Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯, ১২ চৈত্র ১৪২৫, ১৮ রজব ১৪৪০ হিজরী।

ক্যারিয়ার সেরা বোলিং মাশরাফির

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

এক স্পেলেই করেছেন টানা চার ওভার। প্রথমটায় শুধু উইকেট পাননি। দ্বিতীয় ওভারে উইকেট পেয়েছেন একটি। পরের ওভারে দুটি। শেষ ওভারে আরেকটি। সব মিলিয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজা করেছেন তার টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ার সেরা বোলিং।
আগের ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসের ব্যাটসম্যানরা তুলেছিলেন ঝড়। গতকাল সন্ধ্যায় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স-রংপুর রাইডার্সের হাই ভোল্টেজ ম্যাচে বড় রানের লড়াইয়ের আভাস তাই ছিল। কিন্তু কীসের কি। মাশরাফি বিন মর্তুজা বড় রানের কোন সম্ভাবনাই রাখলেন না। শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে চার-ছক্কা দেখতে এসে দর্শকরা দেখেছেন মাশরাফির পেসের ঝাঁজ। শুরু থেকে টানা চার ওভার বল করে মাত্র ১১ রান দিয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট। এক মেডেনসহ দিয়েছেন ১৮টি ডট বল। একে একে আউট করেন তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, এভিন লুইস আর স্টিভেন স্মিথকে। বিপিএল তো বটেই টি-টোয়েন্টিতেই এটা মাশরাফির সেরা বোলিং ফিগার। এর আগে ২০১২ আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ১৯ রানে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। বিপিএলে মাশরাফির আগের সেরা বোলিং ফিগার ছিল ২০১৬ সালে। সেবার এই মিরপুরে খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে এই কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়েই ১৬ রানে ৩ উইকেট নিয়েছিলন মাশরাফি।
এবার বিপিএলে শুরুর দুদিন দিনের ম্যাচে রান পেতে কষ্ট হচ্ছিল ব্যাটসম্যানদের। শিশিরের কারণে রাতে মিলছিল বড় রানের দেখা। রংপুর-কুমিল্লার ম্যাচ সন্ধ্যায় হওয়ায় বড় রানের ম্যাচ হওয়ার সম্ভাবনায় ছিল এটি। দুদলেই যে আছেন টি-টোয়েন্টির আদর্শ সব ব্যাটসম্যান। আপাতত তাদের ছাপিয়ে সব আলো নিয়ে নিয়েছেন বোলার মাশরাফি। টস জিতে কুমিল্লাকে ব্যাট করতে দিয়েই তেতে উঠেন রংপুর অধিনায়ক। প্রথম বলেই হালকা মুভমেন্টে তামিম ইকবালকে পরাস্ত করে সেরা ছন্দের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। এরপর বারবার তামিমকে পরাস্ত করেছেন।
মাশরাফির বলে সুবিধা করতে না পেরে অস্থির হয়ে উঠেন তামিমও। উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েও ফল পাননি। এই অস্থিরতাই কাবু করেছে তামিমকে। তৃতীয় ওভারে তাকে মিড অনে সহজ ক্যাচ বানান মাশরাফি। ইমরুল কায়েস উইকেটে এসেই মাশরাফির লাফিয়ে উঠা বলে আঙুলে আঘাত পান। অস্বস্তি কাটাতে পারেননি। মাশরাফির পরের ওভারেই ক্যাচ তুলে দেন ইমরুল। অনেকখানি দৌঁড়ে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে সেই ক্যাচ হাতে জমান রবি বোপারা। ওই ওভারেই আসে আরেক সাফল্য। বিস্ফোরক এভিন লুইস চার-ছক্কা মারতে না পেরে হাঁসফাঁস করছিলেন। মাশরাফিকে উড়াতে গিয়ে মিড অফে নাজমুল ইসলাম অপুর হাতে জমা পড়েন তিনি।
নিজের শেষ ওভারে সবচেয়ে দামি উইকেটটি নিয়েছেন মাশরাফি। কুমিল্লার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিত দলের বিপর্যয়ের সময়ে আশা দিতে পারেননি। মাশরাফি কাটার বুঝতে না পেরে মিড অফে ক্যাচ তুলে দেন স্মিথ। ১৮ রান তুলতেই নেই কুমিল্লার পাঁচ উইকেট। পরে আর ম্যাচে ফেরা হয়নি তামিমদের দলের।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মাশরাফি

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
১৪ জানুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন