Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ০৩ আগস্ট ২০২০, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ১২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

সাবেক ও বর্তমান মন্ত্রী-এমপিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা- দুদক চেয়ারম্যান

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৮ জানুয়ারি, ২০১৯, ৬:০৩ পিএম

জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়া প্রার্থীদের হলফনামা দেখে কালোটাকা টাকা চিহ্নিত হলে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। সাবেক ও বর্তমান মন্ত্রী-সংসদ সদস্যদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত হবে বলেও জানান তিনি। মঙ্গলবার সেগুন বাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
দুদক চেয়ারম্যান বলেন, আমরা আগের থেকে অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসী, কারণ বর্তমান সরকারের ম্যান্ডেট ছিল দুর্নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান। আমরা প্রত্যাশা করি সরকার আমাদেরকে সকল প্রকার সহযোগিতা করবে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের ম্যান্ডেট বাস্তবায়নের জন্য যা যা করা দরকার আমরা করব। দলমত নির্বিশেষে কারো দিকে না তাকিয়ে কাজ করব। আমরা কারো দিকে তাকাব না।
তিনি বলেন, নিয়োগ বাণিজ্য, ভর্তি বাণিজ্য, স্বাস্থ্য-শিক্ষা বাণিজ্যসহ সমস্ত জায়গায় যেসব দুর্নীতি-অনিয়ম রয়েছে তা প্রতিরোধের চেষ্টা করব এবং তবে দমনেরও চেষ্টা করব আমরা। আমাদের দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান চলছে, তা অব্যাহত থাকবে। কোনো বাধাই মানব না।
ইকবাল মাহমুদ বলেন, সাবেক বা বর্তমান বলে কোনো কথা নেই। দুর্নীতিবাজ হিসেবে খ্যাত, দুর্নীতির গন্ধ যেখানে আছে আমরা সেখানে থাকব। আপনারা যদি প্রশ্ন করেন সাবেক মন্ত্রী, সাবেক সরকারের অমুক, নো উই উইল নট ডিফারেন্ট ফর এ্যানিবডি। আমরা সবাইকে একই পাল্লায় মাপতে চাই। দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের যে অঙ্গীকার, সরকারের পুর্ণসমর্থন নিয়ে আইন অনুযায়ী কাজ করবো। দুর্নীতি যিনিই করেছেন বা করবেন আমরা তাদেরকে ধরে আইন অনুসারে ব্যবস্থা নেব।
সদ্য বিদায়ী কোনো মন্ত্রীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেলে দুদকের করণীয় সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অভিযোগ যদি থেকে থাকে তাদের বিষয়ে অনুসন্ধান করব, আমরা দৃশ্যমান কিছু করব। আপনারও অভিযোগ দিতে পারেন। কথা এইটুকুই বলতে পারি যে, আপনারা এক মাস দুই মাসের মধ্যে দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণে দৃশ্যমান অগ্রগতি দেখতে পাবেন। এটা আমার ডিউটি। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, শুধু বেসিক ব্যাংকই নয়, অন্যান্য ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতি বিষয়ে অগ্রগতি দেখতে পাবেন। আর্থিক খাতসহ সব খাতের দুর্নীতির বিষয়ে আমাদের জিরো টলারেন্স। তবে কতগুলো বিষয় আমাদের প্রধান ফোকাস থাকবে। আর্থিক দুর্নীতি এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, আমরা আমাদের পরিপূর্ণ শক্তি দিয়ে আর্থিক দুর্নীতি বন্ধ করার চেষ্টা করব।



 

Show all comments
  • মতিন ৮ জানুয়ারি, ২০১৯, ৯:৫২ পিএম says : 0
    আপনাদের কাজ হলো তেলের মাথায তেল ঢালা গত ৫ বছরে ২২৫০২ কোটি টাকা দুরনীতি হযেছে কে করেছে কারা করেছে সব জানেন তবে মামলা করার সাহশ পান না কেন
    Total Reply(0) Reply
  • Rahman ৮ জানুয়ারি, ২০১৯, ৬:২২ পিএম says : 0
    Dudok Chairman ki Farmers Bank, Basic Bank er Durniti Chokhe Dekhen Na ???? Bangladesh Central Bank er Scam Ki Chokhe Pore Na??? Kebol Faltu Speech Diye Limelight e Thaka. You should resign as soon as possible, if you are honest. Shame on you.
    Total Reply(0) Reply
  • Nannu chowhan ৮ জানুয়ারি, ২০১৯, ৮:৫৮ পিএম says : 0
    Apni montrider biroddhe kisui kotte parbenna jotokkhonna prodhanmontri apnake nirdesh dei.Apni paren shodho birodhi dolke nana ojuhate fashano
    Total Reply(0) Reply
  • Sumon ৮ জানুয়ারি, ২০১৯, ৬:৪৯ পিএম says : 0
    দূদক হচ্ছে সরকারের পূতুল*বেচে বেচে শুধু সরকার বিরোধী যারা তাদেরই শুধু মামলার আওতায় নিবেন বর্তমানে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপতে এটাই বাস্তব যেমন ত্রাণ মন্ত্রী মায়া
    Total Reply(0) Reply
  • আলী ৮ জানুয়ারি, ২০১৯, ১০:১২ পিএম says : 0
    আপনারা শুধু খালেদা জিযার বেলায হাইকোট চিনেন , ত্রই দেশে দুরনীতি করে না হাজারের বিতর ত্রক জন, আর মামলার বেলায ত্রকজন অর্থমন্ত্রী বলেছিলো ৪০০০ কোটি টাকা দুরনীতি কিছু না আর দুই কোটি টাকার জন্য খালেদা জিযা জেল খাটছে আপনাদের ন্যায বিচার
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: দুদক


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ