Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৬ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

খেলাপি ঋণ কমাতে নতুন নীতিমালা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ জানুয়ারি, ২০১৯, ৮:৩৯ পিএম

ইন্টারনাল ক্রেডিট রিস্ক রেটিং সিস্টেম সংক্ষেপে ‘আইসিআরআরএস’ শিরোনামে একটি নীতিমালা চালু করল বাংলাদেশ ব্যাংক। বৃহস্পতিবার (১৭ জানুয়ারি) রাজধানীর মিরপুরে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) অডিটরিয়ামে নীতিমালার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গভর্নর বলেন, আশা করি এই নীতিমালার বাস্তবায়ন হলে খেলাপি ঋণ কমে আসবে। পাশাপাশি কমে আসবে ব্যাংক খাতের ঋণ ঝুঁকিও। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল খেলাপি কমাতে যে নির্দেশনা দিয়েছেন তা পরিপালনেও সহায়ক ভূমিকা রাখবে এই নীতিমালা।

নীতিমালার আলোকে ব্যাংকগুলো এখন থেকে প্রত্যেক ঋগ্রহীতার একটি রেটিং করবে এবং এ-সংক্রান্ত তথ্যভা-ার তৈরি করবে। এ রেটিংয়ে পরিমাণ ও গুণগত উভয় ধরনের সক্ষমতার মূল্যায়ন থাকবে। মূল্যায়নের ভিত্তিতে গ্রাহককে চার শ্রেণিতে বিভাজন করবে ব্যাংকগুলো। কোনো গ্রাহক ‘চমৎকার’ (এক্সিলেন্ট) বা ‘ভালো’ (গুড) রেটিং পেলে ব্যাংক তাকে অর্থায়ন করতে পারবে। ‘প্রান্তিক’ (মার্জিনাল) রেটিংধারী গ্রাহককে পুরোনো ঋণ নবায়ন বা নতুন করে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। তবে ‘অগ্রহণযোগ্য’ রেটিংধারীকে কোনো পরিস্থিতিতেই নতুন ঋণ দিতে পারবে না ব্যাংকগুলো, যদি না আগের ঋণ শতভাগ নগদ পরিশোধ হয় অথবা জামানত দিয়ে ঋণটি আচ্ছাদন করা হয়। ‘অগ্রহণযোগ্য’ (আনএকসেপ্টেবল) রেটিংভুক্ত গ্রাহকের আগের ঋণ সর্বোচ্চ দুবার নবায়ন বা বর্ধিত করা যাবে।

নীতিমালায় আরও বলা হয়েছে, রেটিং করার ক্ষেত্রে একটি পার্টি বা গ্রাহকের পরিমাণগত সক্ষমতায় ৬০ শতাংশ নম্বর এবং গুণগত সক্ষমতায় ৪০ শতাংশ নম্বর থাকবে। পরিমাণগত সক্ষমতা সূচকে ৬০ নম্বরের মধ্যে মোট গৃহীত ঋণ ও আর্থিক সক্ষমতায় ১০, চলতি দায় ও তরল সম্পদে ১০, মুনাফার সক্ষমতায় ১০, সুদ পরিশোধের সক্ষমতা ও নগদ প্রবাহের ওপর ১৫, পরিচালনগত দক্ষতায় ১০ এবং ব্যবসার মানের ওপর পাঁচ নম্বর থাকবে।

এছাড়া গুণগত সক্ষমতায় ৪০ নম্বরের মধ্যে কার্যদক্ষতার আচরণে (পারফরম্যান্স বিহেবিয়ার) ১০, ব্যবসা ও খাত ঝুঁকিতে সাত, ব্যবস্থাপনা ঝুঁকিতে সাত, জামানত ঝুঁকিতে ১১, সম্পর্ক ঝুঁকিতে তিন, পরিপালন ঝুঁকিতে দুই নম্বর থাকবে।

এই রেটিংয়ে কোনো গ্রাহক ৮০’র বেশি নম্বর পেলে তাকে ‘চমৎকার’, ৭০-এর বেশি এবং ৮০’র কম নম্বর পেলে ‘ভালো’, ৬০-এর বেশি এবং ৭০-এর কম পেলে ‘প্রান্তিক’ এবং ৬০-এর নিচে নম্বর পেলে ‘অগ্রহণযোগ্য’ রেটিং দেওয়া হবে। তবে কোনো গ্রাহক গুণগত রেটিংয়ে যত নম্বরই পাক না কেন, পরিমাণগত রেটিংয়ে ৫০ শতাংশ নম্বর না পেলে তাকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ রেটিং দেওয়া হবে।

নীতিমালা অনুযায়ী এখন থেকে নতুন ঋণ, ঋণ নবায়ন ও বিদ্যমান ঋণ বর্ধিতকরণের প্রস্তাবের ক্ষেত্রে অবশ্যই এ রেটিং সম্পন্ন করতে হবে ব্যাংকগুলোকে। এ রেটিং পদ্ধতিটিকে ফলপ্রসূ করার জন্য কোন কোন খাতের গ্রাহকের রেটিং করতে হবে, তার কিছু খাত-উপখাত নির্ধারণ করে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

শিল্প খাতের মধ্যে তৈরি পোশাক, বস্ত্র, খাদ্যপণ্য, ওষুধ, রাসায়নিক, সার, সিমেন্ট, সিরামিক, জাহাজ নির্মাণ ও ভাঙা, পাটকল, ইস্পাত প্রকৌশল, গ্যাস-বিদ্যুৎ ও অন্যান্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান রয়েছে।

ব্যবসা-বাণিজ্য খাতে, কৃষিভিত্তিক ও কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং সেবা খাতের আবাসন ও নির্মাণ, হাসপাতাল ও ক্লিনিক, টেলিকমিউনিকেশন ও অন্যান্য সেবার প্রতিষ্ঠানগুলোকে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে এ রেটিং পদ্ধতি অনুসরণ করে ঋণ দিতে হবে। তবে ভোক্তাঋণ, ৫০ লাখ টাকার কম ঋণ আছে-এমন ক্ষুদ্রশিল্প প্রতিষ্ঠান, স্বল্পমেয়াদি কৃষিঋণ, ক্ষুদ্রঋণ, ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বিমা কোম্পানিকে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে এ রেটিং অনুসরণ করতে হবে না।

পরিমাণগত সক্ষমতা মূল্যায়ন করবেন একজন ঋণ কর্মকর্তা। শাখা ব্যবস্থাপক করবেন গুণগত মূল্যায়ন। ঋণ অনুমোদনের প্রক্রিয়ার একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হবে আইসিআরআর। এর নির্বাহী সারসংক্ষেপ (এক্সিকিউটিভ সামারি) প্রতিবেদন অনুমোদন করবেন ব্যাংকের প্রধান ঝুঁকি কর্মকর্তা। পরিমাণগত রেটিংয়ের জন্য ঋণের আবেদনকারী প্রতিষ্ঠানের সর্বশেষ নিরীক্ষিত প্রতিবেদন কাজে লাগাবে ব্যাংক। নতুন প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির ক্ষেত্রে ব্যাংক একটি প্রাক্কলিত আর্থিক প্রতিবেদন নিয়ে এই রেটিং করবে; তবে কোনোভাবেই এ ধরনের গ্রাহককে ‘প্রান্তিক’ রেটিংয়ের বেশি দেওয়া যাবে না। গ্রাহকের গুণগত মূল্যায়ন বা নির্ণয়ের ক্ষেত্রে যথাযথ নথি সংরক্ষণ করতে হবে।

আইসিআরআর নীতিমালায় এমন ২০টি মডেল দেওয়া আছে, যা কার্যকরভাবে ব্যবহার নিশ্চিত করা হলে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ঋণপ্রাপ্তির যোগ্যতা অনুযায়ী ঋণ সুবিধা গ্রহণ করতে পারবে বলে মনে করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এছাড়া ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে এই মডেল সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ রয়েছে ৯৯ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা, যা ছিল বিতরণ করা ঋণের ১১ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

এর আগে ২০০৫ সালে ঋণঝুঁকি নিরসনে ক্রেডিট রিস্ক গাইডলাইন ম্যানুয়াল (সিআরজিএম) জারি করেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতদিন ওই ম্যানুয়াল অনুযায়ী ব্যাংকগুলো ঝুঁকি নির্ণয় করে ঋণ বিতরণ করত। চলতি বছরের জুন মাস পর্যন্ত সিআরজিএম ও আইসিআরআর একসঙ্গে অনুসরণ করতে হবে ব্যাংকগুলোকে। আগামী জুলাই থেকে কেবল আইসিআরআরএস অনুসরণ করতে হবে।

অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও ঢাকা ব্যাংকের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক মাহবুবুর রহমান বলেন, আইসিআরআরএস নীতিমালার ফলাফল এখনই বোঝা যাবে না। পুরোপুরি বাস্তবায়ন হওয়ার পরেই এর রেজাল্ট পাওয়া যাবে। তবে এই নীতি বাস্তবায়ন করতে সক্ষমতা মূল্যায়ন কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের প্রয়োজন। লিখিত আকারে জমা খরচের বিস্তৃত বিবরণ বা ব্যালেন্স শিট প্রস্তুতের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ও ব্যক্তিগত ব্যাংকগুলো যৌথভাবে প্রশিক্ষণের আয়োজন করতে পারে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আহমেদ জামাল, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও বিআইবিএম’র চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রহিম, নির্বাহী পরিচালক আবু ফারাহ মো. নাসের, বিআইবিএম’র অধ্যাপক প্রশান্ত কুমার ব্যানার্জি প্রমুখ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ