Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

নারায়ণগঞ্জে শ্রমিক অসন্তোষ

স্টাফ রিপোর্টার নারায়ণগঞ্জ থেকে : | প্রকাশের সময় : ৬ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

সরকারের গেজেট মোতাবেক মজুরি না দেওয়া, অবৈধ ছাটাই ও শ্রমিকদের উপর নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ক্রোনী গ্রপের অবন্তী কালার লিমিটেড নামে রপ্তানিমুখী পোশাক কারখানার শ্রমিকরা।
গণকাল শনিবার সকাল ১১টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে উক্ত কারখানার দুই শতাধিক শ্রমিক। শ্রমিকদের বিক্ষোভে সংহতি জানিয়ে আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়কারী তরিকুল সুজন, গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় নেতা দুলাল সাহা, জেলা গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, জেলা ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি শুভদেব, সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস জামান। ক্রোনী গ্রুপের অবন্তী কালার কারখানার বিক্ষোভরত শ্রমিক সবুজ বলেন, নভেম্বর মাসে আমাদের মধ্যে ১ হাজার ৪৫ জনকে চাকরি থেকে অবৈধভাবে ছাটাই করে দেয়া হয়। এরপর ডিসেম্বর মাসে আরো ২০০ থেকে ৩০০ জন শ্রমিকদের ছাটাই করা হয়। ছাটাইয়ের প‚র্বে বকেয়া বেতন দিবে বলে তারা সকল শ্রমিকদের স্বাক্ষর নেয়। শ্রমিকরা এর প্রতিবাদ করলে তাদের মারধর করা হয়। নারী শ্রমিক রোকসানা অভিযোগ করে বলেন, আমাদের উপর অনেক নির্যাতন করা হতো। আমাদের উপর কাজের চাপ দ্বিগুণ বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। সময় মতো কাজ দিতে না পারলে আমাদের মারধর করা হয়। প্রতিদিন আমাদের দিয়ে ওভার টাইম করানো হয় কিন্তু সেই মজুরী দেয়া হয় না। প্রতিদিন সকাল ৮টায় থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত আমরা কাজ করি।
উক্ত সমাবেশে বক্তারা বলেন, আমাদের শ্রমিকরা দিনের পর দিন কাজ করে প্রতিষ্ঠান দাড় করায় আর মালিকরা সেই টাকায় অভিজাত জীবন অতিবাহিত করে। কিন্তু শ্রমিদের তাদের ন্যায্য মজুরি, সুযোগ-সুবিধা দেয় না। গার্মেন্টসের ভিতর মাস্তান বাহিনী লেলিয়ে দিয়ে শ্রমিকদের হেনস্থা করা যতোটা সহজ, রাজপথে তা ততোটাই কঠিন। মালিক পক্ষের বিরুদ্ধে যে কথা বলতে চাচ্ছে তাকেই লাঠির পেঠা করছে, ভয় দেখাচ্ছ। আমরা যেখানে বাস করি সেখানে সন্ত্রাসী বাহিনী পাহাড়া দিচ্ছে। এ পরিস্থিতি কিভাবে মোকাবেলা করতে হয় তা আমাদের শ্রমিকরা জানেন। তারা আরও বলেন, তারা আমাদের সংঘবদ্ধ শক্তিকে ভয় পায়। যারা আমাদের ভাই-বোনের গায়ে আঘাত করেছে আমরা তাদের বিচার চাই। সকল শ্রমিকদের তাদের ন্যায্য মজুরি দিতে হবে। অবৈধ ছাটাই বন্ধ করতে হবে। যাদের অবৈধভাবে ছাটাই করা হয়েছে তাদের আবার চাকরিতে নিতে হবে। অন্যথায় এ আন্দোলন চলতেই থাকবে



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন