Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ২৪ জুন ২০১৯, ১০ আষাঢ় ১৪২৬, ২০ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।
শিরোনাম

টিআইবি মহাসত্য রিপোর্টে সরকার ও ইসির আঁতে ঘা লেগেছে

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

টিআইবি রিপোর্টে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের (ইসি) আঁতে ঘা লেগেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি›র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, সরকারের সর্বব্যাপী নিয়ন্ত্রণের ঘন অন্ধকার ভেদ করে টিআইবি রিপোর্টে ভোট ডাকাতির মহাসত্য প্রকাশ হওয়াতে সরকারের মন্ত্রীরা ও নির্বাচন কমিশন মুখ লুকাতে পারছে না। সেজন্য আর্তচিৎকার করে সত্য লুকানোর চেষ্টা করলেও কোন লাভ নেই। মানুষ যা জানার নির্বাচনের আগের দিন রাত থেকেই জেনেছে। আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন বিভিন্ন সংগঠন নির্বাচনে মহাভোট ডাকাতি নিয়ে প্রতিবেদন, মন্তব্য ইত্যাদি করেছে। বিশ্বের নানা গণতান্ত্রিক দেশ বলেছে-এই নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ। তারা এই ভুয়া ভোটের নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেয়নি এবং তদন্ত দাবি করেছে। বিশ্ববাসী এই নির্বাচনকে ইতিহাসের নিকৃষ্ট নির্বাচন হিসেবে অভিহিত করেছে। গতকাল (বৃহস্পতিবার) বেলা ১১টায় নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
রিজভী বলেন, ক্ষমতা চিরদিনের জন্য কোলবালিশের মতো আঁকড়ে ধরে রেখে নিরঙ্কুশ কর্তৃত্ত¡ প্রতিষ্ঠার জন্যই ভোটারদেরকে ভোট দেয়া থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। গণমাধ্যমকে সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারীর মধ্যে রেখে, বিরোধী দলকে কারাগারে ঢুকিয়ে, ভোটারদেরকে আতঙ্কের মধ্যে রেখে, নির্বাচন কমিশনে মোসাহেবদের বসিয়ে নির্বাচনী ব্যবস্থা ধ্বংস করে পার পাওয়া যাবে না। বাংলাদেশের মানুষ জীবন উৎসর্গ করে এই দেশ স্বাধীন করেছে, তারা প্রয়োজন হলে জীবন দিয়ে গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনবে।
পুলিশকে কিসের জন্য রাষ্ট্রীয় পুরস্কার দেয়া হবে সে প্রশ্ন রেখে বিএনপির এই নেতা বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ভোট ডাকাতির মাধ্যমে বিজয়ী হওয়ার পর পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে শুরু করে থানায় থানায় উৎসব চলছে। কেন এই উৎসব? এখন তাদেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে পদক দেয়া হবে কেন, এগুলো জাতি জানতে চায়। এটা কি গায়েবী মামলার পুরস্কার? মৃত ব্যক্তিকে আসামী করার, বিরোধী দলের নেতাকর্মীদেরকে জেলে ঢোকানোর, এলাকা ছাড়া করার, নির্বাচনী মাঠে নামতে না দেয়া, পোস্টার লাগাতে না দেয়া, ধানের শীষের প্রার্থীদের গুলি করা, হামলা করা, জেলে ঢোকানোর পুরস্কার? ধানের শীষের এজেন্টদের গ্রেফতার করা, কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া, মারধর করার পুরস্কার? সর্বোপরি ভোটের আগের রাতে ভোটকেন্দ্র দখলে নিয়ে প্রিজাইডিং অফিসারদেরকে বাধ্য করে রাতভর ব্যালটে সীল মেরে বাক্স ভর্তি করার পুরস্কার? জনগণ বিশ্বাস করে তাদের ভোটাধিকার কেড়ে নেয়ার কৃতিত্বের জন্যই পুরস্কার দেয়া হচ্ছে।
শেখ হাসিনার সবই নজিরবিহীন মন্তব্য করে রিজভী বলেন, জনগণের টাকা ব্যাংক ও সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে লোপাট করে এখন আওয়ামী ক্ষমতাসীনদের আলমারীতে টাকা, লকারে টাকা, তোশকের নিচে টাকা, আর বেশীর ভাগ উড়ে গেছে বিদেশে টাকা। চারিদিকে তাদের গিজগিজ করছে টাকা। তাই নিশীথ রাতে ভোটের তেলেসমাতির হোতাদের মোটা অংকের উৎকোচ ও ভুড়িভোজের পাশাপাশি এখন বীরত্বের পদক দেয়া হবে বলগাহীন উচ্ছাসে। অর্থাৎ ভোট ডাকাতির জন্য এবার রাষ্ট্রীয়ভাবে পদক দিয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের পুরস্কার দেয়া হবে, যা নজীরবিহীন। আসলে শেখ হাসিনার কথন, বলন সবই নজীরবিহীন। শেখ হাসিনার পুলিশ-র‌্যাবের ভোট ডাকাতির দক্ষতা নজীরবিহীন। তাঁর সরকারের মন্ত্রী-উপদেষ্টাদের অম্লানবদনে ডাহা মিথ্যা কথা বলা নজীরবিহীন। বিরোধীদের প্রতি শেখ হাসিনার রণং দেহী ভাব নজীরবিহীন। শেখ হাসিনার স্বৈরশাসনে আদালত, প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশনের তথাকথিত নিরপেক্ষতার গুঞ্জন নজীরবিহীন। কথায় কথায় বিরোধী দলের প্রতি ধমক ও হুমকি নজীরবিহীন। ভোটারদের ভোট-বঞ্চনা করতে দীর্ঘ সময়ব্যাপী পরিকল্পনা নজীরবিহীন। নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকে খর্ব করার জন্য ‘ড্রাকোনিয়ান’ আইন তৈরী করা হয়েছে যা নজীরবিহীন।
তিনি খালেদা জিয়ার অসুস্থতার কথা তুলে ধরে বলেন, বেগম খালেদা জিয়া অসুস্থতার কারণে আদালতে উপস্থিত হতে পারেননি। নজীরবিহীনভাবে তাঁকে কারাগারে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে আটকিয়ে রাখা হয়েছে। এর পেছনে প্রতিহিংসা পূরণের সাধ মেটানো হচ্ছে। তাঁর সুচিকিৎসার জন্য পরিবার ও দলের পক্ষ থেকে কোন আবেদনই কারাকর্তৃপক্ষ রক্ষা করেনি, বরং সরকারের প্ররোচণায় বেগম জিয়ার অসুস্থতাকে আরও অবনতির দিকে ঠেলে দেয়ারই চেষ্টা করেছে। অসুস্থতা সত্তে¡ও সেটিকে আমলে না নিয়ে বারবার আদালতে উপস্থিত হওয়ার জন্য বাধ্য করা হচ্ছে। হয়রানী ও শারীরিকভাবে কষ্ট দেয়ার জন্যই সরকারের সাজানো অসত্য মামলায় বেগম জিয়াকে ঘনঘন আদালতে উপস্থিত করা হচ্ছে। তিনি অবিলম্বে বিশেষায়িত হাসপাতালে তাঁর সুচিকিৎসার দাবি করেন।
দুই দিনের কর্মসূচি ঘোষণা: আগামী ১৯ জানুয়ারি বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৮৩তম জন্মবার্ষিকী। দিবসটি উপলক্ষে ২দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি। সংবাদ সম্মেলনে রিজভী জানান, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকাসহ দেশের প্রতিটি বিএনপি কার্যালয়ে দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। আজ বেলা আড়াইটায় সুপ্রিম কোর্ট বার অডিটোরিয়ামে বিএনপি’র উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। আগামীকাল ১৯ জানুয়ারি সকাল ১০টায় শেরেবাংলা নগরস্থ শহীদ জিয়ার মাজারে দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ও নেতাকর্মীরা ফাতেহা পাঠ ও পুষ্পার্ঘ অর্পণ করবেন। দিবসটি উপলক্ষে ইতোমধ্যেই পোস্টার প্রকাশ করা হয়েছে। ক্রোড়পত্র প্রকাশিত হবে। অনুরুপভাবে সারাদেশে জেলা, মহানগর, উপজেলা, থানা, পৌরসভাসহ বিভিন্ন ইউনিটে যথাযোগ্য মর্যাদায় জিয়াউর রহমানের ৮৩তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হবে।
এসময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য তৈমুর আলম খন্দকার, প্রফেসর সাহিদা রফিক, কেন্দ্রীয় নেতা শহিদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, আবদুস সালাম, শামীমুর রহমান শামীম প্রমূখ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ