Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৪ কার্তিক ১৪২৬, ২০ সফর ১৪৪১ হিজরী

সঙ্ঘাত-সহিংসতা অতি নগণ্য

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হচ্ছে। বিএনপি পরাজয়ের শঙ্কা থেকেই ভোট কারচুচুপির অভিযোগ আনছে। তারা সব সময় এ রকম অভিযোগ করে। তাদের কোনো ষড়যন্ত্র-অপপ্রচার নৌকার বিজয় রুখতে পারবে না।
গতকাল রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। নানক বলেন, সারাদেশে নির্বাচনী সহিংসতায় ১০ জন নিহত হয়েছে। এ তথ্য জানানোর পর সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন এ অবস্থায় আপনি কীভাবে বলছেন শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলো? এর জবাবে নানক বলেন, সংঘাত-সহিংসতা যা হয়েছে তা অতি নগন্য ও অতিসামন্য। সহিংসতা যতটুকু হয়েছে তার শিকার আওয়ামী লীগ।
ড. কামাল হোসেনরা নিজেদের ব্যর্থতা আড়াল করতে নির্বাচন কমিশন ঘেরাওয়ের নামে জনগণের রায়কে ডাকাতি করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন বলেও মন্তব্য করেন নানক। তিনি বলেন, আমরা কঠোর হুঁশিয়ারি করে বলে দিতে চাই, জনগণের ভোট ডাকাতি করার অধিকার কারও নেই। জনগণের রায়কে নিয়ে কারও রাজনীতি করতে দেওয়া হবে না।
বিএনপি-জামায়াত ও ঐক্যফ্রন্ট ভোট বর্জনের ঘোষণা করলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের প্রার্থী, নেতা-কর্মী ও ভোটারদের শেষ পর্যন্ত ভোটকেন্দ্রে উপস্থিত থেকে চূড়ান্ত ফলাফল নিয়ে ঘরে ফেরার আহ্বান জানিয়েছেন।
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম, বিএম মোজাম্মেল, প্রকৌশলী আবদুস সবুর, সামছুন্নাহার চাপা, দেলোয়ার হোসেন, বিপ্লব বড়–য়া, মারুফা আক্তার পপি, গোলাম রাব্বানী চিনু, যুবলীগ সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি মোল্লা মো. আবু কায়সার।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতীয় সংসদ নির্বাচন

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ