Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ জানুয়ারি ২০১৯, ০৭ মাঘ ১৪২৫, ১৩ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

পিঠার ধোঁয়ায় শীতের হাওয়া

মুন্সী কামাল আতাতুর্ক মিসেল, চান্দিনা (কুমিল্লা) থেকে : | প্রকাশের সময় : ১৩ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

চলছে শীতকাল। শীত মানেই তো পিঠা-পুলির দিন। পিঠার ঘ্রাণে ম-ম করবে চারদিক। এমন কিছু ভাবনাই তো বাঙালির মানসপটে জায়গা করে নেয়। হালকা শীতল আমেজ নিয়ে আসা বিকেল কিংবা সন্ধ্যায় এখন পিঠা বিক্রির ধুম পড়ে যায়। জমে উঠেছে রাস্তার পাশে পিঠা বেচাকেনার দোকানগুলো। কুমিল্লার বিভিন্ন স্থানে ছোট ছোট পিঠার দোকান সাজিয়ে বসছে বিক্রেতারা। অনেকে আবার পেশা পরিবর্তন করেও বসছে পিঠা বিক্রির দোকান নিয়ে। বেচাকেনাও বেশ ভালোই।

চলতি পথে থেমে কেউ বা আড্ডায় বসেই সন্ধ্যার নাশতাটা সেরে নিচ্ছেন গরম গরম ভাপা পিঠা কিংবা চিতোই পিঠা দিয়ে। বিক্রেতাদের সঙ্গেও আলাপ করে জানা গেল, বেচা-বিক্রি বেশ ভালোই। তাই তো অনেকেই এই শীতের মৌসুমে পিঠা বিক্রিকে বেছে নিয়েছেন পেশা হিসেবে। পৌষের তীব্র শীতে কুমিল্লা শহরের বিভিন্ন ফুটপাত, অলি-গলিতে জমে উঠেছে ভাপা পিঠা বিক্রির হিড়িক। শীতের সন্ধ্যার পর পরেই ভাপা পিঠা বিক্রির দোকানগুলোতে পিঠার স্বাদ নিতে ভিড় করেন বিভিন্ন বয়সের শ্রেণি-পেশার মানুষ। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শহরের রেইসকোর্স, ঝাউতলা, বাদুরতলা,কান্দিরপাড়, সদর হাসপাতালের সামনে, রানীর বাজার, টমছমব্রীজ, রাজগঞ্জ, চকবাজারসহ শহরের বিভিন্ন অলি-গলিতে রাস্তার ফুটপাতে ও মোড়ে মোড়ে বসেছে ভাপা পিঠার দোকান। পাশাপশি বিক্রি করছে চিতল (চিতাই) পিঠাও। বিশেষ করে সন্ধ্যার পরেই জমে উঠে এসব পিঠা বিক্রি। বেশিরভাগ দোকানেই পিঠা বিক্রি করছেন নিম্নবিত্ত পরিবারের পুরুষ, নারী ও ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা।

পিঠা বিক্রেতা আলআমিন, শামসুনাহার ও মতিন মিয়া দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, আমরা সারাদিন ইট ভাটায় কাজ করি। অবসর সময় বাড়তি আয়ের জন্য বিকাল বেলা পিঠা বানানো নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ি। নতুন চালের গুড়ো ও নতুন খেজুরের গুড় দিয়ে খুব যত্ন সহকারে তৈরি করা হয় ভাপা পিঠা। এসব পিঠা প্রতি পিস ৫ টাকা করে বিক্রি করা হয়। প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫ কেজি পরিমাণ চালের পিঠা বিক্রি হয়। শীতের চিতল (চিতাই) পিঠার সঙ্গে বাড়তি হিসেবে মরিচ, সরিষা, সুটকি ও ধনেপাতার ভর্তা ফ্রি দেওয়া হয়।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ছাত্র কামরুল দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, সব ধরনের ক্রেতা এখানে আসে পিঠা খেতে। আবার কেউ কেউ বাড়িতে ছেলে মেয়েদের জন্য পিঠা কিনে নিয়ে যায়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ