Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

মায়ের নামে জিতে গর্বিত রাজশাহী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

এক সময় টেস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে তকমা জুটেছিল মার্শাল আইয়ুবের। খেলেছেন তিনটা টেস্টও। ঘরোয়া ক্রিকেটেও দীর্ঘ পরিসরের জন্য জুতসই ব্যাটসম্যান হিসেবে নামডাক মার্শাল আইয়ুবের। এই নামডাকই যেন কাল হয়েছিল তার। টি-টোয়েন্টিতে তার ব্যাটিং আদর্শ ভাবা হয়নি কখনই। কোন পর্যায়েই কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে ডাক পড়ত না তার। এবার বিপিএলে সুযোগ পেয়ে ঝড়ো এক ইনিংস খেলে নিজের অন্য সামর্থ্যও চেনালেন এই ডানহাতি।
মার্শাল সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি খেলেছেন ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর। সেবার বিজয় দিবস টি-টোয়েন্টিতে বিসিবি একাদশের হয়ে ১৯ বলে ২১ রান করেছিলেন। এরপর টি-টোয়েন্টিতে নামা হয়নি কখনো। সুযোগ পাননি পরের কোন বিপিএলেই। এবার রাজশাহী কিংস তাকে দলে নিলেও সাইড বেঞ্চে বসিয়ে রেখেছিল। গতকাল ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে মুমিনুল হকের জায়গায় নামেন তিনি। দারুণ চনমনে ব্যাটিংয়ে ৩১ বলে ৪৫ রান করেন মার্শাল। মেরেছেন তিন চার আর দুই ছক্কা। মেহেদী হাসান মিরাজের আউটের পর ওয়ানডাউনে নেমে তার ব্যাটেই তরতরিয়ে রান বাড়ে রাজশাহীর। যাচ্ছিলেন ফিফটির দিকেই। সুনীল নারিনের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে থামেন তিনি।
মার্শালের ৪৫ রানে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে মন্থর উইকেটে ১৩৬ রানের লড়াইয়ের পূঁজি পায় রাজশাহী কিংস। পরে বোলার আরাফাত সানির কল্যানে উড়তে থাকা অপরাজিত সাকিবের দলকে মাটিতে নামায় মিরাজ বাহিনী। দলকে ম্যাচ জেতানোয় বড় ভূমিকা বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানির। চার ওভার বল করে মাত্র ৮ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। এক মেডেনসহ করেছেন ১৬টি ডট বল।
ম্যাচ সেরা সানি জানান ঢাকাকে হারিয়ে টুর্নামেন্টে তৃতীয় জয় পাওয়া রাজশাহীর জন্য ম্যাচটি ছিল আবেগঘন, গর্বভরা, ‘মায়ের নাম নিয়ে খেলা সব সময় গর্বের বিষয়। আমরা জানতাম না (মায়ের নামের জার্সি পরা নিয়ে)। আমাদের ম্যানেজম্যান্টের আগের থেকে একটা পরিকল্পনা ছিল এটা নিয়ে। সবথেকে বড় কথা আমরা আজকে ম্যাচটি জিতেছি। আর আজকের দিনই আমরা মায়ের নামে জার্সি পরে ম্যাচ খেলেছি। অবশ্যই সব মায়েদের প্রতি উৎসর্গ করেছি। ওপরওয়ালা আমাদের মায়েদের দোয়া কবুল করেছে বলে আমরা জিতেছি। যেহেতু ঢাকা খুব ভালো পারফর্ম করেছে। আগের সব ম্যাচে ওরা জিতেছে। এমন দলের সঙ্গে খেলাও কিন্তু চাপের ম্যাচ ছিল। আজকের দিনে বড় একটা ম্যাচ জিতেছি তাই এটা আমাদরে বাড়তি পাওয়া।’
প্রথম দিনের মতো গতকালও উইকেট ছিল মন্থর, স্পিনাররা তাতে টার্নও পেয়েছেন বিস্তর। উইকেটের বাও বুঝে তাই ফায়দা তুলতে চেয়েছে রাজশাহী, ‘উইকেট ঢাকায় যেমন ছিল এখানেও তেমন ছিল। রান যেহেতু কম ছিল তাই আমাদের ফোকাস ছিল লাইন টু লাইন বোলিং করা। লেন্থ বজায় রেখে এবং গতির বৈচিত্র দিয়ে যদি বোলিং করতে পারি তাহলে ম্যাচ জেতা সম্ভব হবে আমাদের জন্য। আমাদের বোলাররা সেই কাজটা করছে আজকে (গতকাল)।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাজশাহী

১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
২১ জানুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন