Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৯, ১১ মাঘ ১৪২৫, ১৭ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম

| প্রকাশের সময় : ৪ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৮ এএম

প্রশ্ন : আমাদের দেশে প্রায়ই ধর্ষণকারীর সাথে ভিকটিমকে জোর করে বিয়ে দেয়া হয়। এর ফলে জেনাকারীর কোনো শাস্তি হয় না। মেয়েটিকে সমাজের চাপে পড়ে মেনে নিতে হয়। এ পক্ষত্রে ইসলাম কী বলে? মেয়েটি কী বিচার পাবে?
উত্তর : ধর্ষণকারীর শাস্তি ক্ষেত্রবিশেষে বেত্রাঘাত বা প্রস্তরাঘাতে মৃত্যু। অসহায় ধর্ষিতার কোনো শাস্তি বা গুনাহ নেই। আমাদের দেশে শরিয়তের আইন চালু নেই, অতএব দেশীয় আইনে যে বিচার আছে তাই হওয়া উচিত। তবে এ দেশে সাধারণত অসহায় পক্ষ আইন আদালত করেও সুবিচার পায় না। তাদের ক্ষমতা ও টাকা কিছুই থাকে না। ধর্ষকরা প্রভাবশালী হওয়ায় উল্টা আরো জুলুম করে। এসব বিবেচনায় লোকেরা মেয়েটিকে ধর্ষকের হাতেই গছিয়ে দেয়। কারণ, এমন মেয়ের বিয়ে দেয়া কঠিন। উপস্থিত এ সমাধানটিই মন্দের ভালো বলে বিবেচনা করা হয়। এ সুযোগে ধর্ষকও শাস্তি থেকে বেঁচে যায়। ইসলামি মতে শাস্তি হওয়া জরুরি, এরপর বিয়ের প্রশ্ন। বিয়ে করে ফেলা শাস্তি থেকে বাঁচার কোনো রাস্তা নয়। নিরুপায় মানুষ অল্পে রক্ষা পেতে চায়, তাদের ইচ্ছা অনিচ্ছা বলতে কিছু থাকে না। জীবন-মরণ সমস্যায় মনের কষ্ট কিছুই না। অতএব, এ দেশে অসহায় ধর্ষিতাদের এমন বিভীষিকাময় সংসার করতে হয়। এরপরও নানা ফেকরা লেগেই থাকে। দীর্ঘ প্রায় হাজার বছর ইসলামি শরিয়ায় শাসিত বাংলাদেশে মানব রচিত আইনের কুফল এসব। সমাজব্যবস্থা ভেঙে নতুন করে না সাজানো পর্যন্ত এসব কান্না ও হাহাকার শেষ হবে না।
-আল্লামা মুফতী উবায়দুর রহমান খান নদভী



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ