Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৩ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে চট্টগ্রামের শুরু

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

টি-২০ মানেই চার-ছক্কার ফুলঝুরিতে সরগম গ্যালারী। কিন্তু বিপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে দেখা গেল উল্টো চিত্র। চার-ছক্কার পরিবর্তে উইকেট পড়েছে মুড়ি-মুড়কির মত। প্রথমে ব্যাট করে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স অল আউট হয়েছে ৯৮ রানে। এই রান তাড়া করতে গিয়ে ৭ উইকেট হারিয়ে শেষ ওভারে চিটাগং ভাইকিংস ম্যাচ জিতেছে ৩ উইকেটে।
এই ম্যাচ দিয়েই ম্যাচ ফিক্সিংয়ের কারণে ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে বিপিএলে ফিরেছেন মোহাম্মদ আশরাফুল। তবে ব্যাট হাতে বলার মত কিছু করতে না পারলেও প্রত্যবর্তনের ম্যাচে পেয়েছেন রোমাঞ্চকর জয়ের দেখা। অন্যদিকে ম্যাচ হারলেও বল হাতে দারুণ ছিলেন বাংলাদেশের নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তোজা।
মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটে নামা মাশরাফীর রংপুর ৩৫ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে। এরপরও দলকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেন রবি বোপারা। অষ্টম উইকেটে সোহাগ গাজিকে নিয়ে গড়েন ৪৯ রানের জুটি। রংপুরের এই দুই ব্যাটসম্যানই কেবল স্পর্শ করতে পারেন দুই অঙ্ক। বোপারা আউট হন শেষ ওভারে ৪৭ বলে ৪৪ রান করে। ইনিংসের দুটি ছক্কাই আসে তার ব্যাট থেকে। গাজি করেন ২১। ৪ ওভারে ১৪ রানের খরচায় ৪ উইকেট নেন দক্ষিণ আফ্রিকান অল-রাউন্ডার রবি ফ্রেইলিঙ্ক। ৪ ওভারে মাত্র ১০ রানের খরচায় ২ উইকেট নেন নাইম হাসান, ৩০ রানে ২টি নেন আবু জায়েদ। নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ১ উইকেট নেন খালেদ আহমেদ। পুরো ২০ ওভার খেলে গুটিয়ে যায় রংপুর।
জবাবে ৫ বল হাতে রেখে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় মুশফিকুর রহিমের দল চট্টগ্রাম। দুটি বিশোর্ধো ইনিংস আসে মোহাম্মাদ সেহজাদ (২৩ বলে ২৭) ও মুশফিকের (৩১ বলে ২৫) ব্যাট থেকে। ২ উইকেটে ৫১ থেকে ৮৫ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়া চট্টগ্রামকে উদ্ধার করেন ফ্রেইলিঙ্ক (১০ বলে অপরাজিত ১২) ও সানজামুল ইসলাম (৮ বলে অপরাজিত ৭)। ২৪ রানে ২ উইকেট নেন মাশরাফী। ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতে নেন ফ্রেইলিঙ্ক।
ভাইকিংস অধিনায়ক মুশফিকের মতে জয় যেভাবেই আসুক ম্যাচে জয়টায় মুখ্য, ‘দিনশেষে জয়টাই আসল ব্যাপার। পিচ বোলারদের জন যথেষ্ট ভালো ছিল। এই ধরণের পিচে আপনাকে ভালো এরিয়াতে বোলিং করতে হবে এবং তারা তাদের কাজটাই করেছে। যখন সবকিছু আপনার পক্ষে যাবে তখন সেটা অর্জন করা সহজ। আমার মতে বোলাররা দারুণ পারফর্ম করেছে এবং আমি সেই সুযোগ লুফে নিতে পেরেছি।’ শেষদিকে হারের শঙ্কা থেকে বের হতে পারার কৃতিত্ত¡ ফ্রাইলিঙ্ককে দিয়েছেন মুশফিক, ‘আমি মনে করি রবি (ফ্রাইলিঙ্ক) খুব তার নার্ভটা ধরে রেখতে পেরেছে এবং দলকে জয়ের দিকে নিয়ে গেছে।’
হারের কারণ হিসেবে ব্যাটিংকেই দ্বায়ী করেছেন মাশরাফী, ‘আমার মনে হয় আমাদের ব্যাটসম্যানরা উইকেট থেকে ঠিকমতো সুবিধা আদায় করে নিতে পারেনি। ১৩০ বা এর চেয়ে কিছু বেশি রান করতে পারলে হয়ত ম্যাচটা আমাদের পক্ষে থাকতে পারতো।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন