Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ০৪ ভাদ্র ১৪২৬, ১৭ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

পুলিশ-র‌্যাব-বিজিবি ব্যর্থ হলে কাজ করবে সেনাবাহিনী -ইসি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৪:৩৭ পিএম

নির্বাচনে সশস্ত্রবাহিনী স্টাইকিং ফোর্স হিসেবে নয়, সিআরপিসির ১২৭ থেকে ১৩২ ধারা অনুযায়ী তারা দায়িত্ব পালন করবে। নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি ব্যর্থ হলে তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সশস্ত্রবাহিনী কাজ করবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদত হোসেন চৌধুরী।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন ভবনে কন্ট্রোল রুমে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। শাহাদত হোসেন আরও বলেন, একদিনে ২৯৯ আসনে নির্বাচন করাই বড় চ্যালেঞ্জ। তবে সুষ্ঠুভাবেই নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার সব প্রস্তুতি নেয়া আছে।

তিনি বলেন, নির্বাচনের জন্য ইসিতে স্থাপিত কন্ট্রোল রুম থেকে তিনশ’টি আসনের সরাসরি তদারকি করা হবে। কোনও ধরণের ঘটনা কোনও কেন্দ্রে ঘটলে এখন থেকে সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

নির্বাচন কমিশনার বলেন, ৬টি আসনে ইভিএম মেশিন ইতোমধ্যে পৌঁছে গেছে। এখন চলছে মক ভোটিং। সার্বিক দিক থেকে আমাদের প্রস্তুতি ভাল। পুরো নির্বাচনে প্রায় ৫ লাখের বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

এ সময় এনআইডি ডিজি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলামও উপস্থিত ছিলেন। পরে মেজর রাজু আহমদ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কিভাবে মোতায়েন করা হয়েছে তা মানচিত্রের মাধ্যমে তুলে ধরেন।

ধানের শীষ প্রতীকের ২২ প্রার্থীর ব্যাপারে জানতে চাইলে ব্রিগেডিয়ার (অব.) শাহাদত হোসেন চৌধুরী বলেন, আদালতের আদেশ আমাদের মেনে চলতে হবে। শেষ মূহুর্তে যে আদেশ আসবে সে অনুযায়ী কাজ করবো। সেভাবে আমাদের প্রস্তুতিও রয়েছে। তিনি বলেন, নির্বাচনে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি আছে বলে আমি মনে করি না। রাজনৈতিক চাপ ও উত্তেজনা বিরাজ করতে পারে।



 

Show all comments
  • Mohammad Ayub ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৬:০৪ পিএম says : 0
    পুলিশ-র‌্যাব-বিজিবি আওয়ামী লীগের একান্ত অনুগত কর্মীর মতো দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। তারা কখনও ব্যর্থতার পরিচয় দেবে না। লাখো শহীদের রক্তে কেনা বাংলা মায়ের কোটি সন্তানের আশা আকাংখাকে পদদলিত করে তারা ব্যক্তি স্বার্থের মোহে অন্ধ। কাজেই ইসি সাহেব স্বগোত্রীয় এই বাহিনী গুলোর উপর ষোল আনা ভরসা রেখে নাকে সরিষার তেল দিয়ে নিঃচিন্তে ঘুমায়ে নিতে পারেন এবং ৩০শে ডিসেম্বর রাতের বেলায় ঘোষনা দেয়ার জন্য যে নির্বাচনী ফলাফলের পেপার গুলো ইতিমধ্যেই হাতে পেয়েছেন, সেগুলোতে কোন বানান ভুল আছে কিনা দেখে নিতে পারেন। কারণ নাটকের স্ক্রীপ্টে অনেক ভুল ত্রুটি থাকার সম্ভাবনা থাকে। জনগনের করের কোটি কোটি টাকা অপচয় করে রোড় শো করার জন্য সেনাবাহিনী নামানোর কোন দরকার ছিল না। সেনানিবাসের মধ্যে আয়েসে দিন কাটাতে অভ্যস্ত সেনাবাহিনীকে শুধু শুধু মশার কামড় খাওয়ানোর জন্য রাস্তায় নামিয়ে এনে ডিস্টার্ব করার মানে হয় না। আমি এর প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অনতিবিলম্বে উনাদেরকে বেড রুমে ফেরৎ পাঠানোর দাবি জানাচ্ছি।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতীয় সংসদ নির্বাচন


আরও
আরও পড়ুন