Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৩ কার্তিক ১৪২৬, ১৯ সফর ১৪৪১ হিজরী

মসজিদের ওপর কর বসাবে জার্মানি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১১:৪৭ এএম

জার্মানে নতুন একটি ‘মসজিদ কর’ বসানোর কথা ভাবছে দেশটি। বলা হচ্ছে, দেশটির মুসলিম সম্প্রদায়কে স্বাবলম্বী এবং তাদের ওপর নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে জার্মান সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। খবর রাশিয়া টুডের।

জার্মানির অনেক মসজিদই বিদেশি অর্থায়ন ও নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হয়। তাই মসজিদের ভেতর কী ঘটছে তা নিয়ে অন্ধকারে রয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। এখন কয়েকজন জার্মান এমপি একটি আইডিয়া বের করেছেন, তারা এটিকে ওই সমস্যার ‘সমাধান’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

পার্লামেন্টের একাধিক এমপি এটির সমাধান হিসেবে মসজিদের ওপর কর বসানোর প্রস্তাব দিয়েছেন। তাদের প্রস্তাব মতে, জার্মানির প্রত্যেক ধর্মপ্রাণ মুসলিম এ বিশেষ কর দেবেন। সেই করের অর্থ সরকারের কাছে নিবন্ধিত ইসলামি সংগঠনগুলোকে বিতরণ করা হবে। জার্মানিসহ ইউরোপের আরও কয়েকটি দেশে একইভাবে ক্যাথলিক এবং প্রোটেস্ট্যান্ট খ্রিস্টানদেরও কর দিতে হয়।

জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেলের ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) দলের উপপ্রধান থোরস্টেন ফ্রেই বলেন, প্রাথমিকভাবে জার্মানির মুসলমানদের বাইরের দেশের প্রভাবমুক্ত রাখা সম্ভব হবে এমন সিদ্ধান্তের কথা ভাবছি আমরা। এ জন্য কর আরোপ হবে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। এতে অভ্যন্তরীণ চিন্তা ও সংস্কৃতির প্রতি তাদের মধ্যে ঝোঁকও বৃদ্ধি পাবে।

ফ্রেইকে সমর্থন জানান ক্ষমতাসীন জোটের অংশীদার ব্যাভারিয়ান ক্রিশ্চিয়ান সোশ্যাল ইউনিয়নের (বিসিএস) দলের এমপি মাইকেল ফ্রিজার। তিনি বলেন, অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হলে জার্মানির মসজিদগুলোর কার্যক্রম আরও বেশি স্বচ্ছ হবে। সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রভাবশালী সদস্য বুরখার্ড লিশকাও এ প্রস্তাবে সায় দেন।

এদিকে, এই আইন কার্যকর হওয়ার আগে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়। প্রথমে এই আইনের খসড়া প্রাদেশিক সরকারগুলোর মধ্যে আলোচিত হবে। তারপর আরও কয়েকটি ধাপ পেরিয়ে শেষপর্যন্ত তা আইনে পরিণত হবে। ফলে মসজিদ কর কখন চালু করা হবে তা নির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারেননি দেশটির আইনপ্রণেতারা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জার্মানি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ