Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৬ ফাল্গুন ১৪২৫, ১২ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

কেরানীগঞ্জে মধুসিটির কর্মচারীর সাথে আ’লীগনেতা সিদ্দিক গ্রুপের সংঘর্ষ আহত ৭

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৫ জানুয়ারি, ২০১৯, ৯:০৮ পিএম

ঢাকার কেরানীগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জেড়ধরে মধুসিটির কর্মচারী ও আওয়ামীলীগ নেতা হাজী আবু সিদ্দিক গ্রুপের সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৭জন আহত হয়েছে। আহতরা হচ্ছে মধু সিটি হাউজিং কোম্পানির কর্মচারী মোঃ সোহাগ(২৭), মোঃ হাছান(৩৫), মোঃ আজাদ হোসেন(৪৫), মোঃ তুষার(২৬) এবং ঢাকা জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী আবু সিদ্দিক(৫৫) তার ছেলে মোঃ সিফাত হোসেন(২৪)) ও তার গাড়ির চালক। হাজী আবু সিদ্দিককে গুরুতর আহত অবস্থায় রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাতেই খাদ্য মন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম তাকে হাসপাতালে দেখতে যান। এই ঘটনাটি ঘটেছে আজ শনিবার বিকেলে তারানগর ইউনিয়নে ফুডকোট রেস্টুরেন্টের সামনে। এই ঘটনা নিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। মধু সিটি অফিসের সামনে ব্যাপক সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
মধুসিটির অফিসের জেনারেল ম্যানেজার গোলাম মোস্তফা জানান, পূর্ব শত্রুতার জেড়ধরে হাজী আবু সিদ্দিকের নেতৃত্বে ৭/৮জন লোক রামদা নিয়ে তাদের অফিসে জোরপূর্বক ঢুকে পড়ে অফিস ভাংচুর করে এবং অফিস ষ্টাফদের মারধর করলে তাদের সাথে সংঘর্ষ বাধে । এতে তাদের অফিসের ৪জন ষ্টাফ গুরুতরভাবে আহত হয়। তাদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।অপরদিকে দিকে সিদ্দিক গ্রুপের কেরানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য এ্যাডভোকেট এনামুল হক জানান, হাজী আবু সিদ্দিকের ছেলে মোঃ সিফাত প্রাইভেট গাড়ি নিয়ে মধু সিটির অফিসের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় মধু সিটির অফিসের কর্মচারীদের সাথে তার কথা কাটাকাটি হয়। এসময় মধুসিটির অফিসের কর্মচারীরা তার গাড়িতে হামলা চালিয়ে গাড়ি ভাংচুর করে এবং ছেলে সিফাত ও গাড়ির চালককে মারধর করে। এই ঘটনার প্রতিবাদ করতে ঢাকা জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী আবু সিদ্দিক মধূ সিটির অফিসে গেলে অফিসের কর্মচারীরা তাকে এলোপাতারীভাবে কুপিয়ে গুরুতরভাবে আহত করে।তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশংকাজনক।এব্যাপারে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, মধু সিটির কর্মচারীদের সাথে হাজী আবু সিদ্দিকের মারামারির ঘটনা ঘটেছে।বিষয়টি আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নিব।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সংঘর্ষ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ