Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬, ১৯ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে বিভাজন হতে দেবো না : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল ভারত যাচ্ছে শিগগিরই

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

ঢাকার অদূরে টংগীর বিশ্ব ইজতেমা একটি পবিত্র স্থান। বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে কোনো বিভাজন হতে দেবো না। ইসলাম প্রচার-প্রসারে বিশ্ব ইজতেমা অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। কে-বা কারা বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে নানা ষড়যন্ত্র করছে। বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে দেশের ভাব-মর্যাদা ক্ষুন্ন হতে দেয়া হবে না। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টিংগীর বিশ্ব ইজতেমা জমি ও কাকরাইল মসজিদের জমি বরাদ্দ দিয়ে প্রমাণ করেছেন ইসলামের জন্য তিঁনি কতটা প্রিয়ভাজন ছিলেন। গতকাল রোববার বিকেলে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ এডভোকেট মো. আব্দুল্লাহ তার দপ্তরে বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে সৃষ্ট সংকট নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ এক বৈঠকে একথা বলেন।
বৈঠকে জানানো হয়, বিশ্ব ইজতেমার সংকট নিরসন এবং তারিখ নির্ধারণের ব্যাপারে আলোচনার জন্য শিগগিরই ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ এডভোকেট মো.আব্দুল্লা’র নেতৃত্বে দশ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধি দল ভারতের দেওবন্দ মাদরাসায় ও দিল্লী সফরে যাবেন। প্রতিনিধি দলে উভয় গ্রুপের নেতৃবৃন্দও থাকবেন। বৈঠকে ধর্ম সচিব মো. আনিছুর রহমান, আলমী শুরার সমর্থক কাকরাইল মসজিদের মুরব্বি মাওলানা রবিউল হক, যাত্রাবাড়ী মাদরাসার মহাপরিচালক মাওলানা মাহমুদুল হাসান, সা’দ পন্থি দু’গ্রুপের ইঞ্জিনিয়ার ওয়াসিফুল ইসলাম, শোলাকিয়া ঈদগা’র ইমাম আল্লামা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ, পুলিশের আইজি, র‌্যাবের ডিজি ও পুলিশ কমিশনার উপস্থিত ছিলেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত বছর বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে সৃষ্ট সংকট নিরসনের সর্বাত্মক চেষ্টা করে ঐক্যবদ্ধভাবেই ইজমেতা সম্পন্ন করা হয়েছে। চলতি বছরেও সকলের ঐক্যবদ্ধ সহযোগিতার মাধ্যমেই বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে ইনশাআল্লাহ। তিনি বলেন, ভারতের দেওবন্দ-এর মুরব্বিদের সম্মিলিত মতামতের ভিত্তিতেই সা’দ বাংলাদেশে আসার বিষয়টি সিদ্ধান্ত হবে। এ নিয়ে টানা-হেঁচড়ার প্রয়োজন নেই। প্রতিমন্ত্রী বলেন, টংগীর বিশ্ব ইজতেমা মাধ্যমে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের সুনাম ও পরিচিতি বাড়ছে। তিনি বলেন, বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেয়া হবে না। ঊভয় পক্ষকে নিয়েই ঐক্যবদ্ধভাবে বিশ্ব ইজতেমার কার্যক্রমকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। এর আগে সকালে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী তার দপ্তরে ইনকিলাবকে বলেন,জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ইসলামের জন্য নিবেদিত প্রাণ ছিলেন। তিঁনি ইসলামিক ফাউন্ডেশন, কাকরাইল মসজিদের জমি, বিশ্ব ইজতেমার জমি দিয়ে গেছেন। কিন্ত দুর্ভাগ্যজনক কারণে বঙ্গবন্ধু ইসলামের অনেক কাজই সম্পন্ন করে যেতে পারেননি;তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নের পাশাপাশি ইসলামের উন্নয়নেও উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন। প্রধানমন্ত্রী কওমী মাদরাসা শিক্ষার স্বীকৃতি, ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা ও সারাদেশে ৫শ’ মডেল মসজিদ নির্মাণ করছেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, হজ ব্যবস্থাপনার কাজটা খুবই কঠিন। প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনায় সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য একটি হজ উপহার দিতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাবো। আল্লাহ ও আল্লাহ’র রাসূল (সা.)-এর সন্তুষ্টি লাভের জন্যই অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের পরামর্শ নিয়ে সুষ্ঠু হজ ব্যবস্থাপনার কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে। এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, হজ নিয়ে কাউকে দুর্নীতি করতে দেবো না। হজযাত্রীদের চোখের পানি আর ফেলতে দেয়া হবে না। যাদের প্রতারণার কারণে হজযাত্রীদের চোখের পানি বের হবে সেই দায়ী ব্যক্তিদেরও চোখ দিয়ে রক্ত বের করে ছাড়া হবে।
বৃহত্তর ফরিদপুর জমিয়াতুল মোদার্রেছীন নেতৃবৃন্দ
এছাড়া দুপুরে প্রতিমন্ত্রীর দপ্তরে বৃহত্তর ফরিদপুর জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের আহবায়ক প্রিন্সিপাল মাওলানা মো. আবু ইউসুফ মৃধার নেতৃত্বে বিভিন্ন মাদরাসার প্রিন্সিপাল ও মুহাদ্দিসগণ ফুলের তোড়া উপহার দেন প্রতিমন্ত্রী আলহাজ এডভোকেট মো. আব্দুল্লাহকে। এসময়ে বৃহত্তর ফরিদপুরের জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের অন্যান্য নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, প্রিন্সিপাল মাওলানা মোহাম্মদ আব্দুস সালাম, প্রিন্সিপাল জাহ্ঙ্গাীর হোসাইন, প্রিন্সিপাল মো. নজরুল ইসলাম আল মাহরুফ, প্রিন্সিপাল মাওলানা মো. মজিবুর রহমান, প্রিন্সিপাল মাওলানা তছলীম উদ্দিন প্রিন্সিপাল মাওলানা আনোয়ার হোসাইন, প্রিন্সিপাল মাওলানা আনিছুর রহমান ও প্রিন্সিপাল মাওলানা আব্দুল বাতেন।



 

Show all comments
  • Abdullah ১৩ জানুয়ারি, ২০১৯, ১০:০০ পিএম says : 0
    Very bad formatting. No clear break or paragraphs.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন