Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০১৯, ৮ বৈশাখ ১৪২৬, ১৪ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

কী অপেক্ষা করছে তৃতীয় দিন

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৪ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো জোহানেসবার্গ টেস্টের প্রথম দুই দিন। তবে দিন শেষে এগিয়ে রাখতে হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকাকেই। হাতে ৫ উইকেট ইতোমধ্যে তারা এগিয়ে ২১২ রানে। নিজেদের প্রথম ইনিংসে যে এই রানই করতে পারেনি পাকিস্তান।
বোলাররা নিজেদের কাজ ঠিকমত করলেও ব্যাট হাতে সফল হতে পারছে না পাকিস্তান। তিন ম্যাচ সিরিজের শেষ টেস্ট এটি। মাত্র একবারই তারা আড়াই’শ পার হতে পেরেছে। এবারও প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার ২৬২ রানের জবাবে ১৮৫ রানে গুটিয়ে যান সরফরাজ আহমেদরা। প্রথম ইনিংসে ৭৭ রানের লিড পাওয়া প্রোটিয়ারা দ্বিতীয় দিন শেষ করে ৫ উইকেটে ১৩৫ রান তুলে। অবিচ্ছিন্ন ৪২ রানের জুটিতে ব্যাটে ছিলেন হাশিম আমলা (৪২*) ও কুইন্টন ডি কক (৩৪*)।
আমির-আব্বাস-আশরাফদের মিলিত আক্রমণে ২৪ থেকে ৪৪ রানে যেতেই প্রথম ৪ উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। পঞ্চম উইকেটে বাভুমাকে নিয়ে মূল্যবান ৪৮ রান যোগ করেন আমলা। শাদবের স্পিনে ভাঙে জুটি। এরপর আমলার সঙ্গে যোগ দেন ডি কক।
দিনের শুরুটা ভালোই ছিল পাকিস্তানের। আগের দিনের অপরাজিত ইমাম-উল-হক ও নাইটওয়াচম্যান হিসেবে ব্যাটে নামা মোহাম্মদ আব্বাস পার করে দেন প্রথম ঘণ্টা। একই ওভারে জোড়া আঘাতে আব্বাস ও আসাদ শফিককে তুলে নেন অলিভার। লাঞ্চের আগে ইমামুলও ফিরলে স্কোরবোর্ড হয়ে যায় ৫ উইকেটে ৯১। এরপর সরফরাজ ও বাবর আজম এসে পাল্টা আক্রমণ শুরু করেন। প্রাথমিকভাবে তাদের পরিকল্পনা সফলও ছিল। কিন্তু তাদের ৭৮ রানের জুটি বিচ্ছিন্ন হওয়ার মধ্য দিয়ে ১৬ রানে শেষ ৫ উইকেট হারিয়ে ১৮৫ রানে গুটিয়ে যায় পাকিস্তান। ৪০ বলের একমাত্র ফিফটি ইনিংস আসে সরফরাজের ব্যাট থেকে। বাবর আউট হন ৫৫ বলে ৪৯ করে। আগের দিন ২ উইকেট নেওয়া ফিল্যান্ডার এদিন নেন ইমামুলের উইকেট। সাদব ও সরফরাজকে ফেরান রাবাদা। তবে বাকি ৫ উইকেট তুলে নিয়ে সবচেয়ে বড় আঘাতটা হানেন অলিভার। ক্যারিয়ারে এটি তার তৃতীয় ৫ উইকেট শিকার। তিনটিই চলতি সিরিজে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ