Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ১৭ জুলাই ২০১৯, ০২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৩ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

আইজিপির কাছ থেকে এমন বক্তব্য মানুষ আশা করে না

| প্রকাশের সময় : ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

একাদশ জাতীয় নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে, জনমনে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাও তত বাড়ছে। বিরোধী দলের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় হামলা, সংঘর্ষ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক মামলা, গ্রেফতার এমনকি বিরোধী দলের বেশ কয়েকজন প্রার্থীর প্রার্থীতা স্থগিতসহ কয়েক প্রার্থীর কারাগারে থাকার বিষয়গুলো জনমনে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া নিয়ে সংশয় সৃষ্টি করেছে। নির্বাচনী মাঠের সর্বিক পরিস্থিতি যখন এমন, তখন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা ক্রমাগত বলে চলেছেন, ‘নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি হয়েছে’, ‘নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ বিরাজ করছে’ এবং সর্বশেষ বলেছেন, ‘দেশে নির্বাচনের সুবাতাস বইছে’। যদিও গত সপ্তাহে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বক্তব্যে দ্বিমত পোষণ করে বলেছেন, নির্বাচনে প্লেয়িং ফিল্ড বলে কিছু নেই। জবাবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেছেন, তার কথা সত্য নয়। এর জবাবে মাহবুব তালুকদার বলেছেন, আমার কথা অসত্য, একথা বলে সিইসি একজন নির্বাচন কমিশনারের অস্তিত্বে আঘাত হেনেছেন। দুইজনের এই পারস্পরবিরোধী বক্তব্য ও বিতর্ক নির্বাচন কমিশনের ভেতরকার অবস্থা উন্মোচিত করেছে। ওদিকে নির্বাচনী প্রচারণায় সংঘাত-সংঘর্ষের ঘটনা নিয়ে প্রায় প্রতিদিনই সংবাদপত্রগুলোতে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হচ্ছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বিরোধী দলের প্রচার-প্রচারণায় ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের হামলার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। নির্বাচন বিষেশজ্ঞরাও এ নিয়ে প্রতিদিন শঙ্কা প্রকাশ করে মন্তব্য প্রতিবেদন লিখছেন। নির্বাচনের সার্বিক এই পরিস্থিতিকে অনেকটা দেখে না দেখার মতো করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার নির্বাচন সুষ্ঠু হবে বলে বারবার বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হচ্ছে, তার এ কথার সাথে অনেকটা সুর মিলিয়ে আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেছেন, নির্বাচনে এখন পর্যন্ত যে পরিবেশ আছে, সেরকম শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় থাকলে জাতিকে একটি সুন্দর নির্বাচন উপহার দিতে পারবো। তার এ বক্তব্যও নির্বাচনী যে পরিস্থিতি তার সাথে সাংঘর্ষিক বলে পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন। তারা বলছেন, আইজিপি একজন সজ্জন ও ভদ্রলোক হিসেবে পরিচিত। তার উচিত বাস্তব পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে বক্তব্য দেয়া। তা না হলে, তার এ বক্তব্যকে ক্ষমতাসীন দলের রাজনৈতিক বক্তব্যের সাথে মানুষ তুলনা করবে।
বলা বাহুল্য, নির্বাচনের যে পরিবেশ এখন বিরাজমান তা সুষ্ঠু নির্বাচনের ক্ষেত্রে অন্তরায় হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। একটি শান্তিপূর্ণ ও অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠানে সব দলের জন্য যে সমান সুযোগ থাকা প্রয়োজন তা এখনও অনুপস্থিত। নির্বাচনকালীন এ সময়ে প্রধান বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের প্রচার-প্রচারণায় ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের বাধা ও হামলা এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক অধিকমাত্রায় মামলা ও গ্রেফতার নির্বাচনের পরিবেশকে সংঘাতপূর্ণ ও ভীতিকর করে তুলছে। অনেক জায়গায় বিরোধী দলের প্রার্থীদের এমন পরিস্থিতিতে পড়তে হচ্ছে যে, নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালানো দূরে থাক ভয় ও আতঙ্কে মাঠেই নামতে পারছে না। প্রায় প্রতিদিনই তাদের অসংখ্য নেতাকর্মীকে জামিন নিতে আদালতে হাজির হতে হচ্ছে। যারা গ্রেফতার হচ্ছে তাদের অনেককে জেলে পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে। এ থেকে প্রার্থীও বাদ যাচ্ছে না। আবার আদালতের আদেশে অনেকের প্রার্থীতাও আটকে যাচ্ছে। এক হিসেবে আদালতের আদেশে বিএনপির ১৭ প্রার্থী এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ২ প্রার্থীর নির্বাচন করা আটকে গেছে। নির্বাচনের সার্বিক এ পরিস্থিতি সুষ্ঠু নির্বাচনের অনুকূল নয় বলে পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন। সাবেক এক নির্বাচন কমিশনার তার এক মন্তব্য প্রতিবেদনে নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে লিখেছেন, বিরোধী প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণার ওপর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ বাধা আসছে। প্রায় প্রতিদিনই এ ধরনের বাধার অভিযোগ আসছে। এবারের মতো প্রার্থীদের ওপর এত হামলা আগে কখনো হয়নি। সারাদেশে বিরোধী প্রার্থীর সমর্থকদের আটক ও গ্রেফতার করা হচ্ছে। প্রার্থীদের ওপর এসব প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ বাধা নির্বাচনে প্রভাব ফেলতে শুরু করেছে। এটি নির্বাচনী ব্যবস্থাকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। এমন চলতে থাকলে চূড়ান্তভাবে ক্ষতির শিকার হবেন ভোটাররা। তারা ভীত ও শঙ্কিত হয়ে পড়বে। শুধু নির্বাচনী পর্যবেক্ষকই নন, দেশের নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ে বিদেশি সংবাদ মাধ্যমেও সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে। এএফপি তার এক প্রতিবেদনে বলেছে, হুমকি বাড়ায় বিরোধীরা আত্মগোপনে যাচ্ছে। অন্যদিকে অনুমতি দেয়ার ক্ষেত্রে ধীরগতির কারণে নির্বাচন পর্যবেক্ষণকারী বিদেশিদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশের বাংলাদেশে আসা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে বলে একটি দৈনিকের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। তার আগে নির্বাচন কমিশনের সচিব দেশি পর্যবেক্ষকদের ‘মূতির মতো দাঁড়িয়ে’ ভোটকেন্দ্র পর্যবেক্ষণের কথা বলেছেন। ভোটকেন্দ্রে সংবাদ সংগ্রহের ক্ষেত্রেও বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। নির্বাচনের দিন ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে দেয়ার কথাও বলেছে নির্বাচন কমিশন। দেখা যাচ্ছে, আগামী নির্বাচন অবাধ ও স্বতঃস্ফূর্ত করার প্রতিবন্ধক হয়ে উঠতে পারে যত ধরনের পদক্ষেপ, তার সবই নেয়া হচ্ছে। নির্বাচনের এ পরিবেশ কি একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের বার্তা বহন করে?
প্রধান নির্বাচন কমিশনার প্রতিনিয়ত নির্বাচনের যে সুষ্ঠু পরিবেশের কথা বলছেন, বাস্তবতার সাথে তার কোনো মিল নেই। একজন সাধারণ মানুষের মধ্যেও এখন এ ধারণা বদ্ধমূল, আগামী নির্বাচনটি ক্ষমতাসীন দলের নিয়ন্ত্রণে হতে যাচ্ছে এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনার তার সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন। তার কথাবার্তা ও আচার-আচরণে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাব প্রতীয়মাণ হচ্ছে। একইভাবে আইজিপিও বক্তব্য দিয়েছেন, যা অত্যন্ত দুঃখজনক। নির্বাচনের চলমান পরিবেশে পুলিশের ভূমিকা যে সমালোচিত হচ্ছে, তা তিনি এড়িয়ে যাচ্ছেন। আমরা মনে করি, তার যে ভাবমর্যাদা ও সুনাম, এর সাথে তার বক্তব্য সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। তার এ বক্তব্যে অতি উৎসাহী পুলিশ সদস্যরা আরও প্রশ্রয় পাবে, যা নির্বাচনের পরিবেশকে আরো অসমতল করে তুলতে পারে। তাই আশা করব, আইজিপি তার বক্তব্য সংশোধন করে নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও সবার জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টিতে পুলিশ বাহিনীকে নিরপেক্ষ ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে নির্দেশ দেন। বাস্তব পরিস্থিতি উপলব্ধি করে তিনি যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণে মনোযোগী হবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।



 

Show all comments
  • Rubel ২১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৯:১৬ পিএম says : 0
    Thats right
    Total Reply(0) Reply
  • Anwar Hossain ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৯:১০ এএম says : 1
    তিনি এধরনের মন্তব্য করতে বাধ্য হয়েছেন
    Total Reply(0) Reply
  • Md Fazlur Rahman ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১০:০৮ এএম says : 0
    All Right
    Total Reply(0) Reply
  • Shawon ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৪:০০ এএম says : 1
    অাওয়ামী লীগের এজেন্ডা ইসি মহাদয়ের দৃষ্টি অাকর্ষণ করছি লেভেল-প্লেয়িং ফ্লিল্ড বলতে নির্বাচন প্রচার-প্রচারণায় সবাইকে সমান সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা,,কিন্তু অতি দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে বলতে হয় অাপনি অাওয়ামী লীগের প্রচার অার প্রচারণা খুব অানন্দ সহকারে উপভোগ করছেন,কিন্তু বিরোধী দলগুলা যে মামলা,হামলা,হমকি-ধমকির কবলে মাঠ ছাড়া সেগুলা কি দেখেন? দেশের মানুষকে বোকা বানানোর পায়তারা করবেন না। সুস্থমত নিজ দায়িত্ব বলে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করে জনগণের অাস্থার প্রতিফলন ঘটাতে যথাযোগ্য দায়িত্ব পালন করেন।
    Total Reply(0) Reply
  • Helal Ahmed ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩২ এএম says : 1
    সে বিক্রি হয়ে যাওয়ার কারনে আবল তাবল বলছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Kausar Hamid Hamid Hamid ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৩ এএম says : 1
    আওয়ামী লীগের কাছে বিক্রি হয়ে গেছে.।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ আনিছুর রহমান মুকুল ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৩ এএম says : 1
    প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হয়েও প্রমাণ করলেন উনি হাসিনার চেয়েও বড় আওয়ামীলীগার।
    Total Reply(0) Reply
  • Akram Mymensingh ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৭ এএম says : 0
    বাংলাদেশ পুলিশের গর্ব আইজিপি স্যার সত্য কথা বলেছেন। চারদিকে চমৎকার পরিবেশ, বিশেষ করে ঢাকায় পরিবেশ খুব ভালো।
    Total Reply(0) Reply
  • Eyaqub ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৭ এএম says : 1
    আইজিপি যেহেতু বানিয়েছে! অতটুকু জী হুজুরপনাতো দেখাতেই হয়!!
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৮ এএম says : 1
    Bangladesh 4m facts for bad luck Modern police Modern politicians Modern journalist s Modern drivers
    Total Reply(0) Reply
  • SUJON KUMAR ROY ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৯ এএম says : 1
    নির্বাচনের এই চমৎকার সহিংসতার পরিবেশ তৈরী করার সম্পূর্ণ ক্রেডিট যায় বাংলাদেশ পুলিশের। আইনশৃঙ্খলার পরিস্থিতি বিগত যেকোনো সময়ের চেয়ে চমৎকার আছে। ধন্যবাদ মহামান্য আইজিপিকে ও বাংলাদেশ পুলিশ এবং সাথে সাথে ধন্যবাদ জানাই সকল প্রকার আইনশৃঙ্খলা প্রণয়নকারী সংস্থাকে।
    Total Reply(0) Reply
  • Shafiqul Islam ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৯ এএম says : 1
    Don't worry !! Surprise will come soon.
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৪০ এএম says : 1
    কিছু বলার নাই। নিজের উপর খুব রাগ হয় কেন এই দেশে জন্মালাম?
    Total Reply(1) Reply
    • m kasham ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৭:৫৯ এএম says : 1
      I am agree with your comment. This is our fault because we born this country. Now you have to wait to have the right person in the power every department.
  • Mohammed Shah Alam Khan ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৪১ এএম says : 1
    নির্বাচনী মৌসুমে প্রসাসন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী, ইসি, আদালত ইত্যাদির কাজ কর্ম দেখে কার ও মনে সন্দেহ হবার অবকাশ নাই যে নির্বাচন কেমন হবে। এর পর ও ভোটার যদি একত্রে ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হয় আমার বিশ্বাস অন্তত ৫০% ভোটার নিজের ভোট নিজে দিতে পারবে। যে মার্কায় দিক না কেন। ভোটারের উচিত হবে নিজ নিজ কেন্দ্রে প্রথম ভোট টা নিজে দেয়ার চেষ্টা করা। এতে দুর্বৃত্তরা অন্তত কম সুযোগ পাবে।
    Total Reply(0) Reply
  • আমিন মুন্সি ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৪২ এএম says : 0
    I can not understand, how can this type of people be an IGP???!!!!!!!! They are blind.............
    Total Reply(0) Reply
  • গোপাল ঘোষ ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৪২ এএম says : 0
    মাঝে মাঝে নিজেকে নিয়ে ধন্দে পরে যাই। পাগল হলাম না তো? চোখে দেখি এক জিনিস, আর আমাদের জ্ঞানীগুনী বলেন ঠিক তার উলটা।
    Total Reply(0) Reply
  • রিপন ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৪৩ এএম says : 1
    @ IGP Zabed, Please respect your post. Corrupt, illiterate and political dialogue shouldn't go with you. Please see yourself in the mirror & serve the country that people deserve from you. Some politicians lie a lot for some period of time & they escape. You are the asset of BD government of the people, by the people and for the people.
    Total Reply(1) Reply
    • রিপন ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৯:৫৫ পিএম says : 0
      একই নামে দুজন মন্তব্যকারী হলে কার মন্তব্যের জন্যে কে দায়ী হবে? ইনকিলাবের সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্ত ভাই, বিষয়টির সুরাহা করবেন আশা করি।এখানে পুলিশ বিষয়ে যে চিত্রটি ফুটে উঠেছে সে বিষয়ে আমি ভিন্নমত পোষণ করি। .....................
  • mohammed hashem ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:১১ পিএম says : 1
    Bastard IGP
    Total Reply(0) Reply
  • Shameem ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১১:৪৪ এএম says : 1
    ন্যায় থাকলে দেশে আজ অন্যায় থাকতোনা...!!
    Total Reply(0) Reply
  • শফিউর রহমান ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:১৮ পিএম says : 1
    জী হুজুর জী হুজুর । এটাকি আমাদেরকে গোলামি করার সামিল নয় । যে ভাবেই হওক তারাতো প্রজাতন্তের উচ্চপদস্ত একজন ব্যাক্তি । যস সম্মান দুটোই তাদের হয়েছে । তাহা হলে কেন স্বাধীন দেশের মানুষ হয়ে আমরা পরাদিনের মত বাস করবো । কেন সবাইকে সমান সুযোগ থেকে বন্চিত করবো । কত টাকা হলে এরা তাদের সঠিক মত প্রকাশ করবে? এবং সাধারন মানুষকে স্বাধীন মত প্রকাশের সূযোগ দিবে। ভিন্ন মতের লোক থাকবেই এরাতো এদেশের সন্তান আপনার আমার ভাই ভোন । দয়া করে বলব আর কোন বাবা মার ভূক জেন খালি না হয় এমন মন্তব্য থেকে বিরত থাকবেন আশা করি ।
    Total Reply(1) Reply
    • Mohammed Shah Alam Khan ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৯:১০ পিএম says : 0
      ভাই শফিউর রহমান,দেশ এখন অপশক্তির হাত থেকে মুক্তি চায়... কাজেই প্রশাসনকেই এই অপশক্তিকে প্রথা বা আইন অনুযায়ী প্রতিহত করতেই হবে... আবার প্রশাসনকে, কাটা দিয়েই কাটা তুলতে হবে এটাই প্রথা নয় কি?? এখন আমাদেরকে বুঝতে হবে প্রশাসন কি করছে এবং কেন করছে তাহলেই আর কোন প্রশ্ন থাকবেনা আশা করি।আল্লাহ্‌ বলেছেন, কোন কিছু করার আগে সেটাকে ভাল ভাবে বুঝে তারপরই ব্যাবস্থা গ্রহণ করতে হবে। আল্লাহ্‌ আমাদেরকে কোরআন পড়ে বুঝার এবং সেই ভাবে জীবন যাপন করার ক্ষমতা দিন। আমিন
  • Mohammed Shah Alam Khan ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:২৯ এএম says : 0
    আমার নাম Mohammed Shah Alam Khan এবং এই পাতায় করা একটা মন্তব্য সেটাও আমারই নাম তবে আমি নই। একই নাম দুজনের হতে পারে এটা মানতেই হবে তবে আমার মনে হয় এখানে প্রশাসনকে মানে পত্রিকার প্রশাসনকে একটু সতর্ক হতে হবে সেটা এখন আমি যেহেতু আগে থেকেই এই নামে লিখছি আমাকে আমার নামের পাশে (১) দিয়ে তার নামের পাশে (২) দিয়ে বা আমার নামের পাশে কিছুই নয়া দিয়ে তার নামের পাশে সংখ্যা দিয়ে দিতে হবে নয়ত এখানে আমাকে যারা চেনেন তারা ঐ নামের মন্তব্যকে আমার মন্তব্য হিসাবে ভেবে নিবে এটা সঠিক নয়। আবার ঐ ব্যাক্তি যদি আমার নাম ঠিকানা ব্যাবহার করে থাকে তাহলে এটা আমার পাতা মিথ্যাভাবে ব্যাবহার করছে যেটা আইনের অপরাধ। কাজেই আমি পত্রিকার নিকট অভিযোগ দিব সেক্ষেত্রে ঐ নামের লিখা বন্ধ করা।
    Total Reply(0) Reply
  • Osman Goni ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১১:১৭ পিএম says : 0
    niropokkota bojai rakhun doiya kore
    Total Reply(0) Reply
  • Raihan ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৮:৪৭ পিএম says : 0
    Sir i am praud of u
    Total Reply(0) Reply
  • ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৮:৪৯ এএম says : 0
    বিএনপির কোন দিনও নির্বাচন করার পরিবেশ পাবে না,কারন তাদের দলের নাম নালিশ পাটি, আর যারা নালিশ পাটির সাথে জরিত তারা তো প্রশাসনের নামেও নালিস করবে।আসলে নিজের দোষটা বলি না অন্যের দোষ দিতে পারলেই বাচি। সারা দেশে আজ নির্বাচনের আমেজ বইছে আর নালিশ পাটি নালিশ করতে করতে হাপাচ্ছেঁ।
    Total Reply(0) Reply
  • Mofiz ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২:০০ পিএম says : 0
    হাসিনার ....গোলাম।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতীয় সংসদ নির্বাচন

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন