Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯ মাঘ ১৪২৫, ১৫ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

প্রশ্নবিদ্ধ ভুমিকায় ইসি

‘সেন্টার ফর গভর্নেন্স’ আয়োজিত সেমিনারে বিশেষজ্ঞরা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

 নির্বাচন কমিশনের ‘ভূমিকা’ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তুলেছেন সাবেক নির্বাচন কমিশনার, সাবেক সচিব, সাবেক পুলিশ কর্মকতা, রাজনীতিবিদ ও নির্বাচন পর্যবেক্ষকরা। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ সংসদ নির্বাচন আয়োজনে কমিশনের সক্ষমতা এবং সদিচ্ছার অভাবে ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ নিশ্চিত হচ্ছে না। সিইসি’র নতজানু কর্মকান্ড সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ইসিকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। গতকাল জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চ্যালেঞ্জ নিয়ে এই সেমিনারের আয়োজন করে ‘সেন্টার ফর গভর্নেন্স’। সেমিনারে অংশ নিয়ে বক্তারা আরো বলেন, দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন ‘টেস্ট কেস’ পরীক্ষায় ফেল করছে।
রাজধানীর পুরাতন এলিফ্যান্ট রোডে সংস্থাটির কার্যালয়ে আয়োজিত সেমিনারে বক্তারা নির্বাচন আয়োজনে কমিশনকে আন্তরিক ও সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণের আহŸান জানান। নয়তো ভোটকে কেন্দ্র করে সহিংসতা ও বিশৃঙ্খলার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা। সেমিনারে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন আয়োজন নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তত্ত¡াবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এম হাফিজউদ্দিন খান। তিনি বলেন, দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাবচন আয়োজন আমরা টেস্ট কেস হিসেবে নিয়েছি। ভেবেছি হয়তো সুষ্ঠু একটি নির্বাচন হবে। তবে এ নিয়ে নতুন করে কিছু বলার অপেক্ষা রাখে না। এখন ক্ষমতাসীনদের নির্বাচন হচ্ছে। নির্বাচন সময়ে ৩৫০ জন সংসদ সদস্যকে যে বেতন-ভাতা দিতে রাষ্ট্রের বিপুল পরিমান অর্থ ব্যয় হচ্ছে এটা রাষ্ট্রের অপচয়।
এম হাফিজউদ্দিন খান বলেন, নির্বাচন কমিশন এখন পর্যন্ত যে কার্যক্রম দেখিয়েছে, এখনই বলা যায় এই নির্বাচন কমিশন টোটালি ফেইলর। এটা নির্বাচন হওয়ার আগেই বলা যায়। তারা নাকি কিছু দেখে না, তারা বøাইন্ড। মাঠে-ঘাটে কী হচ্ছে তা তারা কিছুই দেখেন না। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন আমাদের ডেকেছিলেন। আমি সেখানে বলেছিলাম প্রধানমন্ত্রী যেখানেই যাচ্ছেন সেখানেই তিনি নির্বাচনি বক্তব্য দিয়ে ভোট চাচ্ছেন। অন্যান্য দলতো রাস্তায় বের হতেই পারে না। তাহলে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড কীভাবে হবে। তখন নির্বাচন কমিশন বললো শিডিউল ঘোষণার আগে আমাদের বলার কোনও ক্ষমতা নেই।
বর্তমান ইসি সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে দায়িত্ব পালন করছেন না মন্তব্য করে সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, বিভিন্ন এলাকায় এই যে মারামারি, একজন প্রার্থী গুলিবিদ্ধ, এটা বিবেচ্য না তিনি কোন দলের। তবে নির্বাচন কমিশনের যে দায়িত্ব, সেটি তারা প্রয়োগ করেননি। সিইসির কথাবার্তা শুনে মনে হচ্ছে এটা করবেন বলেও মনে হয় না। নির্বাচন কমিশন একচুয়ালি ডোন্ট নো, হাউ টু হ্যান্ডেল অ্যান্ড হাউ টু গো। মোদ্দা কথা আমরা কী দেখছি, যেটা দেখছি তা ভালো দেখছি না।
সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার মুহাম্মদ জমির বলেন, যে দলই জিতুক, নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার পরিস্থিতি ক্রিটিক্যাল। নির্বাচন কমিশনের কিছু দায়িত্ব আছে, তাদের উচিত ছিল সেগুলো পালন করা। কিন্তু তারা সম্পূর্ণভাবে পালন করেননি। নির্বাচন কমিশনের উচিত ছিল আরও সক্রিয়ভাবে সব কিছু করা। শুধু বললেই হবে না, যেখানেই ঘটনা ঘটুক দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।
সাবেক সচিব এ এইচ মোফাজ্জল করিম বলেন, নির্বাচন কমিশনের আচরণ পক্ষপাতমূলক। খুব আশা করেছিলাম রাজনীতিতে সুবাতাস বইবে। কিন্তু গত কিছুদিন ধরে যে ঘটনা ঘটেছে, এটা সহজে দমন করা যায়। এর দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের। নির্বাচন কমিশনকে কাজ করে দেখাতে হবে। এ নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা কি করে থাকবে। নির্বাচন কমিশনের নির্লিপ্ততা পক্ষপাতমূলক অবস্থানে চলে গেছে।
সেন্টার ফর গভর্নেন্সের নির্বাহী পরিচালক জিল্লুর রহমানের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে ‘কী নোট’ উপস্থাপন করেন সেন্টার ফর পিচ অ্যান্ড জাস্টিসের নির্বাহী পরিচালক ব্যারিস্টার মানজুর হাসান। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ পলিটিক্যাল সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ও সেন্টার ফর গভর্নেন্সের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এম আতাউর রহমান, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ডালি, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ আব্দুল মজিদ, ব্রতীর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন মুরশিদ, ফেমার প্রেসিডেন্ট মুনিরা খান, সাবেক প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরী, পুলিশের সাবেক মহাপরির্দশক এম ইনামুল হক, সেন্টার ফর গভর্নেন্সের ভাইস চেয়ারম্যান ড. মানজুর আহমেদ চৌধুরী, গণ সংহতির জোনায়েদ সাকী, বিএনপির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক সহকারী সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ড. মামুন আহমেদ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক আব্দুল লতিফ মাসুম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাহাব এনাম খান প্রমুখ।



 

Show all comments
  • Anisur Rahaman ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:১৮ এএম says : 0
    সিইসির কথা শুনলে মনে হয় উনি এখনো মায়ের কোলে বসে দুদু খান।
    Total Reply(0) Reply
  • Ahtashum Sagar ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:১৮ এএম says : 0
    Fight for your rights
    Total Reply(0) Reply
  • Nazmul Alom ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:১৯ এএম says : 0
    সংবিধান ইসিকে অসীম ক্ষমতা দিয়েছে। ইচ্ছা করলেই সকলের কাছে গ্রহনযোগ্য একটি ভালো নির্বাচন উপহার দিতে পারে। কিন্ত ইসির যখন সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার দুরাবস্থার কথা মনে পরে তখন ইচ্ছেটা ফিকে হয়ে যায় ভয়ে ইসি তার মাটি আর খুজে পায়না। তখন তার লখ্য থাকে কর্তার ইচ্ছাই কর্ম।
    Total Reply(0) Reply
  • Shahir Khan ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:১৯ এএম says : 0
    বিনা ভোটে একবার ক্ষমতায় এসেছি, আরও কয়েক বার আসতে চাই,জনগন ভোট দিলে দেবে না দিলে নাই,,আমিই পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী, আমার আবার এতো ক্ষমতার লোভ নাই।
    Total Reply(0) Reply
  • Tanvir Islam ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২০ এএম says : 0
    ইসির ঘরে মনে হয় বিটিভি চলে। তাই তিনি সব কিছু শান্ত দেখে
    Total Reply(0) Reply
  • Sk Ali ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২০ এএম says : 0
    হামলা মামলা করে ভোটের ফল পাল্টাতে পারে না, কারন ভোট দেয় সাধারন মানুষ। গুটিকয়েক হামলাকারির ভোটের জয় পরাজয় নিশ্চিত করেনা।যদি না প্রশাসন কারো পক্ষ না নেয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Taaniyaa Rahman ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২১ এএম says : 0
    তবুও সিইসি বলছে সব মিথ্যা | পরিবেশ শান্ত #সিইসি সাহেব যদি সিকিউরিটি ছাড়া একদিন সাধারণ মানুষে কাতারে আসতো তাহলো সিইসির চুল একটাও খুঁজে পাওয়া যেতো না
    Total Reply(0) Reply
  • Towhid Chowdhury ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২১ এএম says : 0
    নিবাচন কমিশনার বেহুদা আস্ত একটা জানোয়ার যে সত্য কথা বলাটাই ভুলে গেছে তার থেকে সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করা যায় না
    Total Reply(0) Reply
  • মিসির আলি ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২১ এএম says : 0
    আমাদের ইসি বিএমডব্লিউ এর ভিতরে বন্দী!!
    Total Reply(0) Reply
  • Abdullah Al Mamun ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২২ এএম says : 0
    Jiboner sesh boyeshe kichu valo kaj upohar dile jati shrodha vore shoron korbe
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Afsaruddin ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:২৩ এএম says : 0
    This Election commissioner is definitely turn a blind eye to the current situation . He is either a blind supporter of the government or his hands are tied and his eyes are blindfolded . How an ex top civil servant could be such big lier . Unbelieveable this gentleman have no shame to tell the nation pack of lies.
    Total Reply(0) Reply
  • Anayet hossain ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১০:১৪ এএম says : 0
    Behuda shaheb mone hoy 30 tarikhe nirbachon na holeo sonday declare korbe, ' vote sustu vabe hoyeche & league bojoyi hoyeche'
    Total Reply(0) Reply
  • Md.Faizul Islam ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৫:০৬ পিএম says : 0
    সিইসি বাংলাদেশকে সম্মানিত করতে চান।
    Total Reply(0) Reply
  • Md.Faizul Islam ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৬:৩৫ পিএম says : 0
    সিইসি বাংলাদেশকে সম্মানিত করতে চান।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ