Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ২২ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬, ১৫ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

তীব্র শৈত্যপ্রবাহ এ মাসেও

পঞ্চগড়ে মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪ দশমিক ৯ ডিগ্রি

শফিউল আলম | প্রকাশের সময় : ৩ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

দেশে তীব্র ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে চলতি জানুয়ারি মাসেও। এ সময় তাপমাত্রা নেমে যেতে পারে ৪ থেকে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। সেই সাথে সকাল পেরিয়ে এমনকি দুপুর পর্যন্ত মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশার চাদরে আচ্ছাদিত থাকতে পারে দেশের অনেক এলাকা। এদিকে গতকাল (বুধবার) উত্তর জনপদের পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়ায় রাতের তাপমাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৯ ডিগ্রি সে.। যা চলতি শীত মৌসুমে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড। পৌষের হাড় কাঁপানো শীতের সাথে উত্তুরের কনকনে হিমেল হাওয়ায় গ্রাম-জনপদে জনজীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় ছিন্নমূল হতদরিদ্র মানুষের দুর্ভোগ চরমে। ঠান্ডাজনিত বিভিন্ন রোগব্যাধির প্রকোপ বেড়ে গেছে।
গত ১ জানুয়ারি (মঙ্গলবার) অনুষ্ঠিত আবহাওয়া বিশেষজ্ঞ কমিটির সভায় দেয়া পূর্বাভাসে জানা গেছে, চলতি জানুয়ারি মাসে দেশে ২ থেকে ৩টি মৃদু (৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস) থেকে মাঝারী (৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সে.) ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। যার মধ্যে ২টি তীব্র (৪ থেকে ৬ ডিগ্রি সে.) ধরনের শৈত্যপ্রবাহে রূপ নিতে পারে।
এ মাসে দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে এবং নদ-নদী অববাহিকায় মাঝারী থেকে ঘন কুয়াশা এবং অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারী ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। ঘন কুয়াশা পরিস্থিতি কখনও কখনও দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। জানুয়ারি মাসে দেশের দৈনিক গড় বাষ্পীভবন ২ থেকে ৩ মি.মি. এবং গড় সূর্য কিরণকাল ৫ থেকে ৬ ঘণ্টাকাল পর্যন্ত স্থায়ী থাকতে পারে।
দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাস প্রদানের লক্ষ্যে আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্র ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন অধিদপ্তরের পরিচালক ও বিশেষজ্ঞ কমিটির চেয়ারম্যান সামছুদ্দিন আহমেদ। সভায় আবহাওয়া-জলবায়ু পরিস্থিতির সর্বশেষ তথ্য-উপাত্ত, মডেল, এল-নিনো, লা-নিনা অবস্থা ইত্যাদি উপাদান পর্যালোচনা করা হয়।
পূর্বাভাসে আরও বলা হয়, চলতি জানুয়ারি মাসে সামগ্রিকভাবে দেশে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে গত ডিসেম্বর মাসে সারাদেশে স্বাভাবিক অপেক্ষা গড়ে ২১ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। বিভাগওয়ারি বৃষ্টিপাতের হিসাবে চট্টগ্রাম, বরিশাল ও রংপুর বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। কিন্তু অন্যান্য বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে।
ডিসেম্বরের আবহাওয়া পরিস্থিতি পর্যালোচনায় বলা হয়, বিগত ১০ ডিসেম্বর দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও সংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট একটি লঘুচাপ ধাপে ধাপে ঘনীভূত হয়ে ১৫ ডিসেম্বর ঘূর্ণিঝড় ‘পিথাই’য়ে পরিণত হয়। ১৭ ডিসেম্বর ঘূর্ণিঝড়টি ভারতের অন্ধ্র উপকূল অতিক্রমকালে দুর্বল হয়ে পড়ে। ডিসেম্বরে দেশে সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিক অপেক্ষা শূন্য দশমিক ৪ ডিগ্রি সে. এবং শূন্য দশমিক ৬ ডিগ্রি সে. কম ছিল। গত মাসে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৮ ডিসেম্বর টেকনাফে ৩২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সে.। আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল বছরের শেষ দিনটিতে তেঁতুলিয়ায় ৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সে.। বৃষ্টিপাত, নিম্নচাপ-ঘূর্ণিঝড়, কৃষি আবহাওয়া এবং দেশের নদ-নদীর অবস্থা ডিসেম্বর মাসের পূর্বাভাসের সাথে সংগতিপূর্ণ ছিল।
সর্বশেষ আবহাওয়া
গতকাল পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪ দশমিক ৯ ডিগ্রির রেকর্ড ছাড়াও বিভিন্ন স্থানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল শ্রীমঙ্গলে ৭ দশমিক ৯, চুয়াডাঙ্গায় ৯, দিনাজপুরে ৭ দশমিক ৫, সৈয়দপুরে ৮ দশমিক ২ ডিগ্রি সে.। তবে পঞ্চগড় জেলা ছাড়া সামগ্রিকভাবে দেশে গতকাল শৈত্যপ্রবাহের পরিস্থিতির যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। অধিকাংশ স্থানে রাতের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২ ডিগ্রির কাছাকাছি। ঢাকায় রাতের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩ দশমিক ৭ এবং দিনের তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ২৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সে.। দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল সীতাকুন্ডে ৩০ ডিগ্রি সে.।
আজ (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়া পূর্বাভাসে জানা গেছে, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। শেষরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারী ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। পঞ্চগড় জেলার ওপর দিয়ে তীব্র ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। শ্রীমঙ্গল, পাবনা, নওগাঁ এবং চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলসহ রংপুর বিভাগের অবশিষ্টাংশের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারী ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় রাতের তাপমাত্রা ক্রমশ সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। এর পরের ৫ দিনে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: শীত

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
২৬ জানুয়ারি, ২০১৯
২৩ জানুয়ারি, ২০১৯
২২ জানুয়ারি, ২০১৯
২০ জানুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ