Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৫ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

পুঁজিবাজার : ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে সাত শতাংশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

গত সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসের (১৩ থেকে ১৭ জানুয়ারি) মধ্য তিন কার্যদিবসেই দেশের শেয়ারবাজারে দরপতন হলেও প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জর (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক বেড়েছে। তবে কমেছে অপর দু’টি মূল্য সূচক।

সূচকে মিশ্র প্রবণতা দেখা দিলেও লেনদেনে দেখা দিয়েছে ইতিবাচক প্রভাব। বাজারটিতে সপ্তাহের ব্যবধানে লেনদেন বেড়েছে সাত শতাংশের ওপরে। লেনদেনের পাশাপাশি বেড়েছে বাজার মূলধনের পরিমাণ। এক সপ্তাহে দেড় হাজার কোটি টাকা বাজার মূলধন ফিরে পেয়েছে ডিএসই।
সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ১২ হাজার ১৬৭ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৪ লাখ ১০ হাজার ৫৩১ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে ১ হাজার ৫৩৬ কোটি টাকা। এদিকে গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ২৮ দশমিক ২৭ পয়েন্ট বা দশমিক ৪৯ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ২০৬ দশমিক ৮৩ পয়েন্ট বা ৩ দশমিক ৭০ শতাংশ। অপর দুটি সূচকের মধ্যে গত সপ্তাহে ডিএসই-৩০ আগের সপ্তাহের তুলনায় কমেছে ২ দশমিক ২৬ পয়েন্ট বা দশমিক ১১ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ৬৯ দশমিক ৭৫ পয়েন্ট বা ৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

আর ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক কমেছে ৮ দশমিক ৮৬ পয়েন্ট বা দশমিক ৬৭ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ৪৭ দশমিক ৩০ পয়েন্ট বা ৩ দশমিক ৭২ শতাংশ। গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৪৮টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে ১৬০টির দাম আগের সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে। অপরদিকে দাম কমেছে ১৭০টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির দাম। এদিকে সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৫৪ কোটি ৩৩ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৯৮৫ কোটি ১২ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন বেড়েছে ৬৯ কোটি ২১ লাখ টাকা বা ৭ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৫ হাজার ২৭১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় ৪ হাজার ৯২৫ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন বেড়েছে ৩৪৬ কোটি ৪ লাখ টাকা বা ৭ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ।

গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৮৯ দশমিক ৩৩ শতাংশই ছিল ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের দখলে। এছাড়া বাকি ৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ২ দশমিক ৫৭ শতাংশ ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের এবং ১ দশমিক ৫৫ শতাংশ ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের। সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে খুলনা পাওয়ারের শেয়ার। কোম্পানিটির ১৭১ কোটি ৫৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা সপ্তাহজুড়ে হওয়া মোট লেনদেনের ৩ দশমিক ২৫ শতাংশ।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা বিবিএস কেবলসের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৩২ কোটি ১২ লাখ টাকা, যা সপ্তাহের মোট লেনদেনের ২ দশমিক ৫১ শতাংশ। ১২৬ কোটি ৪১ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে অলেম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ। লেনদেনে এরপর রয়েছে-জেএমআই সিরিঞ্জ, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন, ব্র্যাক ব্যাংক, সিঙ্গার বাংলাদেশ, অ্যাকটিভ ফাইন কেমিক্যাল, ঢাকা ব্যাংক এবং আলহাজা টেক্সটাইল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ডিএসই

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
৯ জানুয়ারি, ২০১৯
২১ ডিসেম্বর, ২০১৮
২৭ অক্টোবর, ২০১৮
২০ অক্টোবর, ২০১৮
২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ