিল। সোনাইমুড়ী এলাকায় গণসংযোগ চালানোর জন্য গত ১৪ ডিসেম্বর পুলিশের সংশ্লিস্ট সবাইকে জানানো। হয় তারা বলেন কোনো বাধা দেয়া হবে না। ১৫ ডিসেম্বর সেখানে শান্তিপূর্ন গণসংযোগ শেষ করার পর পুলিশ তাদের মিছিলের পেছনে অবস্থান নেন। এরপর সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল মজিদসহ একদল পুলিশ সদস্য মিছিলের সামনে এসে অনবরত গুলবর্ষণ শুরু করে। ছররা গুলি তার থুতনিতে বিদ্ধ হয়। তিনি সাথে সাথে পেছনে ফিরলে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল মজিদ পুনরায় ছররা গুলি ছুড়লে মাহবুব উদ্দিন খোকনের পিঠে পাঁচটি ও হাতে দুইটি এবং বিভিন্ন স্থানে গুলিবিদ্ধ হয়। তার ব্যক্তিগত সহকারি ইকবাল হোসেন ও অন্যান্য কর্মী সমর্থক তাকে রক্ষার জন্য এলে পুলিশ তাদেরও লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে তারা গুরুতর আহত হন। পরে সবাইকে নোয়াখালী সদর জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। এ জন্য সোনাইমুড়ী থানার ওসিকে ১২ ঘন্টার মধ্যে প্রত্যাহার করে নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে তার বিচার দাবি জানাচ্ছি।

 



 

Show all comments
  • Saiful Islam ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:১৯ এএম says : 0
    বিজয়ের মাসে ড.কামাল সহ বিরোধী দলের উপর হামলা নির্যাতন ধরন দেখে মনে হয় তালেবানদের মতো গেরিলা যুদ্ধে নেমেছে রাষ্ট্র এবং আওয়ামীলীগ। যার বতর্মান নাম রাষ্ট্রীয় জঙ্গিলীগ।
    Total Reply(0) Reply
  • Jamil Helal ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২০ এএম says : 0
    শুধু প্রত্যাহার করলে হবে না তার উপযোক্ত শাস্তি দাবি জানাচ্ছি।
    Total Reply(0) Reply
  • Mufti Mahmud ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২০ এএম says : 0
    অামার একটা প্রশ্ন,দেশে এখন সরকার কে? এতদিন যারাছিল তারাতো ছিল অবৈধ সরকার।এখন যারা বিরোধী মতের বিরুদ্ধাচরন করছে তারাতো জংগী সন্ত্রসী,খুনি,হত্যাকারী,প্রকাশ্যে তাঁদের বিচার দাবি করি।
    Total Reply(0) Reply
  • Tasfia Jahan Mim ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২২ এএম says : 0
    ১০বছরে যাদের সরকারী চাকরী হয়েছে সবাই আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী " আর যাদের পদন্নোতি হয়েছে সবাই সরকার দলের
    Total Reply(0) Reply
  • Ferdous Mahmud ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২৪ এএম says : 0
    এই ওসি ভবিষ্যৎ কমিশনার
    Total Reply(0) Reply
  • Shohag Ahamed ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২৫ এএম says : 0
    এই নির্বাচন আওয়ামী লীগ বনাম বাংলাদেশ। সিদ্ধান্ত আপনার
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ